1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ভয়াল একুশে আগস্ট : তারকুল ইসলাম - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪৪ অপরাহ্ন

ভয়াল একুশে আগস্ট : তারকুল ইসলাম

তারকুল ইসলাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৯ আগস্ট, ২০২১
  • ৫১ বার

সারাদেশে জঙ্গিবাদের ত্রাস আর গোপালগঞ্জের পুলিশী নির্যাতনের প্রতিবাদে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে ট্রাকের উপর সাজানো মঞ্চে বক্তৃতা শেষ করলেন মমতাময়ী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্বিত চারদিক থেকে বিকট আওয়াজে ফুটতে থাকলো বোমা। না, আসলে সেটা বোমা ছিলো না। বোমা থেকেও ভয়ঙ্কর কিছু, যাকে সামরিক ভাষায় বলা হয়ে থাকে মিলিটারি গ্রেডের গ্রেনেড। গ্রেনেডের বিষ্ফোরণের সাথে সাথে লন্ডভন্ড হয়ে যায় সমাবেশ। চতুর্দিকে শোনা যাচ্ছিলো মানুষের বুকফাটা আর্তচিৎকার, হাজারো মানুষের ছুটোছুটি। সেদিন রক্তমাখা নিথর দেহ পড়ে ছিল শত শত আন্দোলনকর্মীর। হাত পা হারান অসংখ্য মানুষ। দিগবিদিক ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিলো শত শত জুতা। স্বেচ্ছাসেবীরা রিকশা, ভ্যান, মটরসাইকেল ও এম্বুলেন্স দিয়ে আহতদের নিয়ে যাচ্ছিল হাসপাতালে। চারদিকে যেন রক্ত আর রক্ত। মনে হচ্ছিল বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে যেন এজিদ বাহিনী বর্বর নৃশংস হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে। হামলা করার ক্ষণিক পরেই চ্যানেল আইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ঢাকার সাবেক মেয়র হানিফ ভয়ার্তকন্ঠে পরিস্থিতি বর্ণনা করতে বলছিলেন ”আমাদের নেত্রীর বক্তৃতা দেওয়া শেষ হওয়ার সাথে সাথে চারদিক থেকে বোমা বিষ্ফোরণের শব্দ পেয়েছি। অনেক বোমা, আমি সভানেত্রীকে ধরেই ট্রাকে শুয়ে পরছি”। কতটা ভয়াভহ ও নৃশংস ছিলো সেই বর্বরচিত হামলা, তার বিবরণ দেওয়া সত্যিই কষ্টকর।

আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দরা বলছিলো শেখ হাসিনাকে টার্গেট করেই এই হামলা করা হয়েছে। শেখ হাসিনার ব্যাক্তিগত সহকারিগণ তাকে অতিসত্ত্বর সে স্থান থেকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যায়। সেদিনের হামলায় ঘটনাস্থলেই বারজন এবং হাসপাতালে আরো বারজন মারা যায়। ৩০০ জনেরও অধিক মানুষ আহত হয়। নিহতদের মধ্যে আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নারী নেত্রী মিসেস আইভি রহমান ছিলেন অন্যতম, যিনি বাংলাদেশের ১৯তম রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী।

বাংলাদেশের ইতিহাসে একুশে আগস্টের সন্ত্রাসী হামলা আওমীলীগের হৃদয়ে যে কালো ক্ষত সৃষ্টি করেছিলো। সেই ক্ষত আওয়ামীলীগের বিএনপির প্রতি বিদ্বেষ ভাব দ্বিগুন বৃদ্ধি করেছিলো। কার্যত প্রতি বছর এই দিন এলে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা বিএনপিকে দোষারোপ করে নিন্দার ঝর বইয়ে দেন। এটি অমূলক কিছু নয়, কারণ হামলায় নেতৃত্বদানকারী জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ এর নেতা মুফতি আব্দুল হান্নানকে সন্মুখ থেকে আসামী করা হলেও, নেপথ্যে বিএনপি নেতা তারেক রহমান, জামায়াতের আলী আহসান মুজাহিদসহ ৪৯ জনকে আসামি করা হয়।

এদিকে বিএনপি নেতাগণ দাবী করছে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় খালেদা জিয়াকে নিয়ে কেউ কখনোই টুঁ শব্দ করেনি। তাঁর নাম কেউ কখনোই উচ্চারণ করেনি। এমনকি এক-এগারোর সরকারের সময় গঠিত তদন্ত কমিটির তদন্ত শেষে অভিযোগপত্রে (চার্জশিট) বোমা হামলার সঙ্গে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অন্য নেতাদের জড়িত থাকার কোনো উল্লেখ নেই। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে পুলিশি পুনঃতদন্তের মাধ্যমে সম্পূরক চার্জশিটে তারেক রহমানসহ বিএনপির নেতাদের নাম জড়িত করা হয়। এতে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়, রাষ্ট্রশক্তি প্রয়োগ করে পুলিশি ক্ষমতার যথেচ্ছ ব্যবহারের মাধ্যমে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কল্পিত চার্জশিট তৈরি করা হয়েছে বলে বিবৃতিতে অভিযোগ করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল। (প্রথম আলো,১৮ই আগস্ট, ২০২১)

প্রকৃতপক্ষে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পরপরই বিএনপি নেতাদের নামসহ আরো ৩০ জনকে নতুন করে আসামী করা হয়। ন্যায়ভিত্তিক বিচার হোক কিংবা রাজনৈতিক ‍উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রহসনের বিচার, বিএনপি নেতাসহ যে সকল আসামীর সাঁজা হয়েছে তাদের মধ্যে ১৮জন পলাতক রয়েছে। এদের সকলের বিচারকে বৈধ মনে করা যায় যেহুতু বিএনপি সরকারের সময় এত বড় নৃশংস হামলার বিচার করা হয়নি। তদুপরি বর্তমান বিএনপি জামায়াত কর্তৃক আওয়ামীলীগের বেইনসাফির বিরুদ্ধে প্রদেয় মামলার যথার্থ বিচার না হলে, আগামীতে অন্য কোন দল ক্ষমতায় আসলে, প্রদত্ত বিচারের আসামী সংখ্যা বৃদ্ধি করে সত্য-মিথ্যা নাটক সাজিয়ে বিচারের নামে প্রহসন করা হতে পারে। লঘু পাপে গুরুদন্ডও দেওয়া হতে পারে। তখন জনগণসহ আইন ও বিচারের নামে প্রহসনের পক্ষে থাকার সম্ভাব্যতা অনুমান করা যায়। কার্যত এটি কি সত্যে ও ন্যায়ের মাপকাঠিতে কখনো বৈধতা পাবে? প্রতিহিংসার রাজনীতি কি কখনো শেষ হবেনা? ক্ষমতা দখলের নামে রক্তারক্তির হলিখেলা কি কখনো বন্ধ হবেনা? বিনাবিচারে আটক রাখা, বিচারের দীর্ঘসূত্রতা, একজনের অপরাধ অপরজনের ঘাড়ে চাপিয়ে নিরপরাধ নিরিহ জনগনকে কারান্তরীন করা, হয়রানি করা, ক্রসফায়ারের রাজনীতি, অপরাধ করেও রাঘববোয়ালদের ক্ষমতার দাপটে ছাড় পেয়ে যাওয়া, দুর্নীতি, ঘুষ ইত্যাদি বাংলাদেশের স্বাধীনতাত্তোরের পর থেকে পত্রিকার পাতায় পাতায় দেখা গেছে। বর্তমানে এই হার আরো অধিকতর বৃদ্ধি পাচ্ছে। ক্ষমতা আর অর্থ সম্পদের অসুস্থ প্রতিযোগিতা আমাদের সমাজ থেকে নীতি নৈতিকতা, শ্রদ্ধা এবং ভালোবাসা কালপরাম্পরায় উবে যাচ্ছে।

এদিকে আলেম ওলামাগণও হিংসা বিদ্বেষ ছড়ানোর বেলায় বেশ দক্ষতা অর্জন করেছে। নৈতিকতা, অসুস্থ প্রতিযোগিতার বিরুদ্ধে যাদের বলিষ্ঠ কণ্ঠে উচ্চারণ করার কথা আজ তারাই নানান অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িয়ে যাচ্ছে। প্রসঙ্গত ২০০৫ সালে ধর্মের নামে ‍উগ্র ধর্মান্ধদের দেখা গেছে পুরো দেশের ৩০০টি স্থানে ৫০০ টি সিরিজ বোমা হামলা করতে। ১৯৯৯ সালের মার্চ থেকে ২০০৫ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ছয় বছরে এই জঙ্গিগোষ্ঠী দেশে ১৩টি বোমা ও গ্রেনেড হামলা চালায়। এতে ১০৬ জন নিহত হন। আহত হন ৭০০ এরও বেশি মানুষ। ২০১৬ সালের ১লা জুলাই গুলশানের হোলি আর্টিজেন বেকারিতে জঙ্গি হামলায় নিহত হয় দু’জন পুলিশ সদস্য সহ অন্তত মোট ২২ জন। যাদের মধ্যে ছিলেন পুলিশের সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম এবং ওসি সালাউদ্দীন খান। তথাকথিত ধর্মের পোশাক পরে আইএস ভাবধারার জঙ্গিরা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করে বিশ্ববাসীর নিকট ইসলামের ভাব মর্যাদা, মূল্যবোধ বিনষ্ট করছে। তারা কার্যত ইসলামের,নিজেদের এবং জাতির সর্বাঙ্গীণ ক্ষতি করেছে। এসব সন্ত্রাসীদের দোসর, পৃ্ষ্টপোষক এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদেরও খুজে বের করে উপযুক্ত বিচার করা অনিবার্য ছিলো। সরকার যথার্থ প্রচেষ্টাও করেছে। তাছাড়া জঙ্গিবাদ দমনে আওয়ামীলী সরকার বরাবরের মত আপোসহীন ছিলো। তবে জঙ্গি দমনের নামে সরকারের ইসলামিক টিভি চ্যানেল পিস টিভি বন্ধ করে দেওয়া অবাঞ্চিত ও অনাকাঙ্ক্ষিত ছিলো। অধিকিন্তু সার্বিক বিচারে সরকারের ইসলামের প্রতি যথেষ্ট সহনশীলতা দেখা যায়। তদুপরি মাঝেমধ্যে আলেম ওলামাসহ সাধারন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ গুম হওয়া নিয়ে সরকারেকে বেকায়দায় পরতে হয়। জনগণ ও রাষ্ট্র যদি এমন ধারায় মানবাধিকার লঙ্ঘন থেকে সরকারকে নিবৃত্ত করতে পারে কার্যত সরকারের সুনাম বৈ বদনাম হওয়ার সুযোগ নেই। কোমল, কঠোর এবং দৃঢ় নেত্রী হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জুড়ি নেই। তিনি এমন নেত্রী যিনি ঊনিশ বার সৃষ্টিকর্তার কৃপায় মৃত্যুমুখ থেকে ফিরে এসেছেন। ২১শে আগস্টের এই দিনে বোমা হামলার মুহুর্তে অবিষ্ফোরিত গ্রেনেড তার নিকট থেকে খানিকটা দূরেই পড়েছিল। সৌভাগ্যক্রমে গ্রেনেডটি বিষ্ফোরিত হয়নি। মহান সৃষ্টিকর্তা তাঁকে বাঁচিয়েছিলেন কেবল গুম, খুন, বিচারহীনতা, স্বজনপ্রীতি, রাষ্ট্রীয় সম্পদ তসরুফ, অপচয় সকলপ্রকার অপশক্তির বিলোপসাধন করে কথাবলার অধিকার প্রতিষ্ঠা করে ন্যায় ও সত্যের সৌধের চূড়াকে সমুন্নত করার জন্য।

তারকুল ইসলাম
শিক্ষার্থী, ইতিহাস বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

সদস্য, তরুন কলাম লেখক ফোরাম
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম