1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
প্রথম রক্ত দেয়ার অনুভূতি জানালেন মোহাম্মদ কামরুল হাসান | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৮:০৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

প্রথম রক্ত দেয়ার অনুভূতি জানালেন মোহাম্মদ কামরুল হাসান

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৪ জুন, ২০২১
  • ২১ বার

৩ ই ডিসেম্বর ২০২০ সকাল ১০ টা। বেশ কিছুদিন ধরেই খুঁজছিলাম কাকে রক্ত দেয়া যায়। রক্তদান করার কথা ছোটবেলা থেকেই শুনে আসতেছি। যখনই যার দরকার পড়তো, ভাইরা রক্ত দিতো। সেই থেকেই রক্তদানের ইচ্ছে জাগে। কিন্ত বয়স ১৮ না হওয়ায় দিতে পারতাম না।

আফসোস হতো কেনো আরেকটু বড় হলাম না! ১৮ পেরিয়েছি গত কয়েক বছর আগেই। কিন্তু এখনো রক্তদানের সৌভাগ্য হয়নি আমার। এর পিছনে একটা কারণ আছে, তা হলো- আমার হিমগ্লোবিন কম হওয়াতে ডাক্তার বারণ করেছেন- ব্লাড না দিতে। কিন্তু আমিতো হাল ছাড়ার পাত্র নয়।’

শুরু করলাম শাকসবজি খাওয়া, উদ্দেশ্য হলো- হিমগ্লোবিন বাড়াবো, আর রক্ত দিবো। সেই সুযোগ চলেই এলো। হিমগ্লোবিন বাড়লো অনেক চেষ্টার পর। এবার আমি লাল ভালবাসা দিবো, তারিখ টা ৩-১২-২০২০। যেতে হবে হাটহাজারী সদরের আধুনিক হাসপাতালে, হাটহাজারীরই আমার বাড়ী পার্শ্বস্থ ইছাপুর বাজার থেকে সিএনজি বেবীট্যাক্সি করে চলে গেলাম। সামান্য নার্ভাস লাগছিলো।

কিন্তু মনকে শক্ত করলাম, একটা ভালো কাজ করতে যাচ্ছি । কোয়ান্টামে পৌঁছে আধ ঘণ্টা অপেক্ষা করলাম ক্রস ম্যাচিং এর জন্য। এরপর আমাকে শুইয়ে দেয়া হলো।

একটু পর ওখানকার এক ভাই এসে ডান হাতের মাঝ বরাবর একটা সুঁচ ঢুকিয়ে দিলো! মনে হলো একটা পিপড়ার কামড় খেলাম! আর কিছুই না। আরে, রক্ত দেয়া এত সোজা! মনে নানা প্রশ্ন! ব্যাথা লাগেনি কেনো!

যাক, সেদিন ব্লাড দিয়েছিলাম একটা খুব সুন্দর ফুটফুটে শিশুকে। ব্লাড দেয়ার পর আমার অনেক আনন্দ লেগেছিলো। মনে হচ্ছিলো লাইফে এটলিস্ট একটা ভালো কাজ করলাম। অদ্ভুত এক প্রশান্তি অনুভূত হচ্ছিলো। তবে আল্লাহর অশেষ রহমত!! রক্ত দিলে মাথা ঘুরায়, দুর্বল লাগে, অসুস্থ্য হয়… লোকে এগুলা বলে। সবই ভুয়া কথা। কিচ্ছু হয় না। উল্টা আরো ফ্রেশ লাগে। তিনমাস পরপর রক্ত এম্নিতেও চেঞ্জ হয়। নতুন রক্ত হয় শরীরে। অযথা রক্ত বর্জ্য হিসেবে নষ্ট না করে মানুষের কাজে আসলে সেটা তো খারাপ না! রক্তভীতি এখনো যায় নাই। তবে রক্তদানের ভীতি আগেও ছিলো না, এখনো নাই। এটাই আমার রক্ত দানের অভিজ্ঞতা।

জানি না সেদিন কতটা উদ্বুদ্ধ করতে পেরেছি, তবে আশা করি আমাদের সকলের মিলিত প্রয়াসে এমন একটি বিশ্ব গড়ে উঠবে যেখানে রক্তের জন্য কেউ কখনো মারা যাবে না।

আমি নিজেকে নিয়ে খুব গর্ব করি, যখন কোনো মানুষকে ব্লাড ম্যানেজ করে দেয়ার মতো মানবিক কাজ করতে পারি। আলহামদুলিল্লাহ্ এই অধমের দ্বারা অনেক মানুষ উপকৃত হয়েছে, ভালো লাগে, অনেক ভাল লাগে- যখন কাউকে ব্লাড ম্যানেজ করে দিতে পারি।আমি সবসময় চেষ্টা করি মুমূর্ষু রোগীদের জন্য ব্লাড ম্যানেজ করে দিতে।

আজ আমি খুব আনন্দিত, কারণ আমার মত একজন নগণ্য ব্যক্তি হাটহাজারী ব্লাড ব্যাংকের মত মহান একটি মানবিক সংগঠনের কার্যকরী পরিষদের সদস্য। সর্বোপরি সবার কাছে দোয়া চাই যাতে আমি সারা জীবন তথা মৃত্যুর পূর্বেও যাতে দেশ ও জাতির সেবা করে যেতে পারি।

সালামান্তে : মোহাম্মদ কামরুল হাসান
উত্তর মেখল, হাটহাজারী, চট্টগ্রাম।
১৪/০৬/২০২১ – সোমবার
নিয়মিত ও পজেটিভ রক্তদাতা
কার্যকরি সদস্য, হাটহাজারী ব্লাড ব্যাংক
হাটহাজারী চট্টগ্রাম।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম