বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ১১:১০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

ট্রাম্প যেসব করেছিলেন বাইডেন তো তাই করছেন, নাকি সুইট বাইডেন প্রেমীরা?

দেব দুলাল মুন্না

১,ট্রাম্পের শরণার্থী নীতিই বহাল রাখলেন বাইডেন । দুই মাস আগে ট্রাম্পের শরণার্থী নীতিতে পরিবর্তন আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বাইডেন। কথা রাখেননি।
২,গত তিনদিন আগে আবারও পুলিশের অত্যাচারে মারা গেলেন ট্রাম্পের আমলে ফ্লয়েড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তির মতো আরেক কৃষ্ণাঙ্গ বর্ণবাদের কারণে বাইডেনের আমলে।

৩, আগামী ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সব মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের যে সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্র নিয়েছে।এটি টাম্প ও চেয়েছিলেন। বাইডেনও তাই করছেন।কারণ, যুক্তরাষ্ট্র মনে করে, যে উদ্দেশ্যে মার্কিন সেনারা ২০০১ সালে আফগানিস্তানে গিয়েছিলেন, তা পূরণ হয়েছে। এখন আফগান পাট চুকিয়ে করোনা মহামারি, সাইবার হামলা, চীন, রাশিয়া প্রভৃতি ইস্যুতে পূর্ণ মনোযোগ দেওয়ার সময় যুক্তরাষ্ট্রের।যুক্তরাষ্ট্র ময়দান ত্যাগ করলেও আফগান যুদ্ধ শেষ হবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন একাধিক বিশ্লেষক। ঠিক যেমনটা হয়েছিল, গত শতকের আশির দশকে আফগানিস্তান থেকে সোভিয়েত সেনা প্রত্যাহারের পর।কাবুলের ইনস্টিটিউট অব ওয়ার অ্যান্ড পিস স্টাডিজের নির্বাহী চেয়ারম্যান তামিম আসে এ ব্যাপারে বিবিসিকে বলেছেন, ‘আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে একটা রাজনৈতিক সমঝোতা না হলে আফগানিস্তানে সিরিয়ার মতো রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধ শুরু হতে পারে।’ট্রাম্পও তাই চেয়েছিলেন। বাইডেনও সেটিই করতে যাচ্ছেন।
৪,ট্রাম্পের যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা বাইডেনও খেলছেন। যেমন রাশিয়ার সঙ্গে তার আচরণ।রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাশিয়ার ১০ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছিল বাইডেন প্রশাসন। জবাব দিতে দেরি করেনি মস্কো। তারাও একই সংখ্যক মার্কিন কূটনীতিককে রাশিয়া ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে।এরমধ্যেই প্রশান্ত মহাসাগরের আকাশসীমায় একটি মার্কিন গোয়েন্দা বিমানকে তাড়া করেছে রাশিয়া। তাড়া খেয়ে মার্কিন বিমানটি ওই এলাকা ত্যাগ করতে বাধ্য হয়।

৫,সৌদি যুবরাজ ট্রাম্পের কাছের। বাইডেনেরও। কেন তাকে বাইডেন কাছের করে নিলেন? কারণ সৌদি বাজার। বাইডেন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার এক মাস পরেই তাঁর প্রশাসন খাসোগি হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রকাশ করে।বাইডেন প্রশাসনের উন্মোচিত গোয়েন্দা প্রতিবেদন, যার শিরোনাম ‘অ্যাসেসিং দ্য সৌদি গভর্নমেন্টস রোল ইন দ্য কিলিং অব জামাল খাসোগি’ (জামাল খাসোগির হত্যাকাণ্ডে সৌদি সরকারের ভূমিকার মূল্যায়ন), এমন সংক্ষিপ্ত যে আমেরিকান সংবাদমাধ্যমে কেউ কেউ এতে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। তুরস্কের রাজধানী ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরে সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যা করে তাঁর দেহ টুকরো টুকরো করে কেটে অ্যাসিড দিয়ে পুড়িয়ে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার যেসব বিবরণ সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছিল, মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনটিতে সেসবের উল্লেখমাত্র নেই। শুধু তাই নয়, প্রতিবেদনের একদম শেষে বলা হয়েছে, ‘খাসোগির বিরুদ্ধে পরিচালিত অভিযানটিতে তাঁর মৃত্যু ঘটবে—এটা এই ব্যক্তিরা আগে থেকে জানতেন কি না তা আমাদের জানা নেই।

৬,চীনা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনে আলাপ করেছেন জো বাইডেন দুই মাস আগে। আলাপকালে বাইডেন অবাধ ও মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলকে অগ্রাধিকার দিয়েছেন। তিনি শিনজিয়াংয়ে চীনের মানবাধিকার লঙ্ঘন, হংকংয়ের ওপর চীনের দমন-পীড়ন এবং তাইওয়ানের সঙ্গে চীনের চলমান উত্তেজনা নিয়েও কথা বলেন। অন্যদিকে আলাপকালে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং সতর্ক করে বলেছেন, সংঘাত আর খারাপ সম্পর্ক দুই দেশের জন্যই বিপর্যয় বয়ে আনবে। দুই পক্ষেরই ভুল বোঝাবুঝি এড়িয়ে চলা দরকার।বাইডেন বলেছেন, আমাদের সম্পর্ক ভালো থাকবে। অথচ ইলেকশনের আগে চীনকে উসকানিদাতা হিসেবে বাইডেন দোষারুপ করেছিলেন।
৭,বাইডেন তার ছেলেকে বিচারবিভাগে প্রভাব খাটিয়ে নিরপরাধী বানাতে চাইছেন। ট্রাম্প যেমনটি করেছিলেন।

৮, প্রেসিডেন্ট বাইডেন শপথ গ্রহণের পরই বলেছিলেন, একটি মানবিক ও কার্যকর অভিবাসন ব্যবস্থা তিনি গড়ে তুলবেন। অভিবাসনের স্বাভাবিক নিয়মে যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় আবেদনের ১৩ লাখ মামলা বছরের পর বছর ধরে পড়ে আছে অভিবাসন আদালতে। কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার এনফোর্সমেন্ট বিভাগের তথ্য অনুযায়ীম শুধু গত মার্চ মাসেই ১ লাখ ৭০ হাজার অভিবাসীর প্রবেশ ঘটেছে দক্ষিণের সীমান্ত দিয়ে। ২০০৬ সালের পর কোনো এক মাসে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে আসা সর্বোচ্চ সংখ্যক নথিপত্রহীন অভিবাসীর আগমন ঘটেছে গত মাসে।গত চার বছরে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিবাসন কড়াকড়ির কারণে সমস্যার কোনো সমাধান হয়নি। ডেমোক্রেটিক পার্টির যেসব আইনপ্রণেতা কিছুটা রক্ষণশীল এলাকার, তাঁরাও অভিবাসন সংস্কার নিয়ে উদারনৈতিক অবস্থানে নেই। বাইডেন ইতিমধ্যে কংগ্রেসকে আইন প্রণয়নের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

নিউজার্সির ডেমোক্র্যাট কংগ্রেসম্যান বব ম্যানেনডেজ অভিবাসন আইনের খসড়া প্রণয়ন করেছেন। কংগ্রেস ও সিনেটে ডেমোক্রেটিক পার্টির ব্যাপক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই। নিজেদের সব আইনপ্রণেতাকেই প্রেসিডেন্ট বাইডেন ঐক্যবদ্ধ করতে পারবেন বলে মনে হচ্ছে না। প্রতিনিধি পরিষদে স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতৃত্বের সঙ্গে কথা বলে মার্কিন সংবাদমাধ্যম পলিটিকো এ-সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। পলিটিকো বলেছে, সমন্বিত অভিবাসন সংস্কার নিয়ে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের প্রস্তাবিত আইনের পক্ষে পর্যাপ্ত সমর্থন নেই। এর ফলে প্রতিনিধি পরিষদেই আইন প্রস্তাবটি থমকে দাঁড়াতে পারে। ফলেভবিষ্যতে কতোটা এফেক্টিভ হবে এ নিয়ে বাইডেন প্রশাসনই বিভক্ত। করোনার পর নতুন অজুহাত আসবে। ডেমোক্রেটিক পার্টির মধ্যপন্থীরা বলছেন, অভিবাসীদের কাজ দেওয়ার আগে যাচাই করার বিধি রাখতে হবে।উদারনৈতিক মহলের দাবি, ছোটখাটো অপরাধের রেকর্ড আছে, এমন ব্যক্তিদের যেন অভিবাসন-প্রক্রিয়া থেকে বাদ দেওয়া না হয়।
এসব নিয়ে ডেমোক্রেটিক পার্টির মধ্যেই এখন বিতর্ক চলছে। তবে এ বিতর্ক প্রকাশ্য নয়। এ মাসে মীমাংসা হওয়ার কথা। আইন সংসকারের আনুষ্ঠানিকভাবে। কই লক্ষণ দেখছি নাতো!

৯,বাইডেন মহামারীকালে এখনও ট্রাম্পের মতো প্রণোদনার খাত বিস্তৃত করেননি। আমেরিকায় করোনায় মৃত্যুও কমেনি। বেকারত্বও বাড়বে বলে মনে করছেন ওয়ার্ল্ড ​ইকোনোমিক ফোরামের স্পেশালিস্টরা।
১০,জো বাইডেন কতটা উপকারী হবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য তা তিনি ওবামার ভাইস প্রেসিডেন্ট থাকাকালেই দেখা গিয়েছে। তাই তাকে এই নির্বাচনে জয়ী করে প্রসিডেন্ট নির্বাচিত করা মানে পুরাতন ফ্লপ সিনেমা আবারো দেখার আয়োজন ছাড়া আর কিছুই নয়।
মার্কিন হাস্যরসাত্মক সিনেমা ‘গ্রাউন্ডহোগ ডে’ এর মতো ঘটনা খানিকটা। আমরা যেই সিনেমাটি দেখেছি ট্রাম্প আর হিলারি ক্লিন্টনের ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের লড়াইয়ের সময়। ওই একই সিনেমা ২০২০ সাল ডোনাল্ড ট্রাম্প আর জো বাইডেনের লাড়াইয়ের সময়ও চালানো হলে সেটি দেখতে নিশ্চয়ই ভালো লাগবে না। কিন্তু সেটিই করা হয়েছে। তাই এই সিনেমাটি দ্বিতীয়বার আপনার দেখতে ভালো লাগুক আর না লাগুক যেহেতু চালানো হয়েছে সেহেতু দেখতেই হচ্ছে। দেখতে থাকুক ধারাবাহিক।
আজ এটুকুই। অতএব আমেরিকা আমেরিকাই। যিনিই হোন প্রেসিডেন্ট আমাদের কিছু যায় আসে না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com