1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
চৌদ্দগ্রামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাংচুর ও লুটপাট - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

চৌদ্দগ্রামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাংচুর ও লুটপাট

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৯ এপ্রিল, ২০২২
  • ১০৯ বার

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পূর্ব বিরোধের জেরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও একটি নবনির্মিত সেমি-পাকা বিল্ডিং ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে পাঁচ জনের নাম উল্লেখ করে চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপজেলার ঘোলপাশা ইউনিয়নের বাবুচি বাজারে।

থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে ভুক্তভোগি হাবিবুর রহমান উল্লেখ করেন, ভাংচুরকৃত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও সেমি-পাকা বিল্ডিং ঘরটি আমি পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া সম্পত্তির উপর নির্মাণ করেছি। বিবাদী সৈকত হোসেন, মাছুম বিল্লাহ, আবদুল মান্নানের সাথে সম্পত্তি নিয়ে পূর্ব বিরোধ চলে আসছে। শুক্রবার সকালে তাদের নেতৃত্বে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা বাজারে অবস্থিত মাইশা টিম্বার এন্ড স’মিলে হামলা চালিয়ে দোকানঘর ভাংচুর করে এবং দোকানে থাকা মূল্যবান ফার্ণিচারসহ মালামাল লুট করে নেয়। এ সময় তারা বিরোধকৃত সেমি-পাকা বিল্ডিংটির চারদিকের দেয়াল, দরজা-জানালা হ্যামার দিয়ে গুড়িয়ে দেয়। এছাড়া ফার্ণিচার দোকানের ক্যাশে রক্ষিত দুই লক্ষ টাকাসহ দামী ফার্ণিচার লুট করে নিয়ে যায়। এতে প্রতিষ্ঠানের প্রায় দশ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে হাবিবুর রহমান দাবী করেন।

বিবাদী সৈকত হোসেন বিষয়টি অস্বীকার করে বলেছেন, ভাংচুরের ঘটনা সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না।

এ ব্যাপারে ঘোলপাশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ কে খোকন বলেন, ভাংচুরের ঘটনাটি সত্য। আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। দুই পক্ষই আমার কাছে এসেছে। আমি উভয় পক্ষকে শান্ত থাকতে বলেছি এবং গ্রাম আদালতের মাধ্যমে বিষয়টি সুষ্ঠু সমাধানের আশ্বাস দিয়েছি।

এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শুভ রঞ্জন চাকমা বলেন, অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। সত্যতা প্রমাণিত হলে দোষিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম