সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ০১:২২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
জুলাই থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ২০ হাজার টাকা মৌলভীবাজার জেলা সদর উপজেলা ১২ নং গিয়াসনগর ইউনিয়ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সৈয়দ গৌছুল হোসেন জনপ্রিয়তায় এগিয়ে। ভোলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেলেন ৩৭১ ভূমিহীন পরিবার নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ৬০০ পিচ ইয়াবা সহ আটক ২ নজরপুর ইউনিয়নে জনমত জরিপে এগিয়ে যুবলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম জহির মুজিববর্ষের উপহার : ভূমিসহ ঘর পেলো হাটহাজারীর ২৬ পরিবার একাধিক হত্যা মামলার আসামী সোমেদ আলী গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব ১১ নরসিংদী মডেল থানার অভিযানে শীর্ষ সন্ত্রাসী সুজন সাহা আটক আক্রান্তের নয়া রেকর্ড আনােয়ারায় ২৫ গৃহহীন পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রী’র ঘর উপহার

ইসলাম কখনো রাজনীতির জন্য বাধা নয় : রাশেদ খাঁন

ইসলাম পরিপূর্ণ জীবন-বিধান। আর রাজনীতি জীবনেরই অংশ। সুতরাং ইসলাম কখনো রাজনীতির জন্য বাধা নয়। বরং শান্তি প্রতিষ্ঠার রাজনীতি মহানবী (সাঃ) করে গেছেন। পৃথিবীতে তিনিই সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ আদর্শিক নেতা ও পথপ্রদর্শক। তিনি কি শুধু ধর্ম প্রতিষ্ঠা করে গেছেন? কখনোই না। তিনি রাজনীতি, অর্থনীতি, নৈতিকতা, জ্ঞান-বিজ্ঞান, সমাজ পরিচালনার নীতি, রাষ্ট্র পরিচালনার আইনকানুন ইত্যাদি সবই প্রতিষ্ঠা করে করে গেছেন, মানুষকে পরিপূর্ণভাবে চলার পথ দেখিয়ে গেছেন। তিনি একইসাথে যেমন মুসলিমদের অধিকার প্রতিষ্ঠার কথা বলেছেন, সাথে সাথে অন্য সম্প্রদায়ের মানুষের অধিকার যেন লঙ্ঘন না হয় সে ব্যাপারেও সচেতন ছিলেন। তার জীবনাদর্শ আমাদের পরিপূর্ণ চিন্তার কথা বলে। অর্থাৎ রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য যা যা দরকার, তিনি তার সবই প্রতিষ্ঠা করেছেন, পথ দেখিয়ে গেছেন। আংশিক শিক্ষা, আংশিক চিন্তা, আংশিক চর্চা বলতে কোনকিছু নবী ( সাঃ) এর জীবনে ছিলো না।

কিন্তু বর্তমানে আমাদের ধর্মীয় ধারার সংগঠনগুলোর মধ্যে আংশিক চিন্তার প্রতিফলন দেখছি। আমি ব্যক্তিগতভাবে সবার স্বাধীনতা, মূল্যবোধ, অধিকার নিয়ে কথা বলি। তবে রাষ্ট্র নিয়ে যারা পরিপূর্ণ চিন্তা করে, আমি তাদের কথা আরও জোরালোভাবে বলি। আপনি যখন ধর্মের কথা বলেন, তখন আপনাকে রাষ্ট্রের ন্যায়-অন্যায়, উন্নতি-অবনতি- দুর্নীতি, রাজনীতি- অর্থনীতি, শাসনব্যবস্থা- আইনব্যবস্থা, গণতন্ত্র- স্বৈরতন্ত্র, দেশ পরিচালনার নীতি-পররাষ্ট্র নীতি নিয়েও কথা বলতে হবে। দেশের মানুষের কল্যাণার্থে ও জীবন যাত্রার মানের উন্নয়নে আপনার সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য-উদ্দেশ্য,পরিকল্পনা, কৌশল থাকতে হবে।

আর এজন্য আমি সবসময় বলি যারা ধর্মীয় ধারার লাইনে পড়াশোনা করে। তাদের পাঠ্যপুস্তকে ধর্মের পাশাপাশি বিজ্ঞান, আইন, অর্থনীতি, সমাজনীতি, রাজনীতি, পররাষ্ট্রনীতি ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। এতে করে জীবন পরিচালনা, সিদ্ধান্ত ও কৌশল নির্ধারণে তারা আরও বেশি পরিপক্ব হবে। অন্যথায় সমাজ পরিচালনায় ও রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত নির্ধারণে তারা সবসময় পিছনেই থাকবে। এতে করে তারা রাষ্ট্রের বড় একটি অংশ হয়েও অবহেলিত ও শোষিত শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত থেকে যাবে।

সারাদিন মানুষকে পরকালের কথা, ধর্ম চর্চার কথা বললেন। কিন্তু অন্যদিক থেকে দুর্নীতি, অন্যায়, অনাচারে দেশটা ধ্বংস হয়ে গেলো! তাহলে তো হবেনা। বরং নৈতিকতা প্রতিষ্ঠার জন্য পলিসি মেকিং এর জায়গায় আসার জন্য রাজনীতি করতে হবে। যে জায়গায় অবস্থান করে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়। সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য কল্যাণ করা যায়।
অন্যথায় শুধুমাত্র ধর্ম চর্চা, আস্তিক, নাস্তিক নিয়ে উত্তেজনা তৈরি হলেও, এতে দেশ- মানুষের কোন লাভ নেই। উন্নয়ন হবেনা মানুষের ভাগ্যের। পরিবর্তন হবেনা জীবনযাত্রার মানের।

আপনাকে যেমন ধর্মীয় নলেজ থাকতে হবে। একইভাবে আপনাকে প্রশাসনিক, চিকিৎসা, শিক্ষা, গণমাধ্যম, বৈজ্ঞানিক, ইঞ্জিনিয়ারিং, আদালত, অফিস ইত্যাদি জায়গায় আপনার অংশগ্রহণ ও পাদচারণা থাকতে হবে। অন্যথায় আপনার আস্ফালন শুধু বৃথা আস্ফালনেই পরিণত হবে। আপনাকে যেমন দেশীয় রাজনীতি নিয়ে সচেতন থাকতে হবে। রাখতে হবে দ্বিপাক্ষিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক। জানতে হবে পৃথিবীর অন্যান্য দেশের রাজনীতি ও শাসনব্যবস্থা।
পৃথিবীর বয়স অনেক হয়েছে। মানুষের জীবনযাত্রার পরিবর্তন হয়েছে। এই পরিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে আপনাকে ভাবতে হবে। আপনি ১০০ বছর পরে এসে ১০০ বছর আগের চিন্তা-চেতনা নিয়ে কিছু করতে পারবেন না। আপনার নিজেকে পরিবর্তন করতে হবে। পৃথিবীর পরিবর্তনের সাথে সাথে আপনারও কৌশল নির্ধারণ করতে হবে। অন্যথায় বৃহৎ জনগোষ্ঠী হয়েও আপনি ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবেন। আপনার ভাগ্য নির্ধারণের দায়িত্ব চলে যাবে অন্যের হাতে। অথচ বুদ্ধি, জ্ঞান, মেধা, সৃজনশীল ও অন্তরের শক্তি কাজে লাগালে আপনিও হতে পারতেন মানুষের জীবনযাত্রার মানের উন্নয়নের ধারক ও বাহক।

লেখকঃ রাশেদ খাঁন,বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com