1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ জাতির অহংকার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৪৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
প্রোগ্রামে হঠাৎ অসুস্থ চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে বিশ্রামে থাকতে বললেন চিকিৎসক আনোয়ারায় ৪ ইয়াবা কারবারী আটক সাংবাদিকের স্ত্রীর সাথে সৎ মায়ের ঝগড়ার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল মাগুরায় অধিনায়ক আকবর হোসেন স্মৃতি পরিষদের ছড়ি বিতরণ সাংবাদিক রাসেল খানের শশুরের ইন্তেকাল মীরসরাই বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন আলহাজ্ব সেলিম উদ্দিন রাউজানে ২২০ বোতল ফেন্সিডিল ও তিন কেজি ৬ শত গ্রাম গাঁজাসহ ৩ যুবককে আটক চৌদ্দগ্রামে গাঁজাসহ বৃদ্ধ আটক মনোহরগঞ্জে বাস- ট্রাক্টর ও সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ৪জন নিহত ‘সাংবাদিকদের মনে ভয়ভীতি সৃষ্টি করতেই ১১ নেতার ব্যাংক হিসাব তলব’

মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ জাতির অহংকার

মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ৩৫তম মৃত্যু বার্ষিক উপলক্ষে বিনম্র শ্রদ্ধা

___ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার ____
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২০ আগস্ট, ২০২১
  • ৩১ বার

মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ছিলেন আমাদের অন্যতম জাতীয় নেতা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানেরও নেতা ছিলেন তিনি। দীর্ঘ এক দশক আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন মাওলানা তর্কবাগীশ। আজীবন সংগ্রামী এই নেতা বঙ্গবন্ধুকে সম্মান করতেন জাতির জনক হিসেবে। আজ ( ২০ আগস্ট ২০২১ শুক্রবার -) তাঁহার ৩৫তম মৃত্যু বার্ষিক ।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর যখন বঙ্গবন্ধু পরিষদ গঠিত হয় তখন এ সংগঠনের সভাপতিমণ্ডলীর একটি পদ গ্রহণের প্রস্তাব দেওয়া হয় এই প্রবীণ নেতাকে। তিনি তাতে সম্মতি জানান এবং বলেন, ‘কলকাতায় শেখ মুজিব ছিলেন আমার পুত্রবৎ। স্বাধীন বাংলাদেশের তিনি স্থপতি, জাতির জনক। অতএব এবার তিনি আমারও জনক, আমারও পিতা। তিনি আজ নিহত। কিন্তু একদিন আসবে যেদিন মৃত মুজিব প্রমাণিত হবেন জীবিত মুজিবের চাইতেও শক্তিমান। সেদিন অবধারিতভাবেই আসছে।

জাতীয় নেতা তর্কবাগীশ জন্মগ্রহণ করেন ২৭ নভেম্বর, ১৯০০ সালে (১১ অগ্রহায়ণ, ১৩০৭) সিরাজগঞ্জের রশীদাবাদের তাকুটিয়ায়। তার পিতা হজরত আবু ইসহাক (রহ.) ছিলেন সুখ্যাত এক আধ্যাত্মিক পরিবারের সুযোগ্য উত্তরাধিকারী এবং তার মাতা ছিলেন পুণ্যবতী বেগম আজিজুন নেছা। তার পূর্বপুরুষ হজরত শাহ সৈয়দ দরবেশ মাহমুদ (রহ.) ছিলেন বড়পীর হজরত শাহ সৈয়দ মহিউদ্দীন আবদুল কাদের জিলানি (রহ.)-এর উত্তরপুরুষ। হজরত সৈয়দ দরবেশ মাহমুদ (রহ.) ১৩০৩ সালে বাগদাদ থেকে ইসলাম প্রচারের জন্য ভারতবর্ষে আগমন করেন। মাওলানা তর্কবাগীশ বালক বয়সেই জমিদার-মহাজনদের শোষণ-নির্যাতন ও ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন-শোষণর বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হয়ে ওঠেন।
১৯১৯ সালে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে খেলাফত ও অসহযোগ আন্দোলনকালে আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ছিলেন এন্ট্রান্স বা আজকের এসএসসি পরীক্ষার্থী। মেধাবী ছাত্র হয়েও তিনি স্কুল ত্যাগ করেন ব্রিটিশের গোলামি বানানোর শিক্ষা বর্জনের ডাকে। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েন তিনি। ১৯২২ সালে উপমহাদেশে স্বাধীনতা-সংগ্রামের রক্তাক্ত অধ্যায় ঐতিহাসিক ‘সলঙ্গা বিদ্রোহে’ নেতৃত্ব দেন সেদিনের ২২ বছর বয়সের তরুণ বিপ্লবী আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ।

