মাওলানা আজহারীর বিরুদ্ধে অপপ্রচার

সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

২০১৯ সালে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের একটি অংশ বরেণ্য আলেম মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর কয়েকটি বক্তব্য নিয়ে রাতদিন মাতামাতি করলেও বাবরি মসজিদের অন্যায় রায় এবং ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও বিতর্কিত জাতীয় নাগরিকপঞ্জির (এনআরসি) বিরুদ্ধে নীরবতা পালন করে। তাদের ভূমিকা হচ্ছে তাবলীগ জামায়াত ও হেজবুত তাওহীদের অনুরূপ। উল্লে¬খিত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের সঙ্গে ফুরফুরা শরীফের অনুসারী আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের ভূমিকার কোনো মিল নেই।

একজন আলেমের বিরুদ্ধে কোনো ইসলামী সংগঠনের বিরোধিতা মানায় না। বিরোধিতা করার মতো বহু বিষয় আছে। মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর বিরোধিতা না করে নাস্তিকত্যবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ, সাম্যবাদ সাম্রাজ্যবাদ ও আধিপত্যবাদের বিরোধিতা করলে তাদের জন্য মানানসই হতো। সবাই তাদের প্রশংসা করতো। কিন্তু তারা করছিল ঠিক তার উল্টো। তাদের কার্যকলাপে ইসলাম বিরোধী ছাড়া অন্য কারো লাভবান হওয়ার কথা নয়।
বিশ্বে কোনো দল বা সংগঠন নিজেদেরকে গোটা মুসলিম বিশ্বের প্রতিনিধি হিসেবে দাবি না করলেও আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের এই অংশ সুন্নি বিশ্বের প্রতিনিধি হিসেবে দাবি করছে। সত্যি সত্যি মুসলিম বিশ্বে এমন একটি সংগঠন থাকলে বিশ্বের কোথাও মুসলমানরা নির্যাতিত হতো না। মুসলমানরা অভিন্ন কণ্ঠে আওয়াজ তুলতে না পারায় জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী আসন লাভ করতে পারছে না। আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের এই অংশ যদি সত্যি গোটা সুন্নি বিশ্বের প্রতিনিধিত্বশীল মুসলিম সংগঠন হয় তাহলে তারা নিরাপত্তা পরিষদে ভেটো ক্ষমতাসম্পন্ন স্থায়ী আসন দাবি করুক। যদি তারা অনুরূপ দাবি উত্থাপন করে এবং আন্তর্জাতিক বিশ্ব তাদের দাবি মেনে নেয় তাহলে সুন্নি জামায়াতকে সুন্নি বিশ্বের একমাত্র প্রতিনিধি হিসেবে স্বীকৃতি দানে কারো আপত্তি থাকবে না। আর যদি নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ী আসন লাভের দাবি উত্থাপন না করে এবং তাদের দাবিতে কেউ সাড়া না দেয় তাহলে তারা ভুয়া হিসেবে প্রমাণিত হবে।

জ্ঞান হওয়ার পর থেকে জানি ইসলামে দুটি সম্প্রদায়-একটি সুন্নি এবং আরেকটি শিয়া। হযরত আলীর (রা.) খেলাফত গ্রহণের প্রশ্নে মুসলিম বিশ্ব দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। হযরত আলীর (রা.) অনুসারীরা পূর্ববর্তী তিনজন খলিফার খেলাফতকে ‘অবৈধ’ হিসেবে জ্ঞান করে। সুন্নিরা প্রধান চার খলিফার সবাইকে বৈধ খলিফা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। খেলাফত প্রশ্নে বিরোধ হলেও শিয়া ও সুন্নি উভয় সম্প্রদায় মুসলমান সমাজের অন্তর্ভুক্ত। তবে কথায় কথায় কেউ নিজেকে সুন্নি বা শিয়া বলে পরিচয় দেয় না। শিয়া কিংবা সুন্নি হিসেবে পরিচয় দেয়া কখনো শুভ বুদ্ধির পরিচায়ক হতে পারে না। বাংলাদেশে একটি শ্রেণি নিজেদেরকে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত বলে দাবি করছে। তারা দাবি করছে, পৃথিবীর সব সুন্নি তাদের দলভুক্ত। এ সুন্নি নামধারীরা কোরআনের তাফসিরে বাধা দেয়। নিজেদের মতানুসারী না হলে অন্যদের ওয়াহাবী, সালাফি-লামাজহাবী হিসেবে চিহ্নিত করে। ইসলামে কি এ ধরনের ভাগাভাগি করার সুযোগ আছে? আল্ল¬াহর রসূল (সা.) ইসলাম প্রচার করেছেন। তিনি শিয়া অথবা সুন্নি নামে কোনো ধর্ম অথবা মাজহাব প্রচার করেননি। তাহলে আমরা কেন শিয়া-সুন্নি পরিচয়ে বিভাজিত হচ্ছি? আসলে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত নামধারীরা ইসলামকে টুকরো টুকরো করতে চায়। কারা এই আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত? মূল সুন্নি স্পিরিট এবং সম্প্রদায় থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে এই কথিত সুন্নিরা নিজেদেরকে ইসলামের দুশমন হিসেবে প্রমাণ করছে এবং প্রকৃত সুন্নিদের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড়িয়ে গেছে। আসলে তাদের উদ্দেশ্য ছিল উস্কানি দিয়ে বাংলাদেশে কোরআনের তাফসির বন্ধ করে দেয়া। তারা তাদের উদ্দেশ্য হাসিলে অনেকটা সফল হয়। আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত তো এমন নয়। এমন হতে পারে না। বিশ্বের ৮০-৯০ শতাংশ মুসলমান সুন্নি মতাদর্শের অন্তর্ভুক্ত। কিন্তু বাংলাদেশে সুন্নি হিসেবে পরিচয়দানকারী এ গোষ্ঠী নিজেদেরকে সরকারের পদলেহনকারী এবং ভারতের সেবাদাস হিসেবে প্রমাণ করেছে। সুন্নিরা কখনো কোরআনের তাফসিরের বিরোধিতা করতে পারে না। কোনো তাফসিরকারককে গ্রেফতারের দাবি জানাতে পারে না। পথভ্রষ্ট হলে হতে পারে। নিঃসন্দেহে এ সুন্নিরা পথ হারিয়েছে। ইসলামের নাম ভাঙ্গিয়ে এই মাত্রায় ভ-ামি করা যায় তা চিন্তার অতীত। ইরান, বাহরাইন, ইরাক, ইয়েমেন ও লেবাননের হেজবুল্ল¬াহ বাদে গোটা মুসলিম বিশ্ব সুন্নি। কথিত সুন্নিদের সাহসের প্রশংসা না করে পারা যায় না। বাংলাদেশের বাইরে কোনো মুসলমান তাদের নাম জীবনে শুনেছে কিনা এবং বাকি জীবনে শুনবে কিনা সন্দেহ। একেই বলে, গায়ে মানে না আপনি মোড়ল। এই কথিত সুন্নিরা মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর বিরুদ্ধে ফতোয়া দেয়। তাকে ফেরাউনের ভাতিজা বলে উপহাস করে। সারা দেশ গরম করে ফেলে। তাদের খোটার জোর কোথায় জাতি তা জানতো। ভারতের প্রতি তারা দুর্বল। আজহারীর বিরুদ্ধে ভারতঘেঁষা সুন্নিদের ফতোয়া দেয়া কি মানায়?

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের এই অংশ নিজেদেরকে অতি মুসলমান হিসেবে প্রমাণের ব্যর্থ চেষ্টা করছে। তারা মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী ছাড়া আর কিছু দেখে না। তাদের কাছে দ্বীন-দুনিয়ায় আর কোনো সমস্যা নেই। তাদের ভাষায় মাওলানা আজহারী ‘শিরক-কুফরি’ করছেন। তাকে যারা সমর্থন করছেন তারাও। এই জামায়াত সমর্থক মাওলানা ড. এনায়েতউল্ল¬াহ আব্বাসী এক সমাবেশে ভোলায় মহানবীকে (সা.) কটাক্ষ এবং পুলিশের গুলিতে ৪ জন মুছল্লি¬ শহীদ হওয়ায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত এবং দোষীদের শাস্তি দাবি করেন। এ ইস্যুতে তিনি কথা বলেছেন নরম কণ্ঠে। কিন্তু মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর বিরুদ্ধে কথা বলেন বজ্রকণ্ঠে। মঞ্চ কাঁপিয়ে তোলেন। তিনি অভিযোগ করেন, আজহারী আমাদের নবীকে (সা.) ‘নিরক্ষর,’ মা খাদিজাকে ‘ইনটেক্ট’ এবং হযরত আলী (রা.)কে ‘মদ্যপ’ বলে অসম্মান করেছেন। এনায়েতউল্ল¬াহ আব্বাসী উপস্থিত মুসলিম তরুণদের কাছে গলা ফাটিয়ে জানতে চান, তারা কিভাবে আজহারীকে সহ্য করছে। স্পষ্টত তিনি তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার জন্য তরুণদের উস্কানি দেন। আরেকটি অনুষ্ঠানে এনায়েতউল্ল¬াহ আব্বাসী তাকে ‘কাফের’ ফতোয়া দেন। তিনি গলা ফাটিয়ে বলেন, ‘কোত্থেকে এসব বক্তা জন্ম নিচ্ছে বাংলাদেশে? আজহারী নামে, এই নামে সেই নামে। কথাবার্তার কোনো লাগাম নেই। আল্ল¬াহর শানে বেয়াদবি, রসূল্ল¬াহর (সা.) শানে বেয়াদবি। তওবা করতে হবে। নয়তো তাকে দাউদকান্দিতে ঢুকতে দেবেন না।’
সত্যি মাওলানা আজহারীকে দাউদকান্দিতে ঢুকতে দেয়া হয়নি। এনায়েতউল্ল¬াহ আব্বাসী যাকে তাকে যখন তখন কাফের ফতোয়া দেয়ায় তাকে ‘কাফের ফতোয়া দেয়ার মেশিন’ হিসেবে আখ্যা দেয়া হয়।

তবে ২০২০ সালের শেষ দিকে
এনায়েতউল্ল¬াহ আব্বাসী অত্যন্ত প্রশংসীয় ভূমিকা পালন করেন। ফেসবুক লাইভ টকশোতে তিনি সাংবাদিক নাঈমুল ইসলাম খান এবং ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবিরকে ধরাশায়ী করেন। তিনি বির্তকে ডা. জাকির নায়েককে সমর্থন করেন। পরবর্তীতে সুফি সম্মেলনে তিনি জেহাদের পক্ষে অবস্থান নেন। তিনি বলেন, সন্ত্রাসের সঙ্গে জেহাদের কোনো সম্পর্ক নেই। জেহাদ হচ্ছে সশস্ত্র প্রতিরোধ লড়াই।
শুধু এনায়েতউল্ল¬াহ আব্বাসী নন, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের এই অংশের প্রত্যেক সমর্থক আদাজল খেয়ে লাগে। তারা আজহারীকে গ্রেফতারে সরকারের কাছে দাবি জানায়। ২০১৯ সালের ৪ ডিসেম্বর আজহারীকে কুমিল্ল¬ার লাকসাম ও দেবীদ্বারে তাফসির করতে দেয়া হয়নি। সর্বত্র তাকে নিয়ে শুরু হয় হুলুস্থূল। আজহারীকে গ্রেফতারে তাদের আহ্বানের মধ্যে ফুটে উঠছিল যে, তারা সরকারের অঙ্গ সংগঠন। জাসদের মরহুম সভাপতি মঈনুদ্দিন খান বাদল চট্টগ্রামে সুন্নি জামায়াতের জলসায় নিজেকে সুন্নি বলে দাবি করেন এবং উপস্থিত সবাইকে স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, সুন্নিরা এখন সরকারে। কিছুদিনের মধ্যে মঈনুদ্দিন খান বাদল ইন্তেকাল করেন। সুপ্রিম কোর্ট চত্বর থেকে গ্রীক দেবী থেমিসের নগ্ন মূর্তি অপসারণে আলেম সমাজ তীব্র আন্দোলন গড়ে তুললে মঈনুদ্দিন খান বাদল ভীষণ অসন্তুষ্ট হন এবং আলেম সমাজকে ‘কুকুরের বাচ্চা’ বলে গালি দেন। কুকুরের বাচ্চা বলে গালি দেয়ায় আলেম সমাজ মঈনুদ্দিন খান বাদলের জানাযা নামাজ পড়াতে অস্বীকৃতি জানান। গোটা দেশে নিন্দাবাদের ঝড় বয়ে যায়। কিন্তু আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের এই অংশ মঈনুদ্দিন খান বাদলের সমালোচনা করেনি। তাদের মাথাব্যথা ছিল একমাত্র মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী।

তাদের সমর্থকদের বাড়াবাড়ি এবং অতি ভক্তি দেখে মনে হয় হয়তো তারা নও-মুসলিম অথবা আমরা। আমাদের নবীর (সা.) শিক্ষাগত অবস্থা এবং ইসলামে মদ নিষিদ্ধ করার ইতিহাস দশকের পর দশক ধরে জেনে আসছি। কখনো কোথাও কেউ প্রশ্ন তুলেনি। শোরগোল বাধায়নি। এমন হলে তো আমরা পড়াশোনা করতে পারতাম না। আমাদের বই জ্বালিয়ে দেয়া হতো। আমরা এ ইতিহাস লিখে পাস করতে পারতাম না। পাস করা তো দূরের কথা, জেলে যেতে হতো। ইসলামের প্রতিষ্ঠিত সত্যগুলো নিয়ে কুতর্ক করে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের এই অংশ কি বুঝাতে চাইছিল তাই হলো প্রশ্ন। দেশে কত অঘটন ঘটছে! দেশ এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। গণতন্ত্র নেই। মানবাধিকার নেই। ত্রাহি মধুসূদন অবস্থা। বলতে গেলে বিপদ।

১২ আউলিয়ার দেশে কোরআনের তাফসির করতে গেলে অনুমতি নিতে হয়। নাচ গানের জন্য অনুমতি নেয়ার প্রয়োজন হয় না। বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারতীয় শিল্পীরা এসে খোদ প্রধানমন্ত্রীর সামনে উন্মাতাল নর্তন কুর্দন করেছে। ভাষা আন্দোলনের পটভূমিতে জন্ম নেয়া দেশে হিন্দি গান গেয়ে দর্শকদের মনোরঞ্জন করেছে। ১০ বছর রমরমা ক্যাসিনো ব্যবসা চলেছে। পক্ষান্তরে হুজুররা কোরআনের তাফসির করতে পারছেন না। ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। জায়গায় জায়গায় বাধা দেয়া হয়। তাফসির মাহফিলে থানার ওসি এসে বসে থাকেন। বক্তার পেছনে ওয়াকি টকি হাতে পুলিশ দাঁড়িয়ে থাকে। মাইক খুলে নেয়া হয়। ওসি সাহেব ওয়াজের দিকনির্দেশনা দেন। চট্টগ্রামের লোহাগড়ায় মঞ্চ থেকে মাওলানা আবুল বাশার হেলালীকে গ্রেফতার করা হয়। ওয়াজ মাহফিলগুলোতে তীব্র উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। কোনো একসময় সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও পল্টন ময়দানে বিরোধী দলের জনসভায় এ ধরনের উত্তেজনা সৃষ্টি হতে দেখা যেতো।
আমরা এমন এক যুগে বাস করছি যেখানে ক্যামেরা ও টেকনোলজি ব্যবহার করে যে কাউকে ফাঁদে আটকানো সম্ভব। নাকানি চুবানি খাওয়ানো যায়। অসৎ লোকেরা এ ঘৃণ্য পথ বেছে নিয়েছে। বিশিষ্ট ইসলামী বক্তা মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিকী মাওলানা হাবিবুর রহমানের সঙ্গে টেলিফোনে ব্যক্তিগত আলাপে মাওলানা খালেদ সাইফুল¬াহ আইউবীকে ফেরাউনের সঙ্গে তুলনা করেন। কোনো মুসলমানকে ফেরাউন বলা বা তাকে ফেরাউনের সঙ্গে তুলনা করা ঠিক নয়। একইভাবে কারো টেলিফোন সংলাপ ফাঁস করাও ঠিক নয়। উজানির পীর মাহমুদ হাসান কাসেমীর সুরা পাঠ নিয়ে শুরু হয় ফতোয়াবাজি। তার উচ্চারণে সমস্যা হওয়ায় ভুল ব্যাখ্যা করা হয়। ফরিদপুরের আটরশি জাকের মঞ্জিলের মাওলানা আলাউদ্দিন জেহাদি ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, উজানির পীর নাকি নিজেকে আল্ল¬াহ বলে দাবি করেছেন।

সুরা তেলাওয়াতে এদিক-সেদিক হতেই পারে। তাই বলে ভুল ব্যাখ্যা করা ঠিক নয়। কোরআন তেলাওয়াতে উজানির পীরের মতো আলাউদ্দিন জেহাদিরও ভুল হতে পারে। তাই বলে কি একথা বলা ঠিক হবে যে, আলাউদ্দিন জেহাদি নিজেকে আল্ল¬াহ বলে দাবি করছেন? সবাই আল্ল¬াহর পথে মানুষকে ডাকছেন। আর যখন কাউকে অভিযুক্ত করা হয় যে, তিনি নিজেকে আল্ল¬াহ দাবি করেছেন তখন মুসলমান হিসেবে দুঃখ রাখার জায়গা থাকে না।
আমার মনোজগতে তাজকেরাতুল আউলিয়া’য় বর্ণিত একটি ঘটনা গভীর দাগ কেটেছে। এ বইটিতে উল্লে¬খ করা হয়, কোনো এক সময় কোনো একদিন নামাজের ওয়াক্ত ঘনিয়ে আসে। কিন্তু ইমামতি করা নিয়ে সমস্যা দেখা দেয়। উপস্থিত ব্যক্তিদের মধ্যে একজন ছিলেন ইমামতি করার কিছুটা যোগ্য। কিন্তু তিনি আরবিতে ছিলেন অদক্ষ। অগত্যা তার ইমামতিতে নামাজ শুরু হয়। ইতিমধ্যে তার উস্তাদ এসে উপস্থিত হন। দুজনেই ছিলেন আল্ল¬াহর ওলি। উস্তাদ তার সাগরেদের পেছনে মুক্তাদি হয়ে দাঁড়িয়ে যান। ইমাম সুরা পাঠে ভুল করে ফেলেন। ভুল পাঠ করায় অর্থ ওলট পালট হয়ে যায়। উস্তাদ নামাজ ছেড়ে দিয়ে হাঁটা ধরেন। তখনি তার কাছে ইলহাম আসে। আল্ল¬াহ বললেন, কোথায় যাও। উস্তাদ বললেন, ইমাম ভুল করায় আমি নামাজ ছেড়ে দিয়েছি। আমি গুণাহর অংশীদার হতে পারি না। আল্ল¬াহ বললেন, যাও নামাজে ফিরে যাও। আমি তার সুরা পাঠ শুনছি না। আমি তাকিয়ে আছি তার অন্তরের দিকে। তার অন্তর আমার দিকে। আল্লাহর কথা শুনে উস্তাদ নামাজে ফিরে যান এবং বাকি নামাজ শেষ করেন।

জানি না আলোচিত ঘটনা সত্যি না মিথ্যা। তবে আমি বিশ্বাস করি যে, এ ঘটনা সত্যি এবং ইসলাম এমনি এক উদার আদর্শের নাম। ইসলাম অতি মহান ধর্ম। আল্ল¬াহ মহান। ইসলামে বাড়াবাড়ি করা নিষিদ্ধ। এই দৃষ্টান্ত তো আমরা জানি যে, নিজামউদ্দিন ডাকাত আউলিয়া হয়েছিলেন। ডাকাতকে আল্ল¬াহপাক যদি ক্ষমা করতে পারেন এবং ওলি হওয়ার সৌভাগ্য দান করতে পারেন তাহলে তিনি কি আমাকে এবং আপনাকে ক্ষমা করতে পারেন না? আমার বিশ্বাস আমাদের যাদের জন্ম হয়েছে কালেমার ছায়াতলে তাদেরকে আল্ল¬াহ অবশ্যই অনুগ্রহ করবেন।

মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর কত দোষ! যদি ধরে নেই তার কথায় বা বাচনভঙ্গিতে ভুল আছে তাহলে কি আসে যায়। যারা তার বিরোধিতায় মাঠ গরম করছেন তারা কি নির্ভুল? মানুষ হিসেবে তাদের ভুল না হয়ে পারে না। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শেখ আবদুল্ল¬াহ হজে লোক পাঠানোর সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে বলেন, তিনি তার সমালোচনাকারীদেরও হজে পাঠিয়েছেন। বিষয়টি পরিষ্কার করার জন্য মন্ত্রী বলেন, কুকুরকে মাংস দিয়ে যেভাবে শান্ত করা হয় তিনি সেভাবে তার বিরুদ্ধাচরণকারীদের হজে পাঠিয়ে শান্ত রেখেছেন। তার বক্তব্য নিয়ে কম সমালোচনা হয়নি। তিনি মন্ত্রী পদে না থাকলে মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর মতো ঝামেলায় পড়ে যেতেন। কারো ভুল ধরার চেয়ে নোংরামি আর কিছু হতে পারে না। আজহারীর যেসব উক্তি নিয়ে রণদামামা বাজানো হচ্ছে সেগুলো আমি শুনেছি। এটা সত্যি যে, তার কিছু শব্দ প্রচলিত নয়। অপ্রচলিত শব্দ ব্যবহার করায় কেউ কেউ তাকে ভুল বুঝছেন। ভুল হোক বা না হোক, মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী ভুল স্বীকার করেছেন এবং শব্দগুলো এক্সপাঞ্জ করার প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন। শুধু তাই নয়, তিনি ভবিষ্যতে আরো সতর্কতার সঙ্গে শব্দ বাছাইয়ের অঙ্গীকার করেছেন। আজহারী তার ওয়াজে কখনো কখনো দুচারটি ইংরেজি শব্দ উচ্চারণ করেন। আবার কখনো বা পুরো বাক্যটি ইংরেজিতে বলেন। তার সমালোচনা করা অবশ্যই সহজ। তাকে কাফের ফতোয়া দেয়াও কঠিন নয়। তার সমালোচনাকারীদের একজন একজন করে ধরে এনে যদি বলা হয়, ইংরেজিতে এক মিনিট ওয়াজ করুন। তাহলে তারা কাপড় চোপড় নষ্ট করে ফেলবেন। বাংলা-ইংরেজিতে জগাখিঁচুড়ি লাগাবেন। এসব লোক বুঝতে অক্ষম যে, ডা. জাকির নায়েক এবং মিজানুর রহমান আজহারী হলেন মুসলিম বিশ্বের গর্ব। তাদেরকে নিয়ে আমরা অমুসলিম বিশ্বের সামনে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবো। বিশ্বকে আমরা চ্যালেঞ্জ করতে পারবো। আমরা বুক ফুঁলিয়ে বলতে পারবো যে, আমাদের মধ্যেও যোগ্যতাসম্পন্ন মানুষের জন্ম হয়েছে।

কিন্তু কথিত সুন্নিদের কি বিশ্বের সামনে উপস্থাপন করা যাবে?
এ ইস্যু নিয়ে যারা মতামত দিয়েছেন তাদের মধ্যে মাওলানা কামরুল ইসলাম সাঈদ আনসারীর বক্তব্য আমার কাছে উত্তম বলে মনে হয়েছে। মাওলানা সাঈদ আনসারী তার ওয়াজ মাহফিলে মিজানুর রহমান আজহারীকে নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা করেছেন। বলেছেন, আজহারী ফুরফুরা শরীফের ছাত্র। তিনি তাকে দীর্ঘদিন থেকে চেনেন। তিনি তার চরিত্রের প্রশংসা করে বলেন, ছেলেটি মেধাবী এবং উচ্চ শিক্ষিত। অন্য ধর্মে এমন লোকের জন্ম হলে তারা মাথায় রাখতো। কিন্তু মুসলমানদের দোষ হলো তারা যোগ্য লোকের কদর দিতে জানে না। কেউ ওপরে উঠতে চাইলে তাকে কিভাবে নিচে নামানো যায় সে চেষ্টা করা হয়। মাওলানা কামরুল বলেন, মুসলমান হিসেবে আমাদের উচিত ছিল আজহারীকে সহায়তা করা। সে নতুন। তার অভিজ্ঞতা কম। সে হাজার হাজার ক্যামেরার সামনে ওয়াজ করে। অসৎ উদ্দেশ্যে তার ওয়াজের অংশবিশেষ কাট করে তাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তার বিরুদ্ধে কিছু লোক ছাগলের তৃতীয় বাচ্চার মতো লাফায়। এসব লোক ইসলামের শত্র“। তিনিও প্রথম প্রথম অনেক বেঁফাস উক্তি করেছেন। তবে তখন এত ক্যামেরা না থাকায় তিনি বেঁচে গেছেন। নয়তো তাকেও আজহারীর মতো কাদায় পড়তে হতো। মাওলানা সাঈদ আনসারী দুঃখ করে আরো বলেন, আমরা কপাল পোড়া জাতি। ডা. জাকির নায়েক এবং মিজানুর রহমান আজহারী আমাদের গর্ব। জাকির নায়েকের স্মৃতিশক্তি ও পাণ্ডিত্য কিংবদন্তিতুল্য। পিস টিভিতে তার ওয়াজ প্রচার করা হতো। কিন্তু হোলি আর্টিজানে সন্ত্রাসী হামলার সঙ্গে যোগসূত্র আবিষ্কার করে পিস টিভি বন্ধ করে দেয়া হয়। এতে এ দেশের মুসলমানরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

মাওলানা কামরুল ইসলাম সাঈদ আনসারীর প্রতিটি শব্দ আমার হৃদয়কে নাড়া দিয়েছে। তিনি আমার চিন্তার প্রতিধ্বনি করেছেন। তিনি সঠিকভাবে চিহ্নিত করেছেন যে, জনপ্রিয়তা ও যোগ্যতা মিজানুর রহমান আজহারীর জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা আত্মকলহে শেষ হয়ে গেলাম। বিশ্বে এখনো ইসলাম সবচেয়ে বর্ধিষ্ণু ধর্ম। আজহারীর ওয়াজ মাহফিলে অমুসলিমরা এসে ইসলাম গ্রহণ করে। অমুসলিমরা ইসলাম গ্রহণ করলে ইসলামের দুশমনরা কখনো খুশি হতে পারে না। তারা ইসলামকে একটি উগ্রবাদী এবং অসহিষ্ণু ধর্ম হিসেবে চিহ্নিত করতে চায়। সম্ভবত ভারতের সংবিধান প্রণেতা ড. বিআর আম্বেদকরের সময় মুসলমানরা আজকের মতো দলাদলিতে লিপ্ত ছিল। তিনি ইসলাম গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। কিন্তু মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী তাকে বাধা দিয়ে বলেন, মুসলমানদের মধ্যে ঐক্য নেই। তারা কেবল হানাহানি করতে জানে। গান্ধী বাধা দেয়ায় আম্বেদকর বৌদ্ধ ধর্ম গ্রহণ করেন। আমরা আমাদের দোষে আম্বেদকরকে হারিয়েছি। নয়তো ভারতের এক শ্রেষ্ঠ সন্তান ইসলামের অন্তর্ভুক্ত হতেন। এসব ফতোয়াবাজ কি তাদের কার্যকলাপের পরিণাম সম্পর্কে জ্ঞান রাখে? পাশ্চাত্যের ইসলাম বিদ্বেষীরা মুসলমানদের মধ্যে এরকম দলাদলি দেখতে চায়। অন্তর্দ্বন্দ্ব রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধে রূপ নিলে তাদের আশা ষোল কলায় পূর্ণ হবে।

মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর না হয় শব্দ চয়নে কিংবা বলনে দুচারটি ভুল আছে। কিন্তু মাওলানা তারেক মনোয়ার ও মাওলানা আমির হামজা কি দোষ করেছেন? তারা কি ‘সিক্স প্যাক’ বলেছেন, তারা কি ইসলামে মদ্য পান নিষিদ্ধ হওয়ার আগে পানাসক্ত অবস্থায় হযরত আলীর (রা.) সুরা পাঠে ভুল হওয়ার উপাখ্যান বর্ণনা করেছেন? যদি তাদের বিরুদ্ধে অনুরূপ অভিযোগ না থাকে তাহলে তাদেরকে তাফসির করতে দেয়া হয়নি কেন? দুনিয়ার কোনো কিছুই গোপন থাকে না। মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর মধ্যে মোফাচ্ছেরে কোরআন দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছায়া দেখতে পেয়ে কুফুরি শক্তি আতঙ্কিত হয়ে ওঠে। সাঈদীর কণ্ঠ স্তদ্ধ হয়ে যাওয়ায় মানুষ ভেতর ভেতরে গুমরে মরছে। তারা পিপাসার্ত। আজহারী কোরআন পাগল মানুষের সামনে সাঈদীর বিকল্প হিসেবে আবির্ভূত হন। সাঈদীকে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে কোরআনের মাঠ থেকে বিতাড়িত করা হয়েছে। ১৯৭১ সালের অনেক পরে জন্ম হওয়ায় আজহারীর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ আনা সম্ভব নয়। তাই তাকে ছল ছুঁতা দিয়ে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করা হচ্ছে। তিনি যদি আওয়ামী ঘরানার মাওলানা ফরিদউদ্দিন মাসুদ কিংবা ইসলামি ফাউন্ডেশনের বিতর্কিত ডিজি সামিম মোহাম্মদ আফজালের অনুচর হতেন তাহলে তার বিরুদ্ধে কাফের ফতোয়া দেয়া দূরে থাকুক, তার গলায় ফুলের মালা দেয়া হতো।

পেছনে কোনো শক্তি না থাকায় মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীকে নাজেহাল করা হচ্ছে। তাকে নিয়ে ব্যঙ্গ বিদ্রুপ চলছে। মুসলমান হলে এমনি হয়। তিনি যদি প্রিয়া সাহা হতেন তাহলে কি কেউ তার প্রতি আঙ্গুল তোলার সাহস পেতো? প্রধানমন্ত্রীর মতো কেউ যদি হাত উঁচু করতেন তাহলে সবাইকে হার্ড ব্রেক কষতে হতো। আজহারীর দুর্ভাগ্য। তিনি প্রিয় সাহা হতে পারেননি। দেশবাসী এখনো প্রিয় সাহার দেশবিরোধী জঘন্য তৎপরতা ভুলে যায়নি। তার চক্রান্তের পরিণামে বাংলাদেশ স্বাধীনতা হারাতে পারতো। যুক্তরাষ্ট্র অথবা ভারতের মতো শক্তিশালী দেশ বাংলাদেশে সামরিক আগ্রাসন চালাতে পারতো। ওয়াজে আজহারীর শব্দ চয়নের ক্রটি বিচুতিতে কি বাংলাদেশ কখনো স্বাধীনতা হারাবে? তাহলে কেন রাতদিন আজহারী বিরোধী প্রচারণা চলছিল?

২০১৯ সালের ১৭ জুলাই হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয় সাহা মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর আয়োজিত ‘ধর্মীয় স্বাধীনতার অগ্রগতি’ শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক সম্মেলন চলাকালে হোয়াইট হাউসে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ করেন যে, বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা নিপীড়নের শিকার হচ্ছে এবং তিন কোটি ৭০ লাখ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান বাংলাদেশ থেকে নিখোঁজ হয়ে গেছে। মুসলিম উগ্রবাদীরা তার ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে। তারা তাদের জমিজমা দখল করে নিয়েছে। কিন্তু তিনি কোনো বিচার পাননি। বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নিপীড়ন বন্ধে তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সহায়তা কামনা করেন।
প্রিয় সাহার অভিযোগে বাংলাদেশে প্রবল প্রতিক্রিয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ২১ জুলাই তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজে এক স্ট্যাটাসে বলেন, প্রিয় সাহার অভিযোগ ভয়ঙ্কর ও মিথ্যা। তার উল্লে¬খিত সংখ্যাটি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যার চেয়ে ১০ গুণ বেশি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নিহতদের সংখ্যার কাছাকাছি। তিনি বলেন, সবার অজান্তে এত মানুষ গুম হলো। কোনো তথ্য প্রমাণ ছাড়া তিন কোটি ৭০ লাখ লোক গায়েব হয়ে গেল?

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়া চলছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতনের কোনো ঘটনা ঘটেনি। ঝালকাঠিতে প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা দায়ের করা হয়। ঠিক তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লন্ডন থেকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়া শুরু না করার নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী অনুরূপ নির্দেশ দেয়ায় সব প্রতিবাদ বিক্ষোভ পানি হয়ে যায়। মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী বিপদে পড়ে প্রধানমন্ত্রীকে স্মরণ করে বলেন, তিনি আমার মায়ের মতো। আসলেও তারপর থেকে মাওলানা আজহারীর ওয়াজ করা সহজ হয়ে যায়। তিনি নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের এমপি শামিম ওসমানের এলাকায় ওয়াজ করেন। অপপ্রচার তার জন্য আশীর্বাদ হয়ে দেখা দেয়। আগে তার মাহফিলে লোক হতো কম। তারপর থেকে উপচেপড়া ভিড়। ২০১৯ সালের ২৫ ডিসেম্বর মাদারীপুরে তার তাফসির মাহফিলে ১০ লাখ লোক হয়। তিন শো পুলিশ সদস্য নিরাপত্তা রক্ষা করে। তার সঙ্গে মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন আওয়ামী লীগের সব নেতা এবং পদস্থ পুলিশ কর্মকর্তারা। সরকারি ছত্রছায়া পাওয়া সত্ত্বেও ২০২০ সালের ফেব্র“য়ারিতে আকস্মিকভাবে তাকে তার সব কর্মসূচি বাতিল করে মালয়েশিয়ায় পাড়ি জমাতে হয়। বলা হয়, তিনি পিএইচডি কোর্স সম্পন্ন করতে মালয়েশিয়ায় গেছেন। আসলে প্রকৃত ঘটনা তা ছিল না। তাকে কৌশলে এবং নীরবে দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়।

হাজার হাজার তরুণ সিনেমা না দেখে, মদ জুয়া না খেলে মাওলানা আজহারীর ওয়াজ শুনতে আসতো। সমাজে একটি ইতিবাচক প্রভাব পড়েছিল। সুস্থ পরিবেশ না থাকায় আমাদের তরুণরা অপরাধে লিপ্ত হতো। কিন্তু আজহারীর ওয়াজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অগণিত তরুণ হতাশায় নিমজ্জিত হয়। তাদের সামনে থেকে সত্যের আলোকে দূরে সরিয়ে দেয়া হয়। বিনা দোষে আজহারীকে বিদেশে পাঠিয়ে দেয়ার জন্য দায়ী ব্যক্তিরা আল্লাহর কাছে কী জবাব দেবেন জানি না।
দেশের সঙ্গে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী ওয়াজ জারি রাখার জন্য একটি ইউটিউব চ্যানেল চালু করার চূড়ান্ত আয়োজন সম্পন্ন করে ফেলেন। চালু হওয়ার আগে ২০২০ সালের ২৬ ডিসেম্বর এ চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা ৭ লাখ ৩৪ হাজারের পৌঁছে। জনপ্রিয় ইসলামী বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী ২০২০ সালের ১৯ ডিসেম্বর মালয়েশিয়া থেকে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে ইউটিউবের লিঙ্ক শেয়ার করে তা সাবস্ক্রাইব ও শেয়ার করার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ জানান। তিনি ৯ ডিসেম্বর ইউটিউব চ্যানেল খোলার সিদ্ধান্তে সাধারণ মানুষের মতামত জানতে চেয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাস দেয়ার পর সেখানে প্রায় ৬৪ হাজার মানুষ তাদের মতামত প্রকাশ করেন। যার শতভাগই ইউটিউব চ্যানেল খোলার পক্ষে মত দেন। স্ট্যাটাসটি ৩ হাজার ৬ শো জন শেয়ার করে এবং ৩ লাখ ৫৫ হাজার লাইক পড়ে। তিনদিন পর আজহারী আরো একটি স্ট্যাটাসের মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নীতিগত সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেন। একই সঙ্গে চ্যানেলটির লক্ষ্য, উদ্দেশ্য এবং কি কি বিষয় থাকবে তা নিয়ে বিস্তারিত জানান। শুরু হতে না হতে ইউটিউবে মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর সাবস্ক্রাইভার সংখ্যা বলিউড সুপারস্টার সালমান খানকে ছাড়িয়ে গেছে।

(লেখাটি আমার ‘ধর্ম সমাজ ও রাজনীতি’ থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করেছে আফসার ব্রাদার্স। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২১১-২১৪ নম্বর স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে।)


শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares
  •  
    3
    Shares
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.