হিন্দু বাড়িতে বাড়িতে হঠাৎ ইসলামি দাওয়াতের চিঠি!!!!

মোঃ সাইফুল্লাহ ;

মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার চরগোয়ালদাহ ও মালাইনগর গ্রামে শুক্রবার রাতের আধারে ৫০টির বেশী হিন্দু বাড়িতে ধর্মান্তরিত হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণের আহবান জানিয়ে উড়ো চিঠি দিয়েছে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা। রাতের বেলায় হেলমেট পড়ে পরিচয় গোপন রেখে একই ধরনের চিঠির ঘটনায় ওই এলাকায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে উদ্বেগ উৎকন্ঠা ও আতংক দেখা দিয়েছে বলে জানিয়েছে অনেকে। অজ্ঞাত ব্যক্তিদের দেয়া এ চিঠিটি ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন মহল প্রতিবাদ জানিয়েছে। গত শনিবার(২০ মার্চ) সকালে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারেক আল মেহেদী, শ্রীপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: ইয়াছিন কবির, শ্রীপুর থানা পুলিশ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ জনকে আটক করেছে শ্রীপুর থানা পুলিশ।

চর মালাইনগর গ্রামের দিপ্ত বালা নামে এক ব্যক্তি জানান- শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার পর পাঞ্জাবি পাজামা পরিহিত কয়েকজন ব্যক্তি হেলমেট পড়া অবস্থায় বিভিন্ন বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাড়ির কর্তাদের নামে খামে ভরা ওই চিঠিগুলি বাড়ির সদস্যদের হাতে দিয়ে দ্রুত মোটর সাইকেলে এলাকা থেকে সরে পড়ে। ওই গ্রামের ৫০টি বেশী বাড়িতে পরপর চিঠিগুলি বিতরণ করা হয়। চিঠিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওই সকল ব্যক্তিকে ইসলামের দাওয়াত সম্বলিত বিভিন্ন কথা লেখা ছিল। চিঠির সবশেষে ইসলাম গ্রহণ করার আহবান জানানো হয় তাদের। এ ঘটনায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে উদ্বেগ উৎকন্ঠা ও আতংক বিরাজ করছে।

২০ মার্চ শনিবার দুপুরে শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: ইয়াছিন কবীর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তিনি জানান, প্রাথমিক দৃষ্টিতে চিঠির মাঝে কোন হুমকি কিংবা ধমকি পরিলক্ষিত না হলেও রাতের আধারে নিজেদের নাম পরিচয় গোপন করে কেন হিন্দু সম্প্রদায়ের ৫০টির বেশী বাড়িতে এ ধরনের চিঠি দেয়া হলো তা আমরা গুরুত্বের সাথে খতিয়ে দেখছি। এ ঘটনায় এলাকায় যেন কোন বিশৃংখল পরিস্থিতি সৃষ্টি না হয় তার জন্য প্রশাসন সজাগ আছে। এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে মূল পরিকল্পনাকারি চৌগাছি গ্রামে মঞ্জু বিশ্বাসের ছেলে ইউসুফ (৩৫), মহেশপুর গ্রামের ইয়াকুব মোল্যার ছেলে কুরবান (৩২), সাচিলাপুর গ্রামের আলীমুদ্দীনের ছেলে হাবিবুর রহমান (৪০) কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলী আহমদ মাসুদ জানান- ঘটনা শোনার পর থেকেই পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত আছে। উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন। এ পর্যন্ত ৩ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ নিয়োজিত আছে। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে সকল প্রকার নিরাপত্তা দেয়া হচ্ছে।
বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীপুর উপজেলা শাখার সভাপতি শিশির শিকদার ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের শ্রীপুর উপজেলা সভাপতি অপূর্ব মিত্র ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করে এ কর্মকান্ডের পেছনে কোন গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে প্রশাসনকে আহবান জানিয়েছেন। এদিকে ২১মার্চ সকালে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান পরিষদের সভাপতি অপূর্ব মিত্র আমাদের প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন আমরা গত রাতে ঘটনা স্থল থেকে থেকে ঘুরে এসেছি,সেখানকার পরিবেশ খুব ভালো। অন্যদিকে ২১ মার্চ রাত সোয়া ৭টার দিকে শ্রীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আলী আহমেদ মাসুদ আমাদের প্রতিনিধিকে জানান – আটককৃতদের নামে এখনো মামলা হয়নি, তবে মামলা প্রক্রিয়াধিন রয়েছে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.