তার নেতৃত্বে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ সেদিন সলঙ্গা হাটে প্রতিবাদে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। ব্রিটিশ সরকারের পুলিশি নির্যাতনে মারাত্মক আহত হয়ে তিনি কারাবরণ করেন। পুলিশের নির্বিচার গুলিবর্ষণে সেদিন সলঙ্গা হাটে সরকারি হিসাবেই সাড়ে ৪ হাজার মানুষ হতাহত হন। ব্রিটিশ আমলে বাংলাদেশে ব্রিটিশবিরোধী সবচেয়ে বড় বিদ্রোহ ও আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ। ১৯২৩ সালে কারাগার থেকে মুক্ত হন তিনি। পরে উত্তরপ্রদেশের রায়বেরেলির বিখ্যাত দারুল উলুম মাদ্রাসায় আরবি শিক্ষায় মনোনিবেশ করেন। বাঙালি ছাত্রদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণের প্রতিবাদে তিনি সেই মাদ্রাসা ত্যাগ করে সাহারানপুর মাদ্রাসায় গিয়ে ভর্তি হন। পরে সুবিখ্যাত দেওবন্দ মাদ্রাসায় অধ্যয়ন করেন। পরে লাহোরের বিখ্যাত ইশায়াতুল ইসলাম কলেজে ভর্তি হন। এ কলেজে অধ্যয়নকালেই তিনি ভূষিত হন ‘তর্কবাগীশ’ উপাধিতে। এ সময় মহানবী (সা.)-এর বিরুদ্ধে রচিত অশ্লীল গ্রন্থ ‘রঙ্গিলা রসুল’ ও আডিয়া (আর্য) সমাজের শুদ্ধি অভিযানের বিরুদ্ধে মুসলমানদের সংগঠিত করে এক দুর্বার আন্দোলন গড়ে ওঠে। ভারতব্যাপী এই আন্দোলনের ফলে ব্রিটিশ সরকার রঙ্গিলা রসুল বাজেয়াপ্ত করে। বাংলার গরিব কৃষক সমাজকে জমিদারি-মহাজনী শোষণ-নিপীড়ন থেকে রক্ষার জন্য তার আন্তরিক কর্মপ্রচেষ্টার ফল ‘নিখিল বঙ্গ রায়ত খাতক সমিতি’। সর্বজন শ্রদ্ধেয় জাতীয় নেতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ছিলেন এই সমিতির সভাপতি এবং মাওলানা তর্কবাগীশ ছিলেন সাধারণ সম্পাদক।

দেশব্যাপী এই সমিতির ব্যাপক ও বলিষ্ঠ আন্দোলনের ফলেই গঠিত হয় ঐতিহাসিক ‘ঋণ সালিশি বোর্ড’। বিনা ক্ষতিপূরণে জমিদারি প্রথা উচ্ছেদ আন্দোলন মাওলানা তর্কবাগীশের অবদান; যা সফল হয়। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের জাতীয় পরিষদের প্রথম সভাপতি হিসেবে মাওলানা তর্কবাগীশ সর্বপ্রথম বাংলায় যে সংসদীয় কার্যপ্রণালি প্রবর্তন করেন তা আজও চালু আছে। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সরকার মাদ্রাসা শিক্ষা পুনরায় চালু করেন মাওলানা তর্কবাগীশের পরামর্শে। শুধু তাই নয়, মাদ্রাসা শিক্ষার উৎকর্ষ সাধনে তিনি রাখেন নজিরবিহীন ভূমিকা। বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের প্রথম চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি মাদ্রাসা শিক্ষাকে আধুনিক, বিজ্ঞানসম্মত ও বাস্তবোচিত রূপে গড়ে তোলেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশনেরও প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে ভূমিকা পালন করেন মাওলানা আবদুর রশীদ। ইসলামের প্রচার ও প্রসারের উদ্দেশ্যে এই জাতীয় প্রতিষ্ঠান যে সেবাদান করেছে ও করছে তারও গোড়াপত্তন করেন মাওলানা তর্কবাগীশ। রেডিওর বহির্বিশ্ব কার্যক্রমে আরবি অনুষ্ঠান প্রচারও শুরু হয় তারই উদ্যোগে। এ ছাড়া রেডিও এবং টেলিভিশনে কোরআন তিলাওয়াতের নিয়মও চালু করান তিনি। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর বঙ্গবন্ধু পরিষদ গঠন এবং সামরিক স্বৈরাশসক এরশাদের শাসনের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র কায়েমের সংগ্রামে তিনি যথাক্রমে ১০ ও ১৫ দল সংগঠনে ভূমিকা রাখেন।
জাতীয় নেতা আজীবন সংগ্রামী মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ১৯৮৬ সালের ২৩ আগস্ট ৮৭ বছর বয়সে ইন্তেকাল করেন। সন্তানসম বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে তার ভবিষ্যদ্বাণী সত্যি বলে প্রমাণিত হয়েছে। মৃত মুজিব জীবিত মুজিবের চেয়েও যে শক্তিশালী স্থান করে নিয়েছেন জনমনে তাতে কোনো দ্বিমতের অবকাশ নেই।

মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে ১৯৮০ এর দশকে বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ভারতীয় উপমহাদেশের বিশিষ্ট এ রাজনীতিবিদ ১৯৮৬ সালের এই দিনে ২০ আগস্ট ঢাকায় মারা যান।

১৯২২ সালে ব্রিটিশবিরোধী ঐতিহাসিক ‘সলংগা আন্দোলন’ এ নেতৃত্ব দেন, যার জন্য তাকে কারাভোগ করতে হয়৷ এ বিদ্রোহ ভারতীয় উপমহাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ‘রক্তসিঁড়ি’ হিসেবে পরিচিত৷ ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে জড়িয়ে পড়ায় তার এন্ট্রান্স পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা হয়নি৷ পরবর্তীকালে তিনি যুক্ত প্রদেশের বেরেলি ইশতুল উলুম মাদ্রাসা, সাহারানপুর মাদ্রাসা, দেওবন্দ মাদ্রাসা ও লাহোরের এশাতুল ইসলাম কলেজে পড়েন এবং তর্কশাস্ত্রে ডিগ্রি অর্জন করে তর্কবাগীশ উপাধিতে ভূষিত হন৷ ১৯৩৩ সালে নাটোরের চাঁচকৈড়ে নিখিলবঙ্গ রায়ত খাতক সম্মেলন আহ্বান করে ঋণ সালিশী বোর্ড আইন প্রণয়নের প্রস্তাব রাখেন৷ ১৯৩৭ সালে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে নাটোরে কৃষক সম্মেলন আহ্বান করেন৷

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ৷ ১৯৩৮ সালে সোহরাওয়ার্দীর সঙ্গে বাংলা, আসাম ও ভারতের বিভিন্ন স্থানে সাংগঠনিক কাজে আত্মনিয়োগ করেন তিনি৷ ১৯৪৬ সালে বঙ্গীয় আইন পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন৷ অবিভক্ত বাংলার এমএলএ হিসেবে তৎকালীন ব্যবস্থাপক পরিষদে পতিতাবৃত্তি নিরোধ, বাধ্যতামূলক অবৈতনিক প্রাথমিক শিক্ষা ও বিনা ক্ষতিপূরণে জমিদারী প্রথা উচ্ছেদের প্রস্তাব উত্থাপন করেন৷

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সভাপতিত্বে গঠিত ইউনাইটেড মুসলিম পার্টির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন তর্কবাগীশ৷ পরবর্তীকালে নিখিল ভারত মুসলিম লীগে যোগ দেন৷ তিনি ছিলেন পূর্ব পাকিস্তান কৃষক সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি৷ তর্কবাগীশ ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বাংলা ভাষার অধিকার আদায়ে সংগ্রামরত ছাত্র-জনতার উপর পুলিশী নির্যাতনের সংবাদ পেয়ে প্রাদেশিক পরিষদ থেকে বেরিয়ে এসে আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন৷ ২২ ফেব্রুয়ারি মুসলিম লীগ ত্যাগ করে প্রাদেশিক পরিষদে বিরোধী দল গঠন করেন এবং নুরুল আমিন সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনেন। ২৩ ফেব্রুয়ারি তাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়৷ আওয়ামী লীগের দলীয় সদস্য হিসেবে পাকিস্তান গণপরিষদে ১৯৫৫ সালের ১২ আগস্ট তিনিই প্রথম বাংলা ভাষায় বক্তৃতা করেন।

মাওলানা তর্কবাগীশ ১৯৫৬ থেকে ১৯৬৭ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন৷ ১৯৭০ সালের নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন৷

মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ অনেক বই লিখেছেন। উল্লেখযোগ্য হল— শেষ প্রেরিত নবী, সত্যার্থে ভ্রমণে, ইসলামের স্বর্ণযুগের ছিন্ন পৃষ্ঠা, সমকালীন জীবনবোধ, স্মৃতির সৈকতে আমি ও ইসমাইল হোসেন সিরাজী৷

স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে গৌরবোজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ আবদুর রশীদ তর্কবাগীশকে ‘স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার ২০০০’ (মরণোত্তর) প্রদান করা হয়৷ এ ছাড়া তার অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তার নামে কিছু প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে— নুরুন্নাহার তর্কবাগীশ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ (রায়গঞ্জ), চড়িয়া মাওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ বিজ্ঞান মাদ্রাসা (উল্লাপাড়া), পাটধারী মাওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ উচ্চ বিদ্যালয় (সলংগা, উল্লাপাড়া), মাওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ পাঠাগার ও মাওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ ফাউন্ডেশন।

আমাদের জাতির অহংকার মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশের আজ মৃত্যু বার্ষিক উপলক্ষে তাঁহার অমর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই । সেই সাথে মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে প্রার্থনা করি আল্লাহ তায়ালা যেন তাঁহাকে জান্নাতুল ফেরদৌসের মেহমান বানিয়ে নেন আমিন আমিন ছুম্মা– আমিন ।

লেখকঃ নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো | সাবেক কাউন্সিলরঃ বিএফইউজে-বাংলাদেশ |_ সদস্য ডিইউজে |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম