বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ১২:১৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

ঈদগাঁও-চৌফলদন্ডি সড়কে যত্রতত্র স্পিড ব্রেকার, রং, সংকেত কিছুই নেই!

সেলিম উদ্দীন,কক্সবাজার।

কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও-চৌফলদন্ডি সড়কে স্পিড ব্রেকারে কোনো রং বা সাংকেতিক চিহ্ন না থাকায় প্রায়ই ছোট-বড় সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে।

সাধারণত দুর্ঘটনা কমাতে সড়কে স্পিড ব্রেকার দেয়া হয়। এক্ষত্রে কোন রকম নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে অপরিকল্পিতভাবে স্পিড ব্রেকার তৈরি করায় ওই সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

এরই মধ্যে ব্যক্তি উদ্যোগে যত্রতত্র স্থাপন করা হয়েছে অসংখ্য স্পীড ব্রেকার। যার কারণে উপকারের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হচ্ছে।

স্পিড ব্রেকারগুলোর আগে পরে নেই কোন প্রতিকী চিহ্ন, লেখা নেই কোন সতর্কবানী। এমনকি রং দিয়ে চিহ্নিত করা হয়নি ওই স্পিড ব্রেকারগুলো।

কিছু কিছু স্পিড ব্রেকার এতো উঁচু যে, এগুলোর উপর দিয়ে গাড়ি চালানোর সময় বেশ জোরে ঝাঁকুনির সৃষ্টি হয়, যানবাহনের নীচে স্পিড ব্রেকার লেগে যায়।

এ নিয়ে প্রায়ই ড্রাইভারদের সাথে যাত্রীদের কথা কাটাকাটি ও বাক-বিতন্ডার সৃষ্টি হচ্ছে। এসব রাস্তায় যাতায়াতকারী রোগী ও শিশুরা ঝাঁকুনিতে প্রায় অসুস্থ হয়ে পড়ছে। পোয়াতিদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া জীবনের ঝুঁকিতে পরেছে।

সড়কের পাশে কেউ নতুন বাড়ি নির্মাণ করলে সেখানে দেয়া হয় একটি স্পিড ব্রেকার। আর হাট-বাজার, দোকান থেকে শুরু করে চা দোকানের সামনে অবাধে স্পিড ব্রেকার নির্মাণ করায় প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা।

অনেক সময় বিভিন্ন মসজিদ নির্মাণের নামে পাকা সড়কের ওপর ইট ও মাটি দিয়ে অস্থায়ীভাবে নির্মাণ করে গাড়ির পথরোধ করার চেষ্টা করছে অসচেতন মহল।

মোঃ সোহেল নামের এক মোটর সাইকেল চালক জানান, উঁচু স্পিড ব্রেকারগুলোতে গাড়ির গতি কমিয়ে উঠার চেষ্টা করলে গাড়ি স্পিড ব্রেকারের ওপর উঠতে চায়না।
তাই বাধ্য হয়ে জোরে চালিয়ে উঠতে হয়ে। মাঝেমধ্যে ওই স্পিড ব্রেকার গুলোতে উঠতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন মোটরসাইকেল চালকরা।

স্থানীয়রা জানান, অপরিকল্পিত ভাবে নির্মিত এই স্পিড ব্রেকারগুলোর কারণে সাইকেল, ভ্যান, মোটরসাইকেল চালকরাও সমস্যায় পড়েছেন। প্রতিদিন ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটছে। সাধারণত দুর্ঘটনা কমাতে সড়কে স্পিড ব্রেকার (গতিরোধক) তৈরী করা হয়।

সেগুলোও আবার নির্দিষ্ট দূরত্বে, সেই সঙ্গে দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকাতেই স্থাপন করা হয়। কিন্তু উপকারী স্পিড ব্রেকার অনেক সময় ক্ষতিও করে।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে কক্সবাজার সড়ক বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, সড়কে স্পিড ব্রেকার দেয়ার নিয়ম না থাকলেও স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক ব্যক্তিদের কারণে
সড়কের যত্রতত্র নির্মাণ করা হয়েছে গতিরোধক বাঁধ (স্পিড ব্রেকার)। এসব স্পিড ব্রেকার নির্মাণে মানা হয়নি না কোন নিয়মনীতি। কোন জায়গায় একটি আবার কোন জায়গায় রয়েছে এক সাথে তিন থেকে চারটি পর্যন্ত স্পিড ব্রেকার। কিন্তু নেই কোন সতর্ক চিহ্ন। ফলে দুর্ঘটনা এড়ানোর পরিবর্তে আরো বেশি করে ঘটছে দুর্ঘটনা। বাড়ছে মৃত্যু ঝুঁকিও।

খোদ সড়ক ও জনপথ (সওজ) কর্মকর্তারা এটিকে অবৈধ বললেও নির্মাণের কারণ হিসেবে বলছেন জনগণের চাপ।
আর সতর্ক চিহ্ন না থাকার কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্টদের খামখেয়ালীর বিষয়টি উঠে এসেছে।

সরেজমিন ঈদগাঁও বংকিম বাজার থেকে চৌফলদন্ডি ব্রীজ পর্যন্ত ঘুরে দেখা যায় ১০টির অধিক স্পিড ব্রেকার নির্মাণ করা হয়েছে। কোন কোন জায়গায় করা হয়েছে এক সাথে ২টি করে স্পিড ব্রেকার।

একই অবস্থা দেখা যায় ঈদগাঁও বাজারের ডিসি সড়কস্থ পরিষদের সামনে। এ সড়কে নির্মাণ করা হয়েছে অপ্রয়োজনীয় ২ টি স্পিড ব্রেকার। যার কোনটিই দূর থেকে দেখা যায় না।

সড়কের ইজিবাইক চালক মোঃ আলী বলেন, ঈদগাঁও চৌফলদন্ডি সড়কে ১০টির অধিক স্পিড ব্রেকার থাকলেও এর বেশিরভাগেই নেই সতর্ক চিহ্ন। ফলে অনেক সময় এসব স্পিড ব্রেকার দেখা যায় না।

এতে অনেক সময় তৈরি হয় দুর্ঘটনার ঝুঁকি। বিশেষ করে বৃষ্টির মৌসুমে এসব স্পিড ব্রেকার বাধে ধাক্কা খেয়ে অনেক সময় গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারায়।

বিষয়টি নিয়ে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) কক্সবাজার জেলা শাখার সদস্য নুরুল আমিন বলেন, গুরুত্বপূর্ণ কিছু জায়গা ছাড়া সড়কে যত্রতত্র স্পিড ব্রেকার নির্মাণ বেআইনি। কিন্তু মানুষের প্রয়োজনে গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় স্পিড ব্রেকার নির্মাণ করা হলে সেখানে অবশ্যই সতর্ক চিহ্নও দিতে হবে।

যাতে দূর থেকে দেখে চালক তার গতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। তা না হলে দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকে। এ ব্যপারে সংশ্লিষ্টদের আরো সতর্ক হওয়া উচিৎ বলে তিনি মনে করেন।

কক্সবাজার সড়ক ও জনপথের প্রধান প্রকৌশলী পিন্টু চাকমা বলেন, ঈদগাঁও চৌফলদন্ডি সড়কে এসব স্পিড ব্রেকার স্থানীয়রা জোর করে তৈরি করেছেন। তবে এসব স্পিড ব্রেকারে একটি সতর্ক চিহ্ন দেওয়া হয়। এখনো হয়তো দেয়া হয়নি। পুনরায় এসব স্পিড ব্রেকারে সতর্ক চিহ্ন দেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com