সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০৩:২২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

তরমুজের ফলন ভালো হলেও ক্ষতির মুখে ৩০% কৃষক

মাহমুদুল হাসান, পটুয়াখালী প্রতিনিধি

সর্বদক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের কোলঘেঁষে অবস্থিত পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলা। ুর্গম এ উপজেলায় তরমুজ চাষের বেশ পরিচিতি রয়েছে। যার ফলে দেশের বিভিন্ন তরমুজের আড়ৎ এ এখানকার তরমুজের বেশ চাহিা রয়েছে।
এবছর আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় তরমুজের ফলন ভালো হয়েছে। এতে চাষিদের মুখে হাষি ফুটলেও এখন ুশ্চিন্তায় রয়েছে তারা। কৃষি কর্মকর্তারা জানান, প্রতি হেক্টর জমিতে ৪০ মেট্রিকটন হারে তরমুজ উৎপান হয়েছে এরই মধ্যে প্রায় ৭০ ভাগ ক্ষেতের তরমুজ বিক্রি হয়েছে। করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের লকডাউনে কারণে তরমুজ নিয়ে আটকে গেছে উপজেলার শতকরা ৩০% কৃষক।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরে উপজেলার ৬ ইউনিয়নে সাড়ে ৫ হাজার চাষি ৭ হাজার ৬৩০ হেক্টর জমিতে তরমুজের আবাদ হয়েছে। যা গতবছরের তুলনায় ৭০ হেক্টর বেশি।
স্থানীয় কৃষকরা জানান, গত বছর লকডাউনের কারণে তরমুজ কমদামে বিক্রি হওয়ায় অনেক লোকসান গুনতে হয়েছে তাদের। অনেক চাষি তরমুজ বিক্রি করতে না পারায় ক্ষেতেই নষ্ট হয়েছে। এ বছর একই পরিস্থিতি দেখে ুশ্চিন্তায় পরে আছে তারা। লকডাউনের কারণে রাঙ্গাবালী উপজেলার তরমুজ ঢাকা, কুমিল্লা,গাজীপুর খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রপ্তানি বন্ধ হয়ে যাবে বলে ধারণা চাষিরে।

উপজেলার তরতুজ চাষি সুহিন বলেন, লগডাউনের কারণে তরমুজ নিয়ে ঢাকায় আশা যাওয়া করতে হলে দ্বিগুন খরচ হয়ে থাকে কারণ আমি লগডাউনের আগে ২ বার গিয়ে তরমুজ বিক্রি করেছি ট্রলার ও গাড়িতে যে খরচ হয়েছে এখন লগডাউনের কারণে দ্বিগুনের বেশি খচর হবে। আমার ক্ষেতে কিছু তরমুজ আছে তাই নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, তরমুজ আবাদে রাঙ্গাবালীর জমি উপযোগী। এ কারণে ফলন ভালো হওয়ায় চাষিদের তরমুজ চাষে আগ্রহ বাড়ছে। আমরা কৃষি প্তর থেকে তারেকে সার্বক্ষনিক সহায়তা দেয়ার জন্য চেস্টা করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com