মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ০১:১০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

রামগড় (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি:

জেলার রামগড়ে পাহাড়াঞ্চল কৃষি গবেষনা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড.এসএম ফয়সাল অশ্রু’র বিরুদ্ধে নিয়মিত অফিস না করা, সেচ্ছাচারিতা, ভুয়া বিল ভাউচার দেখিয়ে সরকারি টাকা আত্মসাৎ এবং টেন্ডারের টাকা সরকারি কোষাগারে জমা না করে নিজের পকেটে রাখা সহ নানান দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগের বিষয়গুলোর সত্যতা নিশ্চিত করেন বর্তমান কর্মস্থল রামগড় ও সাবেক কর্মস্থল পাহাড়তলী কৃষি গবেষণা কেন্দ্র চট্রগ্রাম এবং আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্র হাটহাজারীর কর্মকর্তা কর্মচারী ও শ্রমিকবৃন্দ। ইতিমধ্যে তার বিরুদ্ধে কৃষি মন্ত্রী ও বারি’র মহাপরিচালক বরাবরে লিখিত অভিযোগের কারনে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটিও গঠিত হয়েছে।

রামগড় পাহাড়াঞ্চল কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে গত ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ সালে ড.এস এম ফয়সাল যোগদানের পর থেকেই সরকারি নিয়মকানুনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে নিজের রচিত আইন দিয়ে অফিস চালাচ্ছেন। সরকারি গাড়ি ব্যাক্তিগত কাজে ব্যবহারে কোন নিয়ম না থাকলেও ড.ফয়সাল অফিসের গাড়ি চট্রগ্রাম নিয়ে দিনের পর দিন রেখে ব্যাক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন। নিজের জন্য আবাসিক কোয়ার্টার থাকলেও ভাড়া পরিশোধ না করে গবেষনা কেন্দ্রের গেষ্ট হাউজের একটি ডাবল রুম তুলনামূলক কম ভাড়া দিয়ে ব্যবহার করছেন। গেষ্টরুমে নিজে থাকার কারনে বহিরাগত সরকারী-বেসরকারী গেষ্টদের প্রবেশাধীকারে একপ্রকার নিশেধাজ্ঞা জারি করেন। সরকারি অনুমতি ছাড়াই অন্যান্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাদের মৌখিক নির্দেশ দিয়ে গবেষনার নামে কেন্দ্রের বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কেঁটে শ্রমিকদের মাঝে নামমূল্যে বিক্রি করে দেন। সরকারী নির্দেশনা নামমাত্র পালনের উদ্দেশ্যে কৃষক প্রশিক্ষণে প্রকৃত কৃষককে বাদ দিয়ে গবেষনা কেন্দ্রের সামনের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক ও কর্মচারী দিয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা সমাপ্ত করেন। এছাড়াও অফিস সহকারীকে ম্যানেজ করে ছুঁটি ছাড়াই সপ্তাহে দুইদিন অফিস করেন। প্রায়সময়ই সরকারী কাজের অযুহাত দেখিয়ে চট্রগ্রাম নাছিরাবাদে নিজের কাজে ব্যস্ত থাকেন প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা। শ্রমিক ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের সাথেও তার সম্পর্ক ভাল ছিলনা। বিভিন্ন অজুহাতে তাদের শোকজ ও বরখাস্ত করে থাকেন। সর্বশেষ গবেষণার গেষ্ট হাউজের কেয়ারটেকার সফিককে কোন কারন ছাড়াই ব্যাক্তিগত আক্রোশে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেন ড.ফয়সাল। শ্রমিকদের মাঝে সবসময় আতঙ্ক কাজ করে বিধায় একে অন্যের সাথে কথা বলা পর্যন্ত বন্ধ করে দিয়েছেন। ড. ফয়সালের অনিয়ম দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিককে পুলিশ দিয়ে হয়রানি করার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

নতুন নতুন গবেষনা উদঘাটনের কারনে কৃষি বিভাগে রামগড়ের কেন্দ্রটি ইতিমধ্যে সুনাম কুড়ালেও ড. ফয়সাল যোগদানের পর থেকে গবেষনা কাজ মুখ থুবড়ে পড়েছে। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরটি।

রামগড় গবেষণা কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড.আবদুস সালাম বলেন, প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড.ফয়সাল অফিশিয়াল অনেক অনিয়মের সাথে জড়িত রয়েছেন। এসব বিষয়ে একটি তদন্ত প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

