1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৩২ ঘরের মধ্যে ২৬টি তালাবদ্ধ। - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৫২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে সীমান্ত হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে লাশের মিছিল ! নবীগঞ্জে শাখা বরাক বাঁচাতে পদযাত্রা পরিবেশ রক্ষায় নাগরিক আন্দোলনে এগিয়ে আসুন গাজীপুরে ১৫ ঘন্টায় তিনজনের আত্মহত্যা গাজীপুরে সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় শ্রমিকের মৃত্যু শ্রীপুরের বরমী থেকে একটি বিদেশি পিস্তল,১ রাউন্ড গুলি ও ১০০পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১ বাঁশখালীতে বেকারির শ্রমিক হত্যাকান্ডের আসামী মাহাবুব গ্রেপ্তার কুবিতে বিজ্ঞান উৎসব অনুষ্ঠিত। চৌদ্দগ্রামে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক এমপিকে মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা মাগুরায় সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ মাগুরায় শহিদ ও মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৩২ ঘরের মধ্যে ২৬টি তালাবদ্ধ।

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,,
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট, ২০২২
  • ১১২ বার

ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুরে ভূমিহীনদের জন্য সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৩২টি ঘরের মধ্যে ২৬টিই তালাবদ্ধ থাকে। এসব ঘরে তারা কেউ থাকেন না। যারা ঘর পেয়েছেন তাদের অনেকে বিত্তবান। তাদের নিজস্ব জমি ও বাড়ি আছে। প্রকৃত দরিদ্র ভূমিহীনরা ঘর পাননি এবং টাকা লেনদেনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক মাহাবুবর রহমান বলেন, অনিয়মের অভিযোগ পেয়েছি। হরিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিষয়টি তদন্ত করতে বলেছি। সত্যতা পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। হরিপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রাকিবুজ্জামান বলেন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ঘর দেওয়ার কথা বলে অর্থ লেনদেনের কথা শুনেছি। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবগত করেছি। ইউপি চেয়ারম্যান ও বকুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু তাহের বলেন, টাকা নেওয়ার বিষয়টি সঠিক নয়।

আমি কারও কাছ থেকে অর্থ নিইনি। জানা যায়, হরিপুর উপজেলার ৩ নং– বকুয়া ইউনিয়নে গোয়ালদিঘি গ্রামে ভূমিহীনদের জন্য সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্পে প্রথম ধাপে ২৬ ও দ্বিতীয় ধাপে ৬ টি ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়। অভিযোগ উঠেছে, ৩২টি ঘরের মধ্যে ২৬টি ঘরই দেওয়া হয়েছে সচ্ছল ব্যক্তিদের। প্রকৃত ভূমিহীনদের কাছে টাকা নিয়েও দেওয়া হচ্ছে না ঘর। ভুক্তভোগীরা প্রতিদিন চেয়ারম্যানের বাড়ি, ভূমি অফিস ও ইউএনওর অফিসে ধরনা দিচ্ছেন। এ বিষয়ে গত ২৬ জুলাই মানিক নামের এক ভুক্তভোগী টাকা নেওয়ার বিষয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ভুক্তভোগী আনোয়ার, মানিক সহ আরও অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর দেওয়ার কথা বলে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও তার লোক আমাদের কাছে প্রতি ঘরের জন্য ৭০ হাজার টাকা থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত নেন। কিন্তু আজও আমরা ঘর বুঝে পেলাম না। ঋণ ও গরু-ছাগল বিক্রি করে টাকা দিয়েছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম