1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আশুলিয়ায় এনার্জি প্যাকের শ্রমিকদের ৭দফা দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:০৩ অপরাহ্ন

আশুলিয়ায় এনার্জি প্যাকের শ্রমিকদের ৭দফা দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি

মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী মানু,বিশেষ প্রতিবেদকঃ
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১২ বার

ঢাকা জেলা সাভারের আশুলিয়ায় একটি ট্রান্সমিটার তৈরির কারখানায় ৮৪জন শ্রমিককে কারখানায় প্রবেশ করতে বাধা দেওয়াসহ ৭দফা দাবিতে অবস্থান কর্মসূচিতে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা।

শনিবার (৪আগস্ট) সকাল ৯টারদিকে আশুলিয়ার বাড়ইপাড়া এলাকার এনার্জি প্যাক লিমিটেড কারখানার সামনেই শ্রমিকরা অবস্থান নেয়।

কারখানার শ্রমিকরা জানায়, ওই কারখানায় দীর্ঘদিন ধরে প্রায় ২ হাজার শ্রমিক কাজ করে আসছিল। কারখানা কর্তৃপক্ষ শ্রম আইনের তোয়াক্কা না করে খেয়াল খুশিমতো কারখানা পরিচালনা করেন। তারা বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট, অনিয়মিত ওভার টাইমের বিল, হাজিরা বোনাসসহ বিভিন্ন বিল বকেয়া রাখেন। দীর্ঘ ১৮ বছর একই বেতনে অনেকে চাকরি করছেন। শ্রমিকরা ইনক্রিমেন্টের দাবি জানালে ৮৪ জন শ্রমিককে ৫ আগস্ট থেকে কারখানায় প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। তাই আমরা সাত দফা দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছি।

সাত দফা দাবিগুলো হলো-বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট দিতে হবে, মাসের ওভার টাইম বিল সেই মাসেই দিতে হবে, বকেয়া ওভারটাইম বিল ও সাইড বিল পরিশোধ করতে হবে, বকেয়া প্রডাকশন বোনাস পরিশোধ করতে হবে, বাৎসরিক ছুটির টাকা এবং বকেয়া ছুটির টাকা পরিশোধ করতে হবে, মাসিক প্রডাকশন বোনাস যথাযথ সময়ে দিতে হবে, হাজিরা বোনাস দিতে হবে, কোনো শ্রমিক সাইডে কাজ করলে সাইড বিল সে মাসেই দিতে হবে।

শ্রমিক গোলাম মোস্তফা বলেন, আমি ১৮ বছর ধরে ওই কারখানায় কাজ করছি। আমি কারখানার ফোরম্যান হিসেবে কাজ করছিলাম। গত ৫ তারিখ আমাদের বেতনের সঙ্গে বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট দেওয়ার কথা ছিল। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলে মালিক অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। একইসঙ্গে পরের দুই দিন কারখানা বন্ধ রাখা হয়। কারখানা খোলার পর ইনক্রিমেন্ট চাওয়া শ্রমিকদের অনেককেই ফোন করে কারখানা যেতে নিষেধ করেন কর্তৃপক্ষ। আর যাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনি তাদের কারখানায় প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। বাধ্য হয়েই শ্রমিকরা আন্দোলনে নেমেছেন।

কারখানার মানবসম্পদ বিভাগের ব্যবস্থাপক ফারুক বলেন, গত ৫ তারিখে ওই শ্রমিকরা জিএমের অফিসের সামনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছিল। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে জড়িতদের আপাতত বাইরে রাখা হয়েছে। তবে তাদের এখনও চাকরি যায়নি। তারা সময়মতো বেতন পাবেন।

বাংলাদেশ বস্ত্র ও পোশাকশিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের সাভার আশুলিয়া ধামরাইয়ের আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় যুব কমিটির সভাপতি মো. আশিক সরকার বলেন, শ্রমিকদের কারখানায় প্রবেশ করতে না দেওয়া অমানবিক। শ্রমিকরা দাবি জানালেই তাদের শাস্তির আওতায় আনা হয়। এসব বন্ধ করে শ্রমিকদের দাবি মেনে নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম