1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
পিরোজপুরের নেছারাবাদে বাইশ হাজার টাকার বেতনের চাকরি ছেড়ে ড্রাগন চাষে সফলতা দেখছেন অনুয ঘরামী - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন

পিরোজপুরের নেছারাবাদে বাইশ হাজার টাকার বেতনের চাকরি ছেড়ে ড্রাগন চাষে সফলতা দেখছেন অনুয ঘরামী

মো: ফয়সাল হাসান, পিরোজপুর প্রতিনিধি |
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৪ আগস্ট, ২০২১
  • ২০ বার

২২ হাজার টাকার বেতনের চাকরি ছেড়ে ড্রাগন ফল চাষে লাখপতি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন পিরোজপুরের নেছারাবাদ উপজেলার জলাবাড়ী গ্রামের অনুয ঘরামী(৩৮) নামে এক উদ্যেক্তা। অনুযের এক বিঘা জমিতে রোপিত ড্রাগন ফল তাকে হাতছানি দিচ্ছে এখন সেই রঙিন স্বপ্নের। ড্রাগন চাষি অনুয বলেন তিনি এ বছর মাত্র তিন মাসে কয়েকটি পিলারের গাছ থেকে ৪৮ হাজার টাকার ফলন বিক্রি করে ফেলেছেন। সব মিলিয়ে এ বছর তিনি তার বাগান থেকে দুই লাখ টাকার ড্রাগন বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন। ব্যবসায়িরা বাগানে এসে ফলন দেখে ২৮০ টাকা কেজি ধরে ফল কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। অনুযের জমিতে এবছর মাত্র ৭০ টি পিলারে ড্রাগনের বাম্পার ফলনে হতবাগ হয়েছেন খোদ উপজেলা কৃষি বিভাগও।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা চপল কৃষ্ণ নাথ বলেন, নেছারাবাদ উপজেলায় প্রায় এক হেক্টর জমিতে বিদেশি ড্রাগন ফলের চাষ রয়েছে। এরমধ্য চাকরিজীবি ওই উদ্যেক্তার বেশি ফলনের বাগান।

ড্রাগনফল চাষের উদ্যেক্তা অনুয জানান, তিনি শিক্ষা জীবনের মাষ্টার্স পর্যন্ত পড়াশুনা করে ব্রাকে দশ বছর চাকরি করেছেন। এরপরে মাসিক ২২ হাজার টাকা বেতনে আরডিএস নামক একটি এনজিওতে সাতক্ষিরায় চাকরি নেন। সেখানে তিন বছর পর্যন্ত চাকরি করেন। পরে চাকরি ছেড়ে ২০১৯ সালে গ্রামে এসে তার এক বিঘা জায়গায় মাত্র ৬০ পিলারে ড্রাগন ফলের চাষ শুরু করেন। ড্রাগনের কাটিং রোপনের মাত্র সাত মাসের ব্যবধানে সে বছরই তিনি বাগান থেকে ভাল ফলনের সাড়া পান। সেই সাড়ায় তার বাগানে এখন ১৬৫ টি পিলারে ড্রাগন চাষ রয়েছে। প্রতিটি পিলারে চারটি করে গাছ রয়েছে। তার বাগানে এখন ফল ও ফুলে ভরপুর। ড্রাগন চাষ লাভজনক হাওয়ায় তাকে দেখে উপজেলার অনেকে ড্রাগন চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। প্রতিদিনই বাগানে আসছেন নানান কৌতহুলি ও ভ্রমন পিয়াসু লোকও।

সরেজমিনে উপজেলার জলাবাড়ী ইউনিয়ের জলাবাড়ী গ্রামের কালির মোড়ে তার বাগানে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় সাত থেকে আট ফুট দূরত্বে কংক্রিটের তৈরি পিলারের চারপাশে ড্রাগন গাছ রোপণ করা হয়েছে। কংক্রিটের এসব পিলারের ওপরে লোহার রডের সঙ্গে সাইকেলের পুরনো টায়ার দেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে অনেক গাছে ফল আসতেও শুরু করেছে। সেই গাছ থেকে প্রতি ১৫-২০ দিন পর পর তুলছেন ড্রাগন ফল।

ড্রাগন চাষি অনুয বলেন, সাতক্ষিরায় প্রচুর ড্রাগনের বাগান আছে। সেখানে অনেক শিক্ষিত বেকার ও অবসরপ্রাপ্ত চাকুরিজীবিরা ড্রাগন চাষ করছেন। চাকরি কালিন ঘুরে ঘুরে সেখানকার ড্রাগন চাষে সফল লোকদের সফলতার গল্প শুনে তিনিও আগ্রহী হন এই বিদেশি ফল চাষে। সেখানকার স্থানীয়দের পরামর্শ নিয়ে কাটিং এনে এ বিঘা জমিতে মাত্র ৬০টি পিলারে ড্রাগনের চাষ শুরু করেন। শুরুতেই ব্যাপক সাড়া মেলে এই বিদেশি পুষ্টিমান ফল চাষে। তিনি জানান, গাছ লাগানোর মাত্র ৭-৮ মাসের মধ্য বাগানে ফুল-থেকে ফল আসতে শুরু করে। বাংলা বৈশাখের প্রথমে দিকে গাছে ফুল আসতে শুরু করে। ফুল ধরার মাত্র ৪২ দিনের মাথায় পরিপক্ক ফল আসে। এ বছর এখন পর্যন্ত তিনি ৪৮০০০ টাকার ফল বিক্রি করেছি।

তিনি বলেন, ড্রাগন চাষে প্রথমে জমি তৈরি করার জন্য উচু করে আইল বাধতে হয়। কারন এ গাছটি শুস্ক স্থানে উচু জায়গায় চাষ করতে হয়। এজন্য চাষের শুরুতে প্রথম দিকে যে পরিমান খরচ হয়। পরবর্তিতে গাছের তেমন একটা পরিচর্যারও দরকার পড়েনা। এক একটি গাছ পচিশ বছর পর্যন্ত স্থায়ী হয়। বছরে ছয় মাস ফলন পাওয়া যায়। তিনি বলেন বাগান থেকে এখন ফলের পাশাপাশি ড্রাগনের চারা বিক্রি করেও বাগান থেকে বাড়তি আয় হচ্ছে।

অনুয ঘরামী জানান, দুই বছর বয়সে একটি গাছ থেকে পরিপূর্ন ফল আসে। তখন এক একটি পিলার থেকে প্রতি বছরে ৩০ থেকে ৪০ কেজি ফল পাওয়া সম্ভব। অনুয ঘরামী আশা প্রকাশ করে বলছেন তার বাগানের গাছের বয়স পরিপূর্ন হলে বছরে এই এক বিঘা জমির ড্রাগন ফল বিক্রি করে ১০ লাখ টাকা আয় করা সম্ভব হবে

ড্রাগন চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে অনুয ঘরামী আরো বলেন, প্রথমে জমি চাষ করে নিতে হবে। চারা রোপনের কয়েকদিন পূর্বে ক্ষেতের আগাছা পরিস্কার করে জৈব সার দিতে হবে। এরপর আধা ইঞ্চি পরিমান মাটিতে চারা রোপন করতে হবে। একটি পিলারে চারটি কোনে চারটি রোপন করা যায়। একটি পিলার থেকে অন্য পিলারের দুরুত্ব হবে সাত থেকে আট ফিট।

নেছারাবাদ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা চপল কৃষ্ণ নাথ জানান, ড্রাগন একটি পুষ্টিকর ফল। এতে প্রচুর পরিমান ভিটামিন রয়েছ। এটি অনেক লাভজনক ফল। যেহেতু এটি একটি বিদেশি ফল তাই আমাদের দেশে এর চাহিদাও অনেক। উপজেলায় এক হেক্টর জমিতে ড্রাগনের চাষ রয়েছে। অনুযের ড্রাগন চাষের খবর পেয়ে আমাদের অফিস থেকে তার বাগান ঘুরে আসা হয়েছে। ড্রাগন চাষি অনুয চাইলে আমাদের পক্ষ থেকে তাকে সব রকমের সহযোগীতা করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম