1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে মাল্টা চাষে কৃষকের ভাগ্য পরিবর্তন ! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৪১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
শ্রেণীকক্ষ সংকটে পাঠদান ব্যাহত, জরুরি ভিত্তিতে ভবন প্রয়োজন নোয়াখালীতে ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে জখম, প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর ও লুট দেশে মেডিকেল ডিভাইস তৈরি করলে তা সাধারণ মানুষের কাছে সহজলভ্য হবে’ -স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন নবীগঞ্জ শহরের রাজা কমপ্লেক্সে হামলা ভাংচুর ও ৪ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ! শহর রণক্ষেত্র- আহত অর্ধশতাধিক৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ৷ লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রী ভোগান্তির শিকার দেখার কেউ নেই। চৌদ্দগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ট্রাই সাইকেল বিতরণ চৌদ্দগ্রামের বাতিসায় জাতীয় পার্টির উদ্যোগে ইফতার সামগ্রী বিতরণ ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান হাবিবের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন ঠাকুরগাঁও জমে উঠেছে জেলা পরিষদ নির্বাচন ! মোঃ মজিবর রহমান শেখ,

ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে মাল্টা চাষে কৃষকের ভাগ্য পরিবর্তন !

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,,
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৭ অক্টোবর, ২০২২
  • ৮৯ বার

ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জে সবুজ মাল্টা চাষে সাফল্য অর্জন করেছেন আব্দুর রহমান নামে এক চাষি। ভালো ফলনের পাশাপাশি কাঙ্ক্ষিত দাম পেয়ে লাভবান হচ্ছেন তিনি। মাল্টা চাষে সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছে কৃষি বিভাগ। ছোট বড় সব গাছগুলোর প্রতিটি শাখাজুড়ে সবুজ মাল্টার সমাহার। প্রতিটি পাতার নিচে লুকিয়ে আছে শত শত ফল। দেখতে কাঁচা মনে হলেও বেশ সুমিষ্ট ও রসালো সবুজ মাল্টা। কোনো ধরনের রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ছাড়াই চাষ হয়েছে। গাছের পরিচর্যায় ব্যবহার হয়েছে জৈব সার।

২০১৯ সালে পীরগঞ্জ উপজেলার চন্দ্ররিয়া গ্রামের আব্দুর রহমান বাড়ির পাশের শুকান দীঘি নামক জায়গায় ২৩ বিঘা জমিতে ৪২’ শত বারী-১ জাতের চারা দিয়ে সবুজ মাল্টা চাষ শুরু করেন। পরের বছর থেকেই এই গাছগুলোতে নিয়মিত ফলন আসছে। বিগত বছরের চেয়ে এবার ফলন আরো ভালো হয়েছে।

আব্দুর রহমান বলেন, ‘অন্য জেলা থেকে মানুষ এসে বাগান দেখে চারা নিয়ে যায়। এত চাহিদা থাকে আমার পক্ষে পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলন বেশ ভালো হয়েছে। দাম ভালো পেলে ৩০ থেকে ৩৫ লাখ টাকা বিক্রি করতে পারবো।’আব্দুর রহমানের সাফল্যে সবুজ মাল্টা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন স্থানীয় যুবকরাও। তারা বলেন, এখানে সাফল্যের পর দেখাদেখি অনেক ছোট খাটো বাগান গড়ে উঠেছে। তারাও সাফল্যের পথে হাঁটছে। সুমন নামে এক কৃষক বলেন, মাল্টা চাষকে আরো প্রসারিত করতে সব ধরনের পরামর্শ ও সহযোগিতা দিচ্ছে কৃষি বিভাগ। পীরগঞ্জ উপজেলার তাজপুর গ্রামের শিক্ষক জাকারিয়া হোসেন বলেন, ‘রহমানের বাগান দেখে খুব ভালো লাগলো আমিও মাল্টার বাগান করবো।‘ এবার বাগানের রক্ষণাবেক্ষণ ও গাছ পরিচর্যায় আব্দুর রহমানের খরচ হয়েছে সাত লাখ টাকা। ঐ বাগানের ১৪ শত মণ মাল্টা বিক্রি করে ৩৫ লাখ টাকারও বেশি আয় করার আশা তার।

পীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাজেন্দ্র নাথ রায় বলেন, ’আব্দুর রহমানের মাল্টা বাগানে বেশ ভালো ফলন হয়েছে। আমরা যতটুকু পরামর্শ ও সহযোগিতা করার করছি। প্রত্যেক গাছেই ভালো ফল এসেছে। তিনি কৃষি বিভাগের সকল পরামর্শ মেনে চলছেন। আশা করি তিনি সাফল্য অর্জন করবেন।’

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম