রবিবার, ১৩ Jun ২০২১, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
সড়ক ও বিদ্যুৎ এর দায় কে নেবে? সড়কের মাঝখানে খুঁটি রেখেই চলছে সংস্কার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষ্যে চবি প্রাক্তন ছাত্রলীগ ঐক্যের দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে আমৃত্যু সংগ্রাম করেছেন বীর চট্টলার সাহসী কন্যা কবরী -শোক সভায় এম এ সালাম কল্পনা চাকমার অপহরণ বাংলাদেশ রাষ্ট্রের চরম লজ্জ্বার’ কোম্পানীগঞ্জে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বাদলের উপর হালার প্রতিবাদে ৪৮ ঘন্টার অবরোধ অবশেষে গাইবান্ধা সদর থানার ওসির বদলি শরণখোলায় সাউথখালী ইউনিয়নের মানুষের চরম দুর্ভোগে কাটে বছরের অর্ধেক সময় কোভিড পরবর্তী সস্তা শ্রমের কারণে শিশুশ্রম বাড়তে পারে মাগুরার শ্রীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১ আহত-৩ আনোয়ারায় পুকুরে ডুবে দুই দিনে দুই শিশুর মৃত্যু

চার নং আপার কাগাবলা ইউপি নির্বাচনী হাওয়া। আলোচনার শীর্ষে ফারুক আহমেদ

ইউনিয়ন নির্বাচন হালচাল, আজ দ্বিতীয় পর্ব

ঘনিয়ে আসছে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন। অত্র উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নের মধ্যে এই ইউনিয়নটি গুরুত্বপূর্ণ। এ বছরের জুন, জুলাইয়ের শেষার্ধে উপজেলার সকল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন শুরু হতে পারে বলে অনেকেই ধারনা পোষন করছেন। এ প্রসঙ্গে ইতোমধ্যে নির্বাচনের উপযোগী ইউনিয়ন পরিষদের তালিকা চেয়ে জেলা প্রশাসকদের চিঠি দিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিভাগ। সে প্রেক্ষিতে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনী আগাম আমেজ। সেই ধারাবাহিকতায় চার নং আপার কাগাবলা ইউনিয়ন নির্বাচনে প্রার্থীদের নিয়ে চায়ের দোকানের ধুয়া ক্রমেই বাড়ছে সে সংগে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ। অলসতাকে সরিয়ে নড়েচড়ে উঠছেন আপার কাগাবলা ইউনিয়ন এর সম্ভাব্য চেয়ারম্যান ও সদস্য পদের প্রার্থীরা। এরই মধ্যে অনেকেই আগাম প্রচার প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন। ভোটারদের বাড়ি বাড়ি অনেকেই কুশল বিনিময়ও করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও প্রচার-প্রচারণা সমানতালে চলছে।

নির্বাচন কমিশনের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, মৌলভীবাজার সদর উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে ১২টি। এখনও নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা না হলেও ইতিমধ্যে নির্বাচন ঘিরে ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে প্রার্থীদের ব্যাপক দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। নির্বাচন কমিশন সুত্রে জানা যায় আগামী ২জুন এই সমস্ত ইউনিয়নের তফসিল ঘোষণা হবে। সরেজমিনে দেখা গেছে, নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থীদের কেউ কেউ এলাকার ভোটারদের মাঝে দিচ্ছেন আগাম প্রতিশ্রুতি। এছাড়াও নানা রকম
কৌশল অবলম্বন করে ভোটের মাঠ নিজেদের অনুকূলে রাখতে বিরামহীন মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন অনেকেই। পাশাপাশি আওয়ামীলীগ থেকে দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রার্থীদের অনেকেই চালিয়ে যাচ্ছেন নানারকম তদবির। রাজনৈতিক কার্যালয়গুলোও সরগরম হয়ে উঠছে। অনেকের ধারনা, জুন, জুলাইয় মাসের মাঝামাঝি সময়ে উক্ত নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ।

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জমে উঠেছে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা । আগামী জুলাইয়ে অনুষ্ঠিত হবে এই অঞ্চলের ইউপি নির্বাচন। তাই সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা যে যার শক্ত অবস্থান জানান দিচ্ছেন । কেউ শোডাউন করে, কেউবা ব্যানার ফেস্টুন দিয়ে, ইউনিয়ন বাসীর দোয়া ও সমর্থন কামনা করছেন। অনেকে দলীয় মনোনয়ন পেতে হাই কমান্ডের নেতাদের কাছে দৌড়ঝাঁপ করছেন । এই ইউনিয়নে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে মাঠে আছেন বর্তমান চেয়ারম্যান আজির উদ্দিন, তৃণমূল মাঠ পর্যায়ে নতুন প্রার্থী ফারুক আহমেদ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সেক্রেটারি ইমন মোস্তফা, মুজিবুর রহমান মুজিব, ও সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল মতিন ।

উক্ত নির্বাচনে বিএনপি দলীয় ভাবে অংশ গ্রহণ না করায় আওয়ামী লীগ বনাম স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে মুলত লড়াই হবে। যেহেতু বিএনপি কোনো প্রার্থী নির্বাচনে অংশ গ্রহণ না করায় ভোটের হিসাব নিকাশ প্রাল্টে যাবে । এই ইউনিয়নের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বিএনপির ভোট ব্যাংক রয়েছে। সেই হিসেবে বিএনপির ভোট যে দিকে যাবে সেই দিকে উক্ত ভোটের মাধ্যমে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জয়লাভ করার ইঙ্গিত বহন করে । সেই হিসেবে প্রার্থীরা বিএনপির এই ভোট ব্যাংক কাজে লাগাতে দৌড়ঝাঁপ করছেন । মাঠপর্যায়ের জরিপে দেখা যায় এই ইউনিয়নের প্রার্থীদের মধ্যে এগিয়ে আছেন নতুন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোঃ ফারুক আহমেদ । অন্য একটি সুত্রে জানা যায় বিএনপির সমর্থক ভোটারদের কাছেও জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রয়েছেন ফারুক আহমেদ ।

বর্তমান চেয়ারম্যান আজির উদ্দিন বলেন- গত নির্বাচনে আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন। সেই হিসেবে এই ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনগণের ভোটের মাধ্যমে আমাকে ভালোবেসে ভোট দিয়ে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করেছেন । আমি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই সরকারের যাবতীয় উন্নয়ন কর্মকাণ্ড প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে পৌঁছে দিয়েছি। আগামী নির্বাচনে তৃণমূল প্রত্যাশা অনুযায়ী আমি মনোনয়ন প্রত্যাশী । যদি দল আমাকে মনোনয়ন দেয় তাহলে আমি দলের সাংগঠনিক গতিশীলতা সমুন্নত রেখে তৃণমূল জনপ্রত্যাশা মোতাবেক প্রকৃত মুজিব আদর্শিক কর্মী হিসেবে কাজ করে যেতে চাই । এক্ষেত্রে জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন, মিশন, তথা এমডিজি অর্জনের গ্রামীণ অবকাঠামোগত উন্নয়নে ভূমিকা পালন করব বলে আমি আশা রাখি ।

এদিকে আওয়ামী লীগ দলীয় থেকে উপর মনোনয়ন প্রত্যাশী নতুন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোঃ ফারুক আহমেদ বলেন – আমি যদি দলীয় মনোনয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হই তাহলে সরকারি বরাদ্দের উন্নয়নখাতে শতভাগ বাস্তবায়ন, শিক্ষা, ও স্বাস্থ্য সেবার পাশাপাশি জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করব । আমি একজন কৃষকের সন্তান হিসেবে এই ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনগণের কৃষকের ফসল ঘরে তুলার জন্য হাওরের মাঝখানে দিয়ে ছোটখাটো রাস্তা নির্মাণ ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে কাজ করব । সেই সাথে এই ইউনিয়নকে মাদক, সন্তাস, দূর্নীতিমুক্ত ও সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করে মামলার প্রকোপ কমিয়ে নিয়ে আসাই হলো আমার মূল লক্ষ্য ।

ফারুক আহমেদ আরও বলেন –
আমি দুই যুগের ও বেশি সময় ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত । আমার ফ্যামিলি মূলধারা থেকে আওয়ামী লীগ পরিবার । আমার বাবা একজন বীর মুক্তি যোদ্ধা ছিলেন । তিনি মৃত্যু আগপর্যন্ত আওয়ামী লীগ রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন পরোক্ষভাবে জড়িত,। আমি আশাবাদী জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দেবেন । আমি যদি চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হই তাহলে এই ইউনিয়নের সুশাসন প্রতিষ্ঠাই হলো আমার মূল লক্ষ্য উদ্দেশ্য । সেই সাথে সরকারের শতভাগ উন্নয়ন বাস্তবায়ন করব।

এই ইউনিয়নের সর্বস্তরের মানুষের সাথে আলোচনায় জানা যায় তাদের চাহিদা হচ্ছে আগামী নির্বাচনে চেয়ারম্যান এমন একজন জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করবেন,যে উন্নয়ন মূলক কাজ করবে এবং জনগণের চাহিদাকে প্রাধান্য দিতে পারবেন তাহাকেই নির্বাচিত করবে।

অন্য দিকে মাঠপর্যায়ের জরিপে দেখা যায় এই ইউনিয়নে নতুন ভোটারদের কাছে নতুন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোঃ ফারুক আহমেদ জনপ্রিয়তা শীর্ষে এগিয়ে রয়েছেন ।
আরেকটি সুত্রে জানা যায় বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় এই ইউনিয়নের বিএনপি সমর্থক ভোটারদের ভোট পেয়ে যাবেন ফারুক আহমেদ । দলমত উর্ধে সর্বস্তরের মানুষের কাছে স্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছেন ফারুক আহমেদ । স্থানীয় ভোটারদের কাছ থেকে জানা যায় যদি দলীয় ভাবে আওয়ামী লীগ ফারুক আহমেদকে মনোনয়ন না দেয় আর স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেন তারপরও নির্বাচনে বিজয়ী হবেন ফারুক আহমেদ ।

স্থগিত ইউপি ও উপনির্বাচনের বিষয়ে জানা যাবে বুধবার।

স্থগিত ইউপি ও উপনির্বাচনের বিষয়ে জানা যাবে বুধবার, শূন্য হওয়া সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন এবং করোনার কারণে স্থগিত হওয়া প্রথম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনসহ বেশ কয়েকটি নির্বাচনের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসছে শিগগিরই। এসব নির্বাচনের বিষয়ে বুধবার ( ২জুন ) কমিশন বৈঠকে বসছে ইসি। বিকেল ৩টায় রাজধানীর নির্বাচন ভবনে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে প্রধান নির্বাচন কমিশনার সভাপতিত্ব করবেন।

তবে এর আগের বৈঠক অনুযায়ী মহামারি করোনাভাইরাসের মধ্যেই নির্বাচন আয়োজন করার পক্ষে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গত ১১ মে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এই ধরনের মতামত দেন তারা। তবে সেদিন চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।

বৈঠক শেষে ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ সাংবাদিকদের বলেন, করোনা পরিস্থিতি যতই খারাপ হোক না কেন, আমরা সব নির্বাচন কন্টিনিউ করবো। আমাদেরকে নির্বাচন করতেই হবে। লক্ষ্মীপুর-২ ও সিলেট-৩২ আসনে সিইসির ক্ষমতার পরবর্তী ৯০ দিনও পার হয়ে গেছে। আমরা চাচ্ছি- কমিশন একমত হলে এসব নির্বাচনগুলো সম্পন্ন করে ফেলব।

তিনি বলেন, ২জুন কমিশন সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ৪-৫টা এজেন্ডা আছে। ৩৭১টি ইউপি নির্বাচনসহ যেসব নির্বাচন ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল, সেগুলোতে নির্বাচন হবে। এগুলো ২জুন তারিখে সিদ্ধান্ত হবে।

ইসির উপসচিব (সংস্থাপন) মোহাম্মদ এনামুল হক স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত চিঠি থেকে জানা যায়, আসন্ন কমিশন সভার আলোচ্যসূচির মধ্যে রয়েছে- লক্ষ্মীপুর-২ আসনের স্থগিত নির্বাচন, ষষ্ঠ ধাপের ১১টি পৌরসভাসহ প্রথম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদের স্থগিত নির্বাচন; সিলেট-৩, ঢাকা-১৪ ও কুমিল্লা-৫ শূন্য আসনের নির্বাচন; ইউনিয়ন পরিষদের দ্বিতীয় ধাপের সাধারণ নির্বাচন এবং পৌরসভাসহ স্থানীয় সরকার পরিষদের অন্যান্য নির্বাচনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আসতে পারে। আর বৈঠকে লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর পৌরসভা নির্বাচনের তদন্ত প্রতিবেদন উত্থাপন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com