প্রান্তিক পর্যায়ে এখনও নারী শ্রমিকদের মজুরির বৈষম্য

আনোয়ার হোসেন শামীম গাইবান্ধা প্রতিনিধি

শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

আজ সোমবার আন্তার্জাতিক নারী দিবস। এই দিবসকে ঘিরে নারীর অধিকার, মজুরিসহ নান বিষয়ে সম-অধিকার নিয়ে অনেক সভা-সেমিনার,পথযাত্রা হয়।কিন্তু প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলে মজুরির বৈষম্য এখনও কমেনি।পুরুষ শ্রমিকদের সমান কাজ করলেও তাদের মজুরি পুরুষের তুলনায় অনেক কম।মজুরির বিষয়ে প্রতিবাদ করেও তারা কোন ফল পান না।

নারী শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় মজুরি- বৈষম্যের চিত্র। এক সময় নারীরা শুধু গৃহস্থলির কাজের মধ্যে সীমাবন্ধ থাকত। এখন তারা সর্ব ক্ষেত্রে কাজ করছেন। অনেক পুরুষ শ্রমিকদের সাথে তাল মিলিয়ে কাজ করছেন মাঠে ঘাটে। বিশেষত নারী শ্রমিকেরা বোরো ফসলের পরিচর্যা, ধানের চারা রোপন, ধান ও মাটি কাটা এবং ইট ভাটায় কাজ করে থাকেন। সাধারনত সকাল ৯ থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত কাজ করলে এক দিনের মজুরি ধরা হয়। স্থানীয়ভাবে এক জন পুরুষ দৈনিক কাজে মজুরি ৪০০ টাকা । এ হিসাবে এক নারী শ্রমিকেরও ৪০০ টাকা পাওয়ার কথা , কিন্তু সমান কাজ করে সেখানে তারা পান ২০০-২৫০ টাকা।

গাইবান্ধা সদর উপজেলার ঘাগোয়া ইউনিয়নের পশ্চিম নামা পাড়া গ্রামের নারী শ্রমিক আশা বেগম (৪০) বলেন, একজন পুরুষ শ্রমিকের মত সকাল ৯টার সময় কৃষি জমিতে কাজ করতে যাই। দুপুরে খাওয়া ও গোসলের জন্য এক ঘন্টা সময় দেয়। আবার বিকাল ৫টা পর্যন্ত কাজ করে বাড়ি ফিরে আসি । তাদের দৈনিক ৪০০ টাকা হলেও আমরা নারী শ্রমিকদের দেয় ২০০ টাকা করে।

একই গ্রামের আম্বিয়া বেগম (৫০) বলেন, স্বামী অচল হয়ে পড়ছে বয়সের ভাড়ে। কাজ কাম করতে পারে না। সংসারের অভাব কখনো জমি নিড়ানি, ইটের ভাটায়,মাটি কাটা কাজ করি। প্রতিদিন কেউ ২শো,কেউ আড়ই’শ দেয়। এই কাজ গুলো পুরুষরা করলে চার’শ পাঁচ’শ দেয়। অভাবে সংসার কষ্ট হলেও করান লাগে।

সদর উপজেলার খোলাহাটী ইউনিয়নের কুমার পাড়ার ইট ভাটায় কাজ করছেন সাহার বিটা গ্রামের আমেনা বেগম(৪০) বলেন, আমি ইট ভাটায় কাজ করি। কখনো ইট ভাঙ্গানি, এক খামাল থেকে অন্য খামালে নিয়ে যাওয়া মাথা, ভ্যান ঠেলে।
কাজ গুলো খুই কষ্টকর । তার পরও পুরুষ কামলাকে যে টাকা দেয় নারী শ্রমিক হামারক যদি সমান টাকা দিত। তাহলে এই ভারী খাটনির কথা ভুলে গেলাম হয়।পুরুষদের হামারের চেয়ে ট্যাকা বেশী দেয়। পুরুষরা অততু এনা (অল্প টুকু) করে কাম করে আর খালি গাছের নিচের গিয়ে দম নিয়ে বিড়ি খায়।

একই ইউনিয়নের পাশ্বের এক ইট ভাটায় দেখা যায়,পাঁচজন নারী শ্রমিকসহ একজন পুুরুষ শ্রমিক কয়লার কাজ করছে। কথা হয় একজন নারী আর একজন পুরুষ শ্রমিকের সাথে। বিউটি বেগম (৩৫) জানান দৈনিক ইট ভাটার কয়লার কাজ করে ২৫০ টাকা করে পাই। এ কাজে খুবই কষ্ট। পুরুষরা এ কাজ করতে চায় না তাই মহাজন নারীদের দিয়ে এই কাজ গুলো করে নেয়। কাজ করবের ধরলে নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে যায়। কয়লার ধুলা দিয়ে গাও পাও ,কাঁপড় চোপর নষ্ট হয়ে যায়।
ভালো মতে গাও পাও ,কাঁপড় চোপর ধুলে যে ট্যাকা কয়টা দেয় শোককোনা ট্যাকা দিয়েও হবানয় (হবে না)।

খোলাহাটি ইউনিয়নের আনালেতারি গ্রামের আশরাফুল (২০) ইট ভাটার কয়লা ভাঙ্গানোর মেশিন চালক , মেশিন চলছে আর মেশিনে পার্শ্বে দাঁড়িয়ে আছে । আর পাঁজন মহিলা কয়লা মেশিনে ওঠা নামানোর কাজ করছে। তিনি বলেন , আমার মজুরি নারীদের চেয়ে একটু বেশী। আশরাফুলসহ পাঁচ নারী শ্রমিক একই সময় ধরে একই কাজ করার পরও নারী শ্রমিকের মজুরি কম।

মজুরি বৈষম্য প্রসঙ্গে নাম অনিচ্ছুক গাইবান্ধা সদর উপজেলার এক ইট ভাটার মালিক বলেন, অন্যান্য ইট ভাটার মালিকরা যা দেয় আমিও তাই দেই। আমি কাউকে কম দেই না।

প্রান্তিক পর্যায়েও নারীদের সম্মান ও শ্রমের মূল্য এখনও পুরুষের কাতারে দাঁড়াতে পারে নাই। তাই সকল পর্যায়ে নারী পুরুষের বৈষম্য নিরসনে কাজ করা এখন সময়ে দাবি।


শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares
  •  
    2
    Shares
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.