রামগড় ছাড়াও মহাপরিচালক বরাবর দেওয়া লিখিত অভিযোগে জানা গেছে ড. ফয়সাল কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের পাহাড়াতলী খুলশী চট্টগ্রামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা থাকাকালীন ২০১৫-১৬ অর্থবছরে রাজস্ব খাতের ১ম ত্রৈমাসিক বাজেটের নিবারন খাতে ১.৫ লক্ষ টাকা, সংরক্ষণ খাতে ০.০ ৩ লক্ষ টাকা, মেরামত সংরক্ষণ খাতে ০.৪৫ লক্ষ টাকা ও স্টেশনারী ক্রয় খাতে ০.৪৫ লক্ষ টাকা ভুয়া ভাউচার করে আত্মসাৎ করেন এবং খামারে উৎপাদিত ২৩৮টি নারিকেল গাছের ডাব উন্মূক্ত নিলামের ২,৫১,৫০০ (দুই লক্ষ একান্ন হাজার পাঁচ শত টাকা) সরকারি কোষাগারে জমা না করে সব টাকা আত্মসাৎ করেন, গবেষনার সরকারি বাসার জন্য ৭০হাজার টাকা দিয়ে পর্দা কিনে তা আবার বদলীকৃত জায়গায় যাওয়ার সময় নিয়ে গেছেন।

বিশ্বোস্ত সুত্রে জানা গেছে হাটহাজারীতে থাকা অবস্থায় ড. ফয়সাল কর্মস্থলে নিয়মিত অফিস করতেন না। সেখান থেকে পাহাড়তলীতে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হলে তিনি ৩০/১২/১৪ইং তারিখে পাহাড়াতলীতে যোগদান করেন এবং ১১মাস ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দায়িত্বকালীন সময়ে তার অনিয়ম, দুর্নীতি, কু-প্রস্তাব আর খারাপ ব্যবহারে অতিষ্ঠ হয়ে সহকারী বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হৈমন্তী বড়ুয়া (এসও) এবং হাফিজুর রহমান ডিজি (বারি) কে লিখিতভাবে বিষয়টি অবহিত করেন।

ঘটনার সত্যতার বিষয়ে হৈমন্তী বড়ুয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি মুঠোফোনে জানান, ড.এসএম ফয়সাল এমন একজন ব্যাক্তি যেকিনা মানুষের সাথে ভাল আচরণ করতে জানেনা। সবসময় অন্যের সমালোচনায় ব্যস্ত থাকেন। তার সাথে অফিশিয়াল বিষয়ে আমার একটু সমস্যা ছিল, আমি বিষয়টি ডিজি মহোদয়কে অবহিত করেছি। পরে ড.মদন গোপাল সাহার নেতৃত্বে ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠনের মাধ্যমে দাপ্তরিক আইনে তা সমাধান করা হয় এবং তাকে হাটহাজারীতে বদলি করা হয়।

হাটহাজারী কেন্দ্রের সাবেক কর্মকর্তা ড. মো: আমিন বলেন, ড.ফয়সাল এমন এক ব্যাক্তি যার বাংলাদেশের কোন কৃষি গবেষণায় বৈজ্ঞানিক হিসেবে কাজ করার যোগ্যতা নেই। বিএআরআই কর্তৃপক্ষ কিভাবে তাকে ইনচার্জের দায়িত্ব দিয়েছে তা আমার বোধগম্য নয়। তিনি আরো জানান, ড.ফয়সাল যে কেন্দ্রে যাবে সেটাই শেষ হয়ে যাবে। এক কথাই বলবো ড.ফয়সাল কৃষি গবেষণার কলংজনক একজন অফিসার। হৈমন্তী বড়ুয়ার সঙ্গে তার সমস্যা ছিল তা তদন্তে পাওয়া গেছে। তার বিরুদ্ধে অনেক অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। ড.ফয়সাল আমার অধিনে চাকরি করার সময়ও সে নিয়মিত অফিস করতেন না এবং অফিসের নিয়মকানুন মানতেন না। আমি মনে করি গবেষণার দায়িত্ব থেকে তাকে দুরে রাখলে প্রতিষ্ঠানের ভাল হবে, না হলে তাকে যেখানে দায়িত্ব দেওয়া হবে সেখানের কেন্দ্রটি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

পাহাড়াতলী কৃষি গবেষণার শ্রমিক সেক্রেটারি মো: হারুন বলেন ড.ফয়সালের সাথে শ্রমিকদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সমস্যা হয়েছিল, শ্রমিকরা তার বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়াতে পরে তিনি শ্রমিকদের কাছে ভুল স্বীকার করেন।

আনীত বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগকে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন দাবী করে রামগড় পাহাড়াঞ্চল কৃষি গবেষনা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এসএম ফয়সাল বলেন, আমি এবিষয়ে আর কিছু বলতে চাইনা।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষনা ইনষ্টিটিউট এর মহাপরিচালক ড. মো. নাজিরুল ইসলাম বলেন, এসব অভিযোগ সম্পর্কে অবগত আছি। পার্বত্য এলাকা হওয়ায় সবসময় তদারকি করা সম্ভব হয়না। এ বিষয়ে ফল বিভাগ উদ্যানতত্ত্ব গবেষনা কেন্দ্র বারি’র মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. বাবুল চন্দ্র সরকারের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com