1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
লালমনিরহাটে খুচরা মাছ ব্যবসায়ীর ছেলে নব্যকোটিপতি বিজিবি’র গরুর লাইনম্যানীর অন্তরালে হুন্ডী ও মাদক পাচার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
আজ রোববার লালমনিরহাট ও কালীগঞ্জ উপজেলার ১৭টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন নবীগঞ্জ উপজেলায় ১৩ টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন।। আজ নির্বাচন ৪৮ টি ঝুকিপূর্ন আশুলিয়ায় শাহাবুদ্দিন মাদবরের নির্বাচনী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম জেলা প‌রিষ‌দ টাওয়ারের মূল ভবন নির্মাণ কা‌জের উদ্বোধন রাউজানের সীমান্তবর্তী রাঙ্গামাটি জেলার কাউখালী উপজেলার ডাক্তার ছোলা এলাকায় পাহাড় কাটা হচ্ছে হাটহাজারীর ১৩ ইউনিয়ন পরিষদে ভোট কাল ধর্মপাশায় ৫ম ধাপে ১০টি ইউপিতে হবে নির্বাচন শ্রীনগরে জমি লিখে নিতে সাবেক ইউপি সদস্যের হুমকি” দেশের কোন আইন এই এলাকায় কিছু করতে পারবে না নাছির উদ্দীন এর জনমতে ঈর্ষান্বিত হয়ে তার পরিবারের উপর প্রতিপক্ষের হামলা মোবাইল চুরির অপবাদে বিবস্ত্র করে যুবককে নির্যাতন

লালমনিরহাটে খুচরা মাছ ব্যবসায়ীর ছেলে নব্যকোটিপতি বিজিবি’র গরুর লাইনম্যানীর অন্তরালে হুন্ডী ও মাদক পাচার

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবরে অভিযোগ

লাভলু শেখ স্টাফ রিপোর্টার লালমনিরহাট থেকে।
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩৭ বার

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবরে অভিযোগ, লালমনিরহাটে খুচরা মাছ ব্যবসায়ীর ছেলে নব্যকোটিপতি, বিজিবি’র গরুর লাইনম্যানীর অন্তরালে হুন্ডী ও মাদক পাচার দেখার যেন কেউ নেই। লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ৯নং আদর্শ গোতামারী ইউনিয়নের দইখাওয়া ৫নং ওয়ার্ডের বকতার হোসেনের ছেলে মোঃ মাইদুল ইসলাম, আজগার আলীর ছেলে মোঃ রবিউল ইসলাম ওরফে রবি ও ইয়াজ উদ্দিনের ছেলে মোঃ আমিনুর রহমান। দীর্ঘদিন ধরে চোরাকারবারীর মাধ্যমে অবৈধ অস্ত্র, হুন্ডী, ইয়াবা, গাঁজা, হিরোইন ও ফেনসিডিল এর ব্যবসা অব্যাহত রেখেছে। সামান্য খুচরা মাছ ব্যবসায়ীর ছেলে হয়ে হুন্ডীর মাধ্যমে ভারতে কোটি কোটি টাকা পাচার করে হুন্ডি ব্যবসা জমজমাটভাবে চালিয়ে যাচ্ছে। অপরদিকে দইখাওয়া বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডারের সাথে যোগসাজস করে ভারতের সীমান্ত দিয়ে অবৈধপথে প্রতিদিন ভারতীয় গরু পাচার করে আনছে। ওই হুন্ডী মাইদুল ইসলাম গং বিজিবি কমান্ডারের গরুর লাইনম্যানের অন্তরালে বিজিবির নজর ফাঁকি দিয়ে এসব অবৈধ কর্মকান্ড চালিয়ে আসলেও রহস্যজনক কারণে স্থানীয় প্রশাসন নীরব। ওই সিন্ডিকেটের হোতারা সরকারি দলের নাম ভাঙ্গিয়ে এবং সরকারের ইমেজ নষ্ট করে সীমান্ত পথে অবৈধ মাদকদ্রব্য পাচার করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করছে বলে প্রাপ্ত অভিযোগে জানা যায় এর ফলে যুবসমাজ আজ ধ্বংসের পথে। তাদের কারণে স্কুল-কলেজের ছাত্র ও উঠতি বয়সের যুবকরা নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িত হয়ে পড়ছেন। কিশোর অপরাধগুলো বৃদ্ধি পেয়েছে। অভিভাবক মহল খুবই উদ্বীগ্ন। ওই সিন্ডিকেটের চোরাকারবারীরা এ অবৈধ পথে জিরো থেকে হিরো হয়েছে। তারা খুবই ভয়ংকর ও বেপরোয়া এলাকাবাসী ভয়ে প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। খুচরা মাছ ব্যবসায়ী থেকে নব্যকোটিপতি বনে গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানান, মাইদুল ইসলাম এর দইখাওয়া বাজার প্রোপারে ৪৪ শতক জমি ক্রয় করে যাহার ১ শতক জমির মূল্য ৩ লক্ষ টাকা (৪৪ শতক জমির সর্বমোট মূল্য= ১ কোটি ৩২ লক্ষ টাকা), একই উপজেলার দইখাওয়া বাজার সংলগ্ন ৭.৫ শতক জমি যাহার মোটমূল্য ৪২ লক্ষ টাকা, দইখাওয়া বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন ৯৪ শতক জমির মোট মূল্য = ১ কোটি ৫ লক্ষ টাকা, তাহার কয়েকটি ব্যাংক এ্যাকাউন্টে স্ত্রীসহ তার নামে বিশাল অংকের টাকা জমা রয়েছে। যাহার ব্যাংক এ্যাকাউন্টগুলো জব্দ করা হলে সমস্ত টাকার হিসাব পাওয়া যাবে। তার বসত বাড়ি ২টি যাহার নির্মাণ কাজে ব্যয় হয়েছে ২ কোটি ৫ লক্ষ টাকা। অপরদিকে মাইদুল ইসলাম গং এর প্রায় ভারতীয় সীমকার্ড সহ ২০টি সীমকার্ড রয়েছে। যা জব্দ করা হলে কিংবা নাম্বার ট্যাগ করা হলে হুন্ডী ও অবৈধ চোরাকারবারীর সমস্ত তথ্য উদ্ঘাটন করা সম্ভব হবে। ওই সীমকার্ডগুলো নিজ নাম ও অন্য নামে উত্তোলণ পূর্বক ব্যবহার করে আসছে বলে জানা যায়। এছাড়া হুন্ডী ও চোরাকারবারী মোঃ রবিউল ইসলাম ওরফে রবির বিরুদ্ধেও চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে, সে কৃষি জমি ক্রয় করে ৩ একর যাহার মোটমূল্য ২ কোটি ৮৫ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা, তাহার বাড়ির পাশে আরও ১০ শতক জমি ক্রয় করে যাহার মোট মূল্য ১০ লক্ষ টাকা, বসত বাড়ি নির্মাণে ব্যয় করেছে ৫০ লক্ষ টাকা এবং ওই সিন্ডিকেটের হোতা মোঃ আমিনুর রহমান যাহার ১ একর ক্রয়কৃত জমি রয়েছে। যাহার আনুমানিক মোট মূল্য প্রায় ১ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা, তাহার বসত বাড়ি নির্মাণে ব্যয় করে প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা। উক্ত হুন্ডী ও চোরাকারবারী সেন্ডিকেটের হোতারা খুচরা মাছ ব্যবসায়ী থেকে মাত্র ২০১৯ সাল থেকে ২০২১ সালের মধ্যে কোন আয়ের উৎস থেকে এত বিশাল অংকের টাকার মালিক হলো যা খতিয়ে দেখার দাবী এলাকাবাসীর। লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ৯নং আদর্শ গোতামারী ইউনিয়নের দইখাওয়া ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত: আব্দুর রশিদের ছেলে মোঃ হারুন মিয়া ও একই এলাকার মোঃ আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে মোঃ মিজানুর রহমান সিন্ডিকেট হোতাদের বিরুদ্ধে স্থানীয় প্রশাসনের দপ্তরে একাধিকবার লিখিত অভিযোগ করে তেমন কোনো সুফল না পাওয়ায় তারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, চেয়ারম্যান, দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয় ১নং সেগুন বাগিচা ও ডি.আই.জি রংপুর রেঞ্জ রংপুর এবং অধিনায়ক র‌্যাব-১৩ রংপুরসহ বিভিন্ন প্রশাসন বরাবরে সমস্ত ডকুমেন্টসহ লিখিত অভিযোগ প্রেরণ করেছেন। অভিযুক্ত সিন্ডিকেট হোতা মাইদুল ইসলাম গং এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি উক্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন আমি দীর্ঘদিন ধরে বিজিবি’র গরুর লাইনম্যানীর কাজ করছি। এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম