1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মাগুরায় যুবলীগ নেতার আহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ যুবলীগের সংঘর্ষ! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:০০ অপরাহ্ন

মাগুরায় যুবলীগ নেতার আহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ যুবলীগের সংঘর্ষ!

মোঃ সাইফুল্লাহ ;
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৪ আগস্ট, ২০২২
  • ১১৬ বার

মাগুরার শ্রীপুরে ২৩ আগস্ট মঙ্গলবার রাতে যুবলীগ নেতা চান্দ আলি সরদার নামে একজন ইউপি সদস্য এবং তার অপর দুই ভাই সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে গুরুতর আহত ইউপি সদস্য চাদ আলীকে রাতেই ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

এদিকে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে রাত সাড়ে ১০ টার দিকে মাগুরা জেলা ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীরা শহরের ভায়নার মোড়ে মহাসড়কে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে। প্রায় এক ঘন্টা ধরে চলা এ অবরোধের ফলে সড়কের উভয় পাশে দূরপাল্লার শতশত যানবাহন আটকে পড়ে। এ অবস্থায় পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়ার চেষ্টা চালালে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মীদের সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়।
প্রত্যক্ষদর্শিরা জানান, ছাত্রলীগ-যুবলীগের শতশত কর্মী ভায়নার মোড় এলাকায় মাগুরা-ঝিনাইদহ এবং মাগুরা-ঢাকা মহা সড়কের উভয় পাশে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। তারা সড়কের উপর দাঁড়িয়ে চান্দ আলি সরদারের উপর হামলার ঘটনায় ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কুতুবুল্লাহ হোসেন মিয়া কুটি,র এবং তার সমর্থিতদের দায়ি করে অবিলম্বে তাদের গ্রেফতারের দাবি জানান। রাত সাড়ে ১১ টার দিকে বিক্ষোভ সমাবেশে মাগুরা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মীর মেহেদি হাসান রুবেল বক্তব্য রাখছিলেন এমন সময় পুলিশের তিনটি গাড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু বিক্ষোভরত ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মী উল্টো পুলিশকে লক্ষ্য ইট পাটকেল ছুড়তে থাকলে পুলিশ গাড়ি নিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করতে বাধ্য হয়। এ ঘটনার পর বিক্ষোভকারীরাও ঘটনাস্থল ত্যাগ করে মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালের গেটে অবস্থান নেয়। সে সময় সন্ত্রাসী হামলায় আহত ইউপি সদস্য চান্দ আলিকে দেখে হাসপাতাল থেকে বের হচ্ছিলেন মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর।
পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মীদের সংঘর্ষের বিষয়ে সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখরের কাছে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানান। তিনি হাসপাতালে আহত চান্দ আলিকে দেখতে সেখানে গিয়েছিলেন বলেও জানান।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, শ্রীপুর উপজেলার শ্রীকোল ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান মুতাসিম বিল্লাহ সংগ্রাম এবং এবারের ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী কাজী তারিকুল ইসলাম সমর্থিতদের মধ্যে বেশ কিছুদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। যার জেরে একাধিক হতাহত ও বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। উভয়ের মধ্যকার ওই বিরোধ মিমাংসার জন্যে মঙ্গলবার রাতে মাগুরা শহরে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বৈঠকের আয়োজন করা হয়। রাত ৯টার দিকে ওই বৈঠক শেষ করে কাজী তারিকুল ইসলামের সমর্থক যুবলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য চান্দ আলি তার বড় ভাই মাসুদ সরদারকে নিয়ে মটর সাইকেল যোগে শ্রীপুরে ছোনগাছা গ্রামের বাড়িতে ফিরছিলেন। রাত সাড়ে ৯টার দিকে পথে দোসতিনা গ্রামের মধ্যে ইসলামের দোকানের সামনে পৌঁছলে চান্দ আলি ও বড় ভাই মাসুদ সরদার সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ চান্দ আলি সরদার সমর্থিতরা ওই গ্রামে শ্রীকোল ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান কুতুবুল্লাহ হোসেন কুটি মিয়ার সমর্থক রইচ শেখে ও তার ভাই কাবিল শেখ এবং একই গ্রামের নায়েব আলী মন্ডল ও আসলাম খাঁনের বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় পালটা হামলায় আহত হন চান্দ আলি সরদারের আরেক ভাই উবায়দুর সরদার। গুরুতর জখম অবস্থায় তাকে মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
এ বিষয়ে শ্রীকোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কুতুবুল্লাহ হোসেন কুটি বলেন, শ্রীপুরের একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা যেটি সেখানকার সামাজিক বিরোধের জেরে। অথচ তার সঙ্গে আমার নাম জড়িয়ে মাগুরা শহরে অবরোধ আর বিক্ষোভের ঘটনা আমার বিরুদ্ধে সেখানকার একজন রাজনৈতিক নেতার অপরাজনীতি মাত্র।
অন্যদিকে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ-যুবলীগের সংঘর্ষের বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কলিমুল্লাহ বলেন, সংঘর্ষের কোনো ঘটনা ঘটেনি। তবে সড়ক অবরোধ করে রাখায় তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়েছে।
এ ঘটনায় শ্রীপুরের ছোনগাছা এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করলেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম