রুশ সৈন্যদের গুলিতে ২৮ লাখ বেসামরিক জার্মান নিহত

সাহাদত হোসেন খান

বিজয়ী সোভিয়েত ইউনিয়ন পরাজিত জার্মানির বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর প্রতিশোধ গ্রহণ করে। নাৎসি জার্মানির মতো সোভিয়েত ইউনিয়নও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত। ১৯১৯ থেকে ১৯৯১ সাল নাগাদ সোভিয়েত সশস্ত্র বাহিনীর সংঘটিত যুদ্ধাপরাধের মধ্যে লাল ফৌজ, গুপ্তসংস্থা এনকেভিডি (সোভিয়েত কেজিবির পূর্বসূরি) এবং এ সংস্থার অভ্যন্তরীণ সৈন্যদের কার্যকলাপ অন্তর্ভুক্ত। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সোভিয়েত সরকারের লাল সন্ত্রাসের নীতির আওতায় প্রত্যক্ষ নির্দেশে এসব যুদ্ধাপরাধ সংঘটন করা হয়েছে। আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে সোভিয়েত ইউনিয়নের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত অথবা আক্রান্ত দেশগুলোর সামরিক বাহিনী ও বেসামরিক লোকদের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ গ্রহণে কোনো নির্দেশ ছাড়া নিয়মিত সৈন্যরা এসব অপরাধ করেছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে কিংবা যুদ্ধকালে উত্তর ও পূর্ব ইউরোপে এসব ঘটনার অধিকাংশ সংঘটিত হয়েছে। সোভিয়েত ইউনিয়নের যুদ্ধাপরাধের মধ্যে রয়েছে সংক্ষিপ্ত বিচারে যুদ্ধবন্দিদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর, কাতিন জঙ্গলে ম্যাসাকারের মতো ব্যাপক হত্যাযজ্ঞ এবং সোভিয়েত অধিকৃত ভূখন্ডে বেসামরিক লোকদের ওপর নির্যাতন। অসংখ্য প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে সোভিয়েত সশস্ত্র বাহিনীর ভাসিলি কনোনভের মতো মুষ্টিমেয় সদস্য ছাড়া আর কোরো বিচার করা হয়নি। তাদের কাউকে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ আদালত কিংবা সোভিয়েত অথবা রুশ ট্রাইব্যুনালে অভিযুক্ত করা হয়নি। তথাকথিত বিশ্ব সম্প্রদায়ের মানবিক মমত্ববোধ একতরফা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ইহুদী নিধন বা হলোকাস্টের জন্য অশ্রুপাত করা হলেও ইহুদী বিরোধী কোটি কোটি জার্মানের দুর্দশায় কারো দয়া হয়নি। ইতিহাস জার্মান হলোকাস্টকে যথাযোগ্যভাবে স্মরণ করে না। কোনো বিবেকবান মানুষের পক্ষে এ দ্বিমুখী আচরণ মেনে নেয়া সম্ভব নয়।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালে বেশ কয়েকবার সোভিয়েত সৈন্যরা ভবনের পর ভবন, গ্রামের পর গ্রাম এবং শহরের পর শহর জ্বালিয়ে দেয় এবং আগুন নেভানোর প্রচেষ্টাকারী স্থানীয় লোকদের বিরদ্ধে শক্তিপ্রয়োগ করে। জার আমলে রাশিয়া ১৮৯৯ এবং ১৯০৭ সালে স্বাক্ষরিত হেগ চুক্তিকে স্বীকৃতি দিয়েছিল। সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৫৫ সাল নাগাদ এ দু’টি চুক্তি মেনে নেয়নি। হেগ চুক্তিতে স্বাক্ষর না করায় সোভিয়েত সৈন্যদের যুদ্ধাপরাধ আমলে নেয়া সম্ভব হয়নি। সোভিয়েত ইউনিয়ন হেগ কনভেনশনে স্বাক্ষর না করায় সোভিয়েত যুদ্ধবন্দিদের সঙ্গে অমানবিক আচরণে নাৎসি জার্মানিকে থামানো যায়নি। পূর্ব জার্মানিতে দখলদারিত্বকালে স্থানীয় জার্মানদের বিরুদ্ধে লাল ফৌজের সহিংসতায় ডেমিনের মতো কয়েকটি শহরে মর্মান্তিক মানবিক বিপর্যয় ঘটে। ১৯৪৫ সালের বসন্তকালে সোভিয়েতরা এ ক্ষুদ্র শহর দখল করে নেয়। আত্মসমর্পণ করা সত্ত্বেও লুণ্ঠন, ধর্ষণ ও গুলিতে হত্যাকাণ্ড ঘটতে থাকায় আনুমানিক ৯ শো বেসামরিক লোক গণআত্মহত্যা করে। লাল ফৌজ কদাচিৎ প্রকাশ্যে ব্যাপকভাবে বেসামরিক লোক হত্যা করতো। কিন্তু ১৯৪৫ সালের পহেলা মে ট্রিউয়েনব্রাইৎজেন শহরে কমপক্ষে ৮৮ জনকে আটক করে গুলিতে হত্যা করা হয়। বিজয় উৎসবের পর এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। বিজয় উৎসবে ট্রিউয়েনব্রাইৎজেন শহরের অসংখ্য মেয়েকে ধর্ষণ করা হয়। এসময় অজ্ঞাতনামা এক বন্দুকধারীর গুলিতে লাল ফৌজের একজন লে. কর্নেল নিহত হন। কোনো কোনো সূত্র দাবি করছে যে, এ ঘটনায় অন্তত এক হাজার বেসামরিক লোকের মৃত্যুদ- কার্যকর করা হয়। বার্লিনের শারলটেনবার্গের তাঁবেদার মেয়র ওয়াল্টার কিলিয়ান তার এলাকায় লাল ফৌজের ব্যাপক লুটতরাজ সম্পর্কে মস্কোকে অবহিত করেন।

সোভিয়েত নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে কর্মরত এসইডির সদস্যরা স্টালিনকে জানায় যে, লাল ফৌজের লুণ্ঠন ও ধর্ষণে সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং পূর্ব জার্মানিতে সমাজতন্ত্রের ভবিষ্যতের প্রতি জার্মান জনগণের নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার জন্ম হতে পারে। স্টালিন ক্রুদ্ধ হয়ে তাৎক্ষণিক মন্তব্য করেন: ‘আমি কাউকে রেড আর্মির সম্মানকে ভূলুণ্ঠিত হতে দেবো না।’ তিনি এ হুমকি দেয়ায় ভবিষ্যত পূর্ব জার্মানির সকল মোহাফেজখানায় রক্ষিত লাল ফৌজের লুটতরাজ, ধর্ষণ, কৃষি খামার ও গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়ার সব প্রমাণ ধ্বংস করে ফেলা হয়। ১৯৮৯ সালে জার্মান সরকারের প্রকাশিত এক সমীক্ষায় বলা হয়, পূর্ব ইউরোপে ৬ লাখ ৩৫ হাজার বেসামরিক জার্মানের মৃত্যু হয়েছে। সোভিয়েত ইউনিয়নের যুুদ্ধাপরাধে নিহত হয়েছে ২ লাখ ৭০ হাজার এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষে জার্মানদের বহিষ্কারের সময় বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর আক্রমণে আরো এক লাখ ৬০ হাজার লোক মৃত্যুবরণ করে। এছাড়া ২ লাখ ৫ হাজার জার্মানের মৃত্যু হয়েছে সোভিয়েত ইউনিয়নের শ্রম শিবিরে। এ হিসাবের মধ্যে বার্লিন যুদ্ধে নিহত এক লাখ ২৫ হাজার বেসামরিক লোকের মৃত্যু অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। মানবাধিকার বিশেষজ্ঞ আলফ্রেড মরিস ডি জায়াস বলেছেন, ১৯৪৪-৪৫ সালে লাল ফৌজ ২০ লাখ ২০ হাজার জার্মানকে হত্যা করেছে। ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, সাম্প্রতিক গবেষণাগুলোর কোনোটাই পেশাদার অথবা রীতিমাফিক বিশ্বস্ত নয়। তাই তিনি জার্মানির ফেডারেল পরিসংখ্যান অফিসের জনসংখ্যাগত গবেষণার ওপর নির্ভর করার সুপারিশ করেছেন। ১৯৭৪ সালে জার্মান ফেডারেল মোহাফেজখানার এক গবেষণায় বলা হয়, গুলি, ধর্ষণ অথবা নির্যাতন চালিয়ে কমপক্ষে ৫ লাখকে সরাসরিভাবে হত্যা করা হয়। চরম বিশৃঙ্খল বহিষ্কারের প্রত্যক্ষ পরিণামে মৃত্যু হয় আরো ১৫ লাখ লোকের। এছাড়া আনুমানিক ২০ লাখ পূর্ব জার্মানকে সোভিয়েত ইউনিয়নের শ্রম শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয়। উরাল ও সাইবেরিয়ায় নেয়ার পথে, শ্রম শিবিরে অথবা প্রত্যাবর্তনকালে তাদের মধ্যে ৪০ শতাংশ লোকের মৃত্যু হয়। অগণিত লোকের মৃত্যু হলেও সোভিয়েত লেখক ইলিয়া এহরেনবার্গ সন্তুষ্ট হননি। তিনি ১৯৪৫ সালের ৩১ জানুয়ারি লিখেন: ‘জার্মানদেরকে ওপালান, কোনিসবার্গ ও ব্রেসলাউয়ে শাস্তি দেয়া হয়েছে। তবে তাদের শাস্তি যথেষ্ট নয়। কিছুসংখ্যক লোককে শাস্তি দেয়া হয়েছে। এখনো সবাইকে শাস্তি দেয়া হয়নি।

যুদ্ধবন্দি
সোভিয়েত গুপ্তচর সংস্থা এনকেভিডির পরিসংখ্যানে বলা হয়, সোভিয়েত সৈন্যরা ৩১ লাখ ২৭ হাজার ৩৮০ জন জার্মান যুদ্ধবন্দির নাম তালিকাভুক্ত করে। তাদের মধ্যে সোভিয়েত বন্দি শিবিরে ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৯৬৭ জন মৃত্যুবরণ করে। যুদ্ধবন্দিদের সোভিয়েত যুদ্ধকালীন বিধ্বস্ত অথনৈতিক পুনর্গঠনে শ্রম দাস হিসেবে ব্যবহার করা হয়। ১৯৫০-এর দশক পর্যন্ত অধিকাংশ বন্দিকে মুক্তি দেয়া হয়। ১৯৫৬ সালে সর্বশেষ জার্মান বন্দি সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে দেশে ফিরে আসে। সোভিয়েত রেকর্ড অনুযায়ী ৩ লাখ ৮১ হাজার ৬৭ জন জার্মান যুদ্ধবন্দি সোভিয়েত গুপ্তচর সংস্থা এনকেভিডি পরিচালিত শিবিরে মৃত্যুবরণ করে। জার্মান হিসাব মতে, সোভিয়েত হেফাজতে জার্মান যুদ্ধবন্দিদের মৃত্যুর সংখ্যা ১০ লাখ উল্লেখ করা হয়েছে। সোভিয়েত-জার্মান যুদ্ধের প্রথম মাসগুলোয় সোভিয়েত সৈন্যদের হাতে খুব সামান্য জার্মান সৈন্য বন্দি হয়। মস্কো যুদ্ধ এবং জার্মান সৈন্যদের পশ্চাদপসরণের পর ১৯৪২ সালের গোড়ার দিকে সোভিয়েত বন্দি শিবিরে জার্মানদের সংখ্যা এক লাখ ২০ হাজারে পৌঁছে। স্টালিনগ্রাদ লড়াইয়ে জার্মান ষষ্ঠ আর্মি সোভিয়েতদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। ৯১ হাজার জীবিত সৈন্য আত্মসমর্পণ করলে ১৯৪৩ সালের গোড়ার দিকে সোভিয়েত বন্দি শিবিরে জার্মান বন্দির সংখ্যা এক লাখ ৭০ হাজারে পৌঁছে। স্টালিনগ্রাদ দখল করার পরবর্তী মাসগুলোয় অপুষ্টি এবং শীতের উপযোগী পোশাক না থাকায় বহু জার্মান সৈন্য ঠাণ্ডায় মৃত্যুবরণ করে। যুদ্ধ শেষে তাদের মধ্যে মাত্র ৬ হাজার সৈন্য দেশে ফিরতে সক্ষম হয়। ১৯৪৩ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের অর্থনৈতিক পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি ঘটলে যুদ্ধবন্দি শিবিরে মৃত্যুর সংখ্যা নাটকীয়ভাবে বৃদ্ধি পায়। এসময় যুদ্ধবন্দিরা সোভিয়েত অর্থনীতিতে শ্রম শক্তির একটি বিরাট উৎসে পরিণত হয়। ন্যাশনাল কমিটি ফর জার্মানি এবং লীগ অব জার্মান অফিসার্স গঠন করা হলে কমিউনিস্টপন্থী যুদ্ধবন্দিরা অধিক সুযোগ সুবিধা এবং রেশন লাভ করে। ‘অপারেশন ব্যাগ্রেশন’ এবং পূর্ব রণাঙ্গনের দক্ষিণাঞ্চলের পতন ঘটলে ১৯৪৪ সালের দ্বিতীয়ার্ধে জার্মান যুদ্ধবন্দিদের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যায়। ১৯৪৫ সালের প্রথম মাসগুলোয় রেড আর্মি ওডার নদী এবং বলকান অঞ্চলে অগ্রযাত্রা করলে যুদ্ধ চূড়ান্ত পরিণতির দিকে এগিয়ে যায়।

১৯৪৫ সালের এপ্রিলে যুুদ্ধবন্দির সংখ্যা ২০ লাখে পৌঁছে। সোভিয়েত হিসাব মতে, যুদ্ধ শেষে সোভিয়েত ইউনিয়নের হাতে বন্দি জার্মান সৈন্য সংখ্যা ছিল ২৮ লাখ। ১৯৪৬ সালের শেষ নাগাদ বিপুল সংখ্যক জার্মান যুদ্ধবন্দিকে মুক্তি দেয়া হয়। এসময় সোভিয়েত ইউনিয়নের হাতে বন্দি জার্মানদের সংখ্যা ছিল যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের চেয়ে কম। জার্মানিতে সোভিয়েত অধিকৃত অঞ্চলে (পূর্ব জার্মান প্রজাতন্ত্র) সোভিয়েতপন্থী একটি জার্মান রাষ্ট্র গঠন করা হলে ১৯৪৯ সালের অক্টোবরে ৮৫ হাজার ছাড়া সকল যুদ্ধবন্দিকে মুক্তি দেয়া হয়। বন্দিদের অধিকাংশকে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে অভিযুক্ত করা হয় এবং দীর্ঘমেয়াদী শাস্তি ভোগে শ্রম শিবিরে পাঠানো হয়। শাস্তির সময়সীমা ছিল সাধারণত ২৫ বছর। পশ্চিম জার্মান চ্যান্সেলর কনরাড এডিনিউয়ারের হস্তক্ষেপে ১৯৫৬ সাল নাগাদ বাদবাকিদের প্রত্যাবাসন করা হয়। ব্রিটিশ ঐতিহাসিক রিচার্ড ওভেরির হিসাব মতে, ২৮ লাখ ৮০ হাজার জার্মান যুদ্ধবন্দির মধ্যে ৩ লাখ ৫৬ হাজার সোভিয়েত শ্রম শিবিরে মৃত্যুবরণ করে। পুলিৎজার পুরস্কার বিজয়ী পোলিশ-আমেরিকান সাংবাদিক এনি এলিজাবেথ এপেলবাউমের মতে, সোভিয়েত হেফাজতে ৫ লাখ ৭০ হাজার জার্মান সৈন্যের মৃত্যু হয় এবং প্রকৃত সংখ্যা অনেক বেশি হতে পারে। তিনি বলেন, ১৯৪৩ সালের প্রথম মাসগুলোতে বন্দিদের মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ৬০ শতাংশ। জার্মান বন্দি শিবিরেও সোভিয়েত সৈন্যদের মৃত্যুর হার ছিল অনুরূপ। সাবেক পশ্চিম জার্মান কমিশনের এক হিসাবে বলা হয়, ১৯৪১ থেকে ১৯৫২ সালের মধ্যে সোভিয়েত বন্দি শিবিরে প্রায় ১০ লাখ জার্মান বন্দির মৃত্যু হয়। ঐতিহাসিক এডওয়ার্ড পিটারসনের মতে, যুক্তরাষ্ট্র বন্ধুত্বের নিদর্শনস্বরূপ ১৯৪৫ সালের মে’তে কয়েক লাখ বন্দি জার্মান সৈন্যকে সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছে হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত নেয়।
সবচেয়ে বেশি জার্মান বন্দির মৃত্যু হয় সোভিয়েত হেফাজতে। যুদ্ধ শেষ হওয়ার ৫ বছর পরও সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছে হাজার হাজার জার্মান সৈন্য বন্দি ছিল। যুগোশ্লাভিয়া, পোল্যান্ড ও আরো কয়েকটি দেশে বন্দি অন্যান্য জার্মান সৈন্য নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। শুধুমাত্র যুগোশ্লাভিয়ায় কমিউনিস্ট সরকার কমপক্ষে ৮০ হাজার জার্মান সৈন্যকে হত্যা করে। ১৯৪৫ সালের গোড়ার দিকে ইয়াল্টা সম্মেলনে তিনটি বৃহৎ শক্তির নেতৃবৃন্দ একমত হন যে, সোভিয়েতরা জার্মানদের শ্রম শিবিরে দাস হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে। হিসাব করে দেখা গেছে যে, ৮ লাখ ৭৪ হাজার বেসামরিক জার্মানকে সোভিয়েত ইউনিয়নে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া হয়।

ঐতিহাসিক নিয়াল ফারগুসান বলেছেন: ‘এটা সুস্পষ্ট যে, বহু জার্মান ইউনিট মিত্রবাহিনীর অন্য শরীক বিশেষ করে রেড আর্মির পরিবর্তে আমেরিকানদের কাছে আত্মসমর্পণে আগ্রহী ছিল।’ জার্মান আইনজীবী, মানবাধিকার কর্মী ও লেখক হেইঞ্জ নাউরাটিল বলেছেন, মার্কিন বাহিনী স্যাক্সনি ও বোহেমিয়ায় আত্মসমর্পণকারী জার্মান সৈন্যদের নিজেদের হেফাজতে রাখার পরিবর্তে তাদেরকে সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছে হস্তান্তর করে। পাশ্চাত্যের বন্দি শিবির থেকে হাজার হাজার বন্দিকে সোভিয়েত কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়। ৬ হাজার জার্মান অফিসারকে সাচেনহাউসেন বন্দি শিবিরে পাঠানো হয়। সে সময় এ বন্দি শিবির ছিল সোভিয়েত গুপ্তচর সংস্থা এনকেভিডি পরিচালিত একটি বিশেষ শিবির। সাচেনহাউসেন থেকে বহু বন্দিকে সাইবেরিয়ায় নির্বাসনে পাঠানো হয়। পশ্চিম জার্মান সরকার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মান যুদ্ধবন্দিদের ভাগ্য তদন্তে মাসচকি নামে পরিচিত একটি বৈজ্ঞানিক কমিশন গঠন করে। কমিশন ১৬ বছর বিভিন্ন দেশে খোঁজ খবর নেয় এবং ২২টি বইয়ে তাদের রিপোর্ট প্রকাশ করে। কমিশন ৬টি কুখ্যাত বন্দি শিবিরে আটক ৫ লাখ ৬০ হাজার বন্দির ভাগ্য নিয়ে গবেষণা চালায়। বিশ্বে ¯œায়ুযুদ্ধ বিরাজ করায় মিত্রপক্ষের বহু ত্র“টি চেপে যাওয়া হয়। ১৯৭৪ সালে কমিশন দেখতে পায় যে, সোভিয়েত বন্দি শিবিরে মৃত্যুবরণকারী ১২ লাখ জার্মান সৈন্যকে নিখোঁজ হিসেবে দেখানো হয়েছে। জার্মান ঐতিহাসিক রুডিগার অভারম্যান্স সোভিয়েত বন্দি শিবিরে মৃত্যুবরণকারী জার্মান যুদ্ধবন্দিদের সংখ্যা ১০ লাখ উল্লেখ করেছেন। গবেষণার ভিত্তিতে অভারম্যান্স বিশ্বাস করেন যে, ডয়েসচি ডিয়েন্সটালির (ওয়াস্ট) নথিপত্রে সোভিয়েত বন্দিদশায় ৩ লাখ ৬৩ হাজার যুুদ্ধবন্দির মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়েছে। তিনি বলেন, মনে হচ্ছে নিখোঁজ হিসেবে তালিকাভুক্ত ৭ লাখ জার্মান সৈন্যের সোভিয়েত হেফাজতে মৃত্যু হয়েছে। জার্মান রেডক্রসের হিসাব মতে, ১৩ লাখ জার্মান সৈন্যকে এখনো সরকারিভাবে নিখোঁজ হিসেবে দেখানো হচ্ছে। তাদের অধিকাংশের মৃত্যু হয়েছে যুদ্ধবন্দি হিসেবে। সোভিয়েত ইউনিয়নের হাতে বন্দি জার্মান সৈন্যদের তালিকা: ১৯৪১ সালে বন্দি হয় ২৬ হাজার, ১৯৪২ সালে সাড়ে চার লাখ, ১৯৪৩ সালে ৭ লাখ ২০ হাজার, ১৯৪৪ সালে ১৭ লাখ ৩০ হাজার, ১৯৪৫ সালে ৭ লাখ ৪০ হাজার, ১৯৪৬ সালে ১১ লাখ, ১৯৪৭ সালে ৮ লাখ ৪০ হাজার, ১৯৪৮ সালে ৫ লাখ, ১৯৪৯ সালে ৮৫ হাজার এবং ১৯৫০ সালে ২৯ হাজার।

প্রিজোসিভিচকা বা জাব্রোনিয়া হত্যাযজ্ঞ
লাল ফৌজ ১৯৪৫ সালের ২৬ থেকে ২৮ জানুয়ারি আপার সাইলেসিয়ার পোলিশ গ্রাম প্রিজোসিভিচকায় বেসামরিক লোক হত্যা করে। নিহতদের সংখ্যা নিয়ে মতপার্থক্য রয়েছে। তাদের সংখ্যা ৫৪-৬০ জন অথবা ৬৯ জনও হতে পারে। তদন্তকালে রুশ ফেডারেশনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সরবরাহকৃত বিভিন্ন দলিলপত্র পরীক্ষা করা হয়। তবে সোভিয়েত সশস্ত্র বাহিনীর কোন ইউনিট এ হত্যাযজ্ঞ চালায় এবং এ হত্যাযজ্ঞের জন্য দায়ী কারা তা নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। তদন্তের ফলাফল প্রকাশ করার সময় পোলিশ গবেষণা সংস্থা ইন্সটিটিউট অব ন্যাশনাল রিমেমব্র্যান্স এ হত্যাযজ্ঞকে মানবতার বিরুদ্ধে একটি অপরাধ হিসাবে ঘোষণা করে।
১৯৪৫ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের জানুয়ারি অভিযান শুরু হওয়ার পর লাল ফৌজ ভিশ্চুলা নদীর প্রতিরক্ষা লাইন ভেঙ্গে অধিকৃত পোল্যান্ডের জার্মান ভূখণ্ডে প্রবেশ করে। জানুয়ারির শেষদিকে ছড়ানো ছিটানো জার্মান সৈন্যদের ওডার নদীর প্রতিরক্ষা লাইনে প্রত্যাহার করা হয়। এ প্রতিরক্ষা লাইন ছিল যুদ্ধ-পূর্ব জার্মান ভূখণ্ড। কয়েকটি জার্মান ইউনিটকে পোল্যান্ড-জার্মান সীমান্তে আপার সাইলেসীয় অঞ্চলে কৌশলগত পাল্টা হামলার জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দেয়া হয়। ২৩ জানুয়ারি সোভিয়েত সৈন্যরা এ অঞ্চলের বৃহত্তম শিল্প কেন্দ্র গালিভিৎস শহর দখল করে নেয়। পরদিন জার্মানরা পাল্টা হামলা চালালে সেখানে তিনদিনব্যাপী লড়াই বেধে যায়। ২৬ জানুয়ারি বিজয়ী রুশরা পোল্যান্ড-জার্মান সীমান্তের শেষ পোলিশ গ্রাম প্রিজোসিভিচকায় প্রবেশ করে। পরবর্তী দু’দিন স্থানীয় বাসিন্দাদের ওপর হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়। সোভিয়েত সৈন্যরা কয়েক ডজন বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে এবং আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টায় নিয়োজিত বেসামরিক লোকদের ওপর গুলিবর্ষণ করে। এতে ৬০ জনের বেশি লোক নিহত হয়।

পোলিশ দৈনিকগুলোর খবরে নিহতের সংখ্যা ৬৯ বলে উল্লেখ করা হয়। ১০ দিনের শিশু থেকে ৭৮ বছর বয়স্ক বৃদ্ধও হত্যাযজ্ঞের শিকার হয়। নিহতদের অধিকাংশই ছিল প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ। তাদের মধ্যে দু’জন ছিল অসউয়িজ বন্দি শিবিরের বাসিন্দা। এ দু’জন আগের দিন পালিয়ে এসেছিল। তাদের একজন ছিল ইতালীয় এবং আরেকজন হাঙ্গেরীয়। বাদবাকিরা ছিল বেসামরিক পোলিশ নাগরিক। তাদের মধ্যে পোলিশ সেনাবাহিনীর দু’জন সৈন্যও ছিল। এ দু’জনকে সোভিয়েত বন্দি শিবির থেকে মুক্তি দেয়া হয়েছিল। পোলিশ গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, গণহত্যা ছাড়াও সোভিয়েত সৈন্যরা গ্রাম লুট করে এবং অজ্ঞাতসংখ্যক মহিলাকে ধর্ষণ করে। এ হত্যাযজ্ঞের কারণ অজ্ঞাত। কোনো কোনো লেখক বিশ্বাস করছেন, সংশ্লিষ্ট এলাকায় জার্মান সৈন্যদের সঙ্গে সংঘর্ষে বহু রুশ সৈন্য নিহত হওয়ার প্রতিশোধ গ্রহণে এ হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়। প্রিজোসিভিচকায় সংঘর্ষে ১০১ জন রুশ সৈন্য হতাহত এবং ৪০টি ট্যাঙ্ক ধ্বংস হয়। সোভিয়েত সৈন্যরা ভুলক্রমে মনে করতো, তারা তখনো পোল্যান্ডের ভূখণ্ডে অবস্থান করছে এবং অবশেষে নাৎসি জার্মান ভূখ-ে প্রবেশ করতে যাচ্ছে। হত্যাযজ্ঞের পর নিহতদের স্থানীয় একটি গোরস্থানে গণকবর দেয়া হয়। পোল্যান্ডে ১৯৮৯ সালে কমিউনিস্ট শাসন নাগাদ এ হত্যাযজ্ঞ ধামাচাপা দিয়ে রাখা হয়। ২০০৫ সালে হত্যাযজ্ঞের ৬০তম বার্ষিকীতে গোরস্তানে একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়। লেগনিসার বিশপ স্টিফান সিচাই স্মরণসভা পরিচালনা করেন। তিনি হলেন হত্যাযজ্ঞের একজন প্রত্যক্ষদর্শী এবং নিহতদের একজন আত্মীয়।

জার্মানদের প্রতি নৃশংসতার কয়েকটি দৃষ্টান্ত
জার্মানির পূর্ব বাদেনের এলান জেলার কেন্দ্রস্থল থেকে ১০ কিলোমিটার পূর্বদিকে ছোট্ট গ্রাম লিপাচ ১৯৪৫ সালে যুদ্ধের শেষ দিনগুলোতে সংঘটিত কয়েকটি নির্মম ঘটনার সাক্ষী। পশ্চাদপসরণকারী জার্মান সৈন্যরা অল্প সময়ের জন্য এ গ্রামে অবস্থান গ্রহণ করে। তারপর দক্ষিণ দিকে অগ্রসর হয়। ২১ এপ্রিল এসএস ইউনিটের ৩০০ সৈন্যের শেষ রিয়ারগার্ড এ গ্রামের উপকণ্ঠ এবং আশপাশে আত্মরক্ষামূলক অবস্থান নেয়। এসব জার্মান সৈন্যের বয়স ছিল ১৬ থেকে ১৮ বছর। ২২ এপ্রিল রোববার উত্তরদিক থেকে আমেরিকান ট্যাঙ্ক এগিয়ে এসে এ গ্রামে গোলাবর্ষণ শুরু করে। শক্তিশালী ট্যাঙ্কের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ নিষ্ফল ভেবে জার্মান সৈন্যরা দক্ষিণ দিকে পিছু হটে। একজন ঐতিহাসিক বলেছেন, পিছু হটার সময় ৩৬ জন সৈন্যের ‘পতন’ ঘটে। পরবর্তী সাক্ষ্য প্রমাণে দেখা গেছে, আমেরিকান সৈন্যরা অধিকাংশ জার্মান সৈন্যকে হত্যা করে। তাই ‘পতন’ শব্দটি ঘটনার সত্যিকার চিত্র বহন করে না।
লিপাচের প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, আনুমানিক দুপুর ১টায় আমেরিকানরা গ্রামে প্রবেশ করার সময় সব জার্মান সৈন্য পিছু হটার সুযোগ পায়নি। কোনো কোনো সৈন্য বাগানের মধ্য দিয়ে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে। তবে সফল হয় মাত্র কয়েকজন। পালানোর সময় তাদের একজনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। অন্যজনকে বন্দি করা হয়। গ্রামবাসীরা পরবর্তী ঘটনাবলী প্রত্যক্ষ করেছে। তারা জানায়, বন্দি সৈন্যকে নিষ্ঠুরভাবে প্রহার করা হলে সে কয়েকবার মূর্ছা যায়। সৈন্যটি উঠে দাঁড়াতে না পারায় রাইফেলের বাট দিয়ে তার মাথা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়। পরে তার বুকে শটগান দিয়ে গুলি করা হয়। গুলি তার শরীর ভেদ করে মাটিতে বিদ্ধ হয়। সন্ধ্যা ৬ টায় ২০ থেকে ২৫ জন মদ্যপ কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান সৈন্য ৬ জন তরুণ জার্মান সৈন্যকে চিৎকার করে ধাওয়া করে। তাদেরকে গ্রামের মধ্য দিয়ে একটি সমাধিস্থলের দিকে ধাওয়া করা হয়। তাদেরকে রাস্তার পাশে খাদে তাড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। খাদ থেকে বহু কষ্টে রক্তাক্ত ও ক্ষত-বিক্ষত অবস্থায় এসব সৈন্য উঠে আসে। আমেরিকান সৈন্যরা শূন্যে গুলি ছুঁড়ে এবং ৬ জন জার্মান সৈন্যের মস্তক চূর্ণ করে দেয়। পরদিন নিহতদের লাশ উদ্ধার করা হয়। তাদের প্রত্যেকের মস্তক চূর্ণ হলেও শটগানের গুলির কোনো ক্ষত চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যায়নি।

মাতাল কৃষ্ণাঙ্গ সৈন্যরা অন্য দু’জন বন্দি জার্মান সৈন্যকে একজন কৃষকের মালিকানাধীন ৫১ নম্বর বাড়ির একটি গোলাঘরে নিয়ে যায়। তাদেরকে জীবিত দু’ভাগ করে ফেলার জন্য একটি বৃত্তাকার করাত কলের টেবিলে বসানো হয়। বৈদ্যুতিক গোলাযোগ দেখা দিলে তারা এ কাজে সফল হয়নি। মাতাল আমেরিকান সৈন্যরা এ দু’জন জার্মান সৈন্যকে গুলিতে ঝাঁঝরা করে ফেলে। তাদের একজন কয়েক ঘণ্টা পর মৃত্যুবরণ করে। অন্যজনকে মৃত ভেবে ভবনের পেছনে ছুঁড়ে ফেলে দেয়া হয়। সেখানে তাকে কয়েক ঘণ্টা পর খুঁজে পাওয়া যায়। তার শরীরে ছিল শটগানের অসংখ্য গুলির ক্ষত। তার ক্ষতস্থান সেলাই করা হয়। লিপাচের একজন মহিলা প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, পরদিন একজন কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান অফিসার গুরুতর আহত জার্মান সৈন্যকে একটি হাসপাতালে পাঠান। সন্ধ্যা নাগাদ উল্লেখিত অফিসার এবং মুষ্টিমেয় সৈন্য ছাড়া বাদবাকি আমেরিকান সৈন্যরা গ্রাম ছেড়ে চলে যায়। এ অফিসার নিহতদের লাশ একত্রিত করে সমাহিত করেন। মেষ চড়ানোর মাঠে আরো ১০ জন জার্মান সৈন্যের লাশ পাওয়া যায়। নিরস্ত্র এসব সৈন্যকে মাথায় গুলি করে হত্যা করা হয়। গ্রামের প্রবেশমুখে বালদারেন রাস্তার পাশে একটি মাঠে আরো ৬ জন নিরস্ত্র জার্মান সৈন্যের লাশ পাওয়া যায়। বেশদূরে প্রতিরক্ষা অবস্থানে তাদের অস্ত্র ছিল অক্ষত। পেছন থেকে তাদের গুলি করা হয়।

২২ এপ্রিল একইদিন মার্কিন সৈন্যরা ১৭ থেকে ৪০ বছর বয়সের অন্তত ২০ জন মহিলাকে ধর্ষণ করে। ধর্ষিতাদের কয়েকজন ছিল অন্তঃসত্ত্বা। ৩৬ জন জার্মান সৈন্যের নির্মম হত্যাকাণ্ড এবং এসব মহিলাকে ধর্ষণ করার উপাখ্যান কয়েক দশক পর্যন্ত চাপা ছিল। ইউরোপে ইউএস-পার্সিং ইউনিটের কমান্ডার জেনারেল হ্যাডক এ হৃদয়বিদারক ঘটনা শুনতে পান। এ নিয়ে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে গবেষণা চালান এবং অকাট্য প্রমাণ পান। অপরাধ প্রমাণিত হওয়া সত্ত্বেও মার্কিন সৈন্যদের বিরুদ্ধে কোনো আদালতে মামলা দায়ের করা হয়নি। অবশেষে ১৯৮৬ সালে জেনারেল হ্যাডক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং ১৯৪৫ সালের অনাকাঙ্খিত ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন। তার সফর নিয়ে ১৬ আগস্ট ফ্রাঙ্কফুর্টার রান্ডচাউয়ে ‘পার্সিং জেনারেল হ্যাডক ভিজিটস ম্যাসাকার গ্রেভ’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।
(লেখাটি আমার ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে বিজয়ীদের যুদ্ধাপরাধ’ শিরোনামে বই থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করেছে রাবেয়া বুকস)।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.