1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
প্রধানমন্ত্রীর কাছে ঘর চান বৃদ্ধা আজাহার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ১০:৫১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
রাউজানে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু আনোয়ারা প্রেস ক্লাবের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত রাউজানে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গাপূজা অসুর শক্তিকে ধ্বংস করে করে আওয়ামীলীগ আজ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় : এমপি হানিফ ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীর শাকিল হত্যা মামলার আসামি এক মাস ধরে পলাতক, ইউপি চেয়ারম্যানকে খুঁজছে পুলিশ ! উন্নয়নের সুষম বণ্টনই আমার প্রধান লক্ষ্য : নিবাচনী প্রচারণায় ভার্ড কামাল বিএসএফ’র গুলিতে বাংলাদেশী যুবক আহত । ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে বৈদ্যুতিক স্পর্শে প্রাণ গেল যুবকের! ঠাকুরগাঁও থেকে অপহৃত স্কুল ছাত্রী গাজীপুর থেকে উদ্ধার —আসামীরা পলাতক ! ১০ বছরেও সংস্কারের মুখ দেখেনি শীলকূপ-গন্ডামারা সড়ক, খানাখন্দে বেহাল জনদুর্ভোগ

প্রধানমন্ত্রীর কাছে ঘর চান বৃদ্ধা আজাহার

মাহমুদুল হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি।
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১
  • ২০২ বার

আমাকে একটা ঘর দিলে আমি শেষ বয়সে স্ত্রী সন্তানকে নিয়ে বাকি জীবনটা একটু সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারতাম। আমার মাথা গোজার ঠাই টুকু নেই। এভাবেই প্রধানন্ত্রীর কাছে কান্না জড়িত কন্ঠে আকুতি জানান পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার মৌডুবী ইউনিয়নের মাঝের দেওর গ্রামের ৭০ বছর বয়ষী অসহায় বৃদ্ধা আজাহার হাওলাদার। আজাহার উপজেলার মৌডুবী ইউনিয়নের চদ্রি মাঝি গ্রামের মৃত নুর মোহাম্মদ হাওলাদারের ছেল।
অনাহারে অর্ধহারে কাটে দিন। তার নেই কোন জমি জমা , দীর্ঘদিন ধরে অন্যের এক টুকরো যায়গায় ভাঙা ছোট ঝুপড়ি ঘরে থাকেন তিনি। ৭০ বছরেও মেলেনি সুখের হাতছানি। অভাবের তাড়নায় ও বার্ধক্যের কারণে ঠিকমতো চলতে পারে না। চোখের দৃষ্টিশক্তি কমে যাচ্ছে। ঝড় বৃষ্টি শুরু হলে ঝুপড়ি ঘরের এক কোনে বসে নিরবে বৃষ্টিতে ভিজা ছাড়া উপায় নেই তার। সারা ঘরেই পড়ে বৃষ্টির পানি। শীতে সময় ঠান্ডা বাতাস বইতে থাকে সারা ঘরে।

সরেজমিনে দেখা যায়, বাশের খুটিঁ ,তালপাতার বেড়া আর ছেড়া কাগজ দিয়ে কোনো রকমের ছাপড়া দিয়ে ছোট একটি ঝুপড়ি ঘর তৈরি করে বৌ-বাচ্চা নিয়ে থাকেন অসহায় বৃদ্ধা আজাহার।
স্থানীয়রা জানান, আশেপাশের বাড়িতে তার স্ত্রী কাজ করে তাতেই চলে তার সংসার। অভাব অনটনের এই সংসারে তার অসহায়ত্ব যেন দেখার কেউ নেই।
বৃদ্ধা আজাহার বলেন, আমি পরের (অন্যের) বাড়িতে ১৪-১৫ বছর যাবত থাকি আমার একটা ছেলে আছে ৬ষ্ঠ শ্রেনিতে পরে আমি তার পড়াশোনার খরচ চালাতে পারিনা। মানুষের কাছ থেকে চাইয়ে চিন্তে খাই নিজের বাড়ি ভিটের যায়গা নাই । আমার নেই কোনো বয়ষ্ক ভাতার নাম। যদি প্রধানমন্ত্রী দয়া করে আমারে (আমাকে) একটা বাড়ি ভিটার যায়গা ও বয়স্ক ভাতার টাকা দেয় তাহলে আমি মরার আগে একটু সুখ দেখে যেতে পারতাম।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম