1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মৃত্য শিক্ষা ব্যবস্থা ও আমাদের দায়। - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৫:০১ অপরাহ্ন

মৃত্য শিক্ষা ব্যবস্থা ও আমাদের দায়।

নেহাল আহমেদ, কবি ও সাংবাদিক
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৭ অক্টোবর, ২০২২
  • ৩৮ বার

আমার এক বন্ধু আমাদের সাথে ক্লাস ফাইভ পর্যন্ত পড়ালেখা করেছে। অভাবে আর এগুতে পারে নাই।শেষমেষ বাবার সাথে তরকারী দোকান করতো।আমরা যারা স্কুল শেষ করে কলেজে গেছি। কিংবা যারা ডিগ্রি পরীক্ষায় উত্তীর্ন হয়েছে।তাদের ভাব থাকলেও অভাব ছাড়েনি। কেহ কেহ হয়তো কষ্টে সৃষ্টে একটা চাকুরী যোগাতে পেরেছে।কেহ অন্যপথ বেছে নিয়ে জীবন পার করছে।অথচ যারা মোটর ম্যাকানিজের কাছ শিখেছে অথবা ডাক্তার অথবা ইন্জিনিয়ার হয়েছে তারা বেশ সুখেই আছে।আমার সেই বাল্যবন্ধু যে অভাবে আর এগুতে পারেনি তার সাথে প্রায়ই দেখা হয়।পড়াশুনা না করার জন্য দুঃখ করে। কিন্ত ভালো আছে বলতে দ্বিধা করে না।প্রতিদিন খরচ বাদে দুই হাজার টাকা বৌয়ের হাতে দিতে পারে।

কেন যেন হঠাৎ সুকুমার রায়ের জীবনের হিসাব কবিতাটা মনে পড়ে গেলো খানিক বাদে ঝড় উঠেছে, ঢেউ উঠেছে ফুলে,
বাবু দেখেন, নৌকাখানি ডুবলো বুঝি দুলে!
মাঝিরে কন, ” একি আপদ! ওরে ও ভাই মাঝি,
ডুবলো নাকি নৌকা এবার? মরব নাকি আজি?”
মাঝি শুধায়, ”সাঁতার জানো?”- মাথা নাড়েন বাবু,
মূর্খ মাঝি বলে, ”মশাই, এখন কেন কাবু?
বাঁচলে শেষে আমার কথা হিসেব করো পিছে,
তোমার দেখি জীবন খানা ষোল আনাই মিছে!”
বিপুলসংখ্যক সুনাগরিক বিচ্ছিন্নভাবে তৈরি হয় না। রাষ্ট্রীয়ভাবে সুনাগরিক তৈরির প্রক্রিয়াকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে হয়, যা শুরু হয় প্রাথমিক স্তর থেকেই। স্নাতক বা স্নাতকোত্তর স্তরের শিক্ষার্থীরা জ্ঞান বা দক্ষতা অর্জন করে; সহজাত সৎ প্রবৃত্তি গড়ে না। এটা শৈশবে গঠিত হয়। তাই প্রাতিষ্ঠানিকভাবে সদ্‌গুণাবলির চর্চাকে দৈনন্দিন অভ্যাসে পরিণত করার উদ্যোগ এ স্তরেই গ্রহণ করতে হবে।

শিক্ষা ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সমস্যা, সংকট, সম্ভাবনা ও সামর্থ্যকে মাথায় রেখে বাংলাদেশি নাগরিকের কী কী সদ্‌গুণাবলি অর্জন করা উচিত, যা তার দৈনন্দিন অভ্যাসের অংশ হওয়া উচিত, তার কোনো সুপরিকল্পিত ব্যাপক গবেষণা বাংলাদেশে হয়নি। বাংলাদেশি একজন শিক্ষার্থী যেন সুস্থ, দক্ষ, বিনয়ী, মানবিক ও বিবেকবান হয়ে ওঠে, তার জন্য কোনো কিছু কি আমরা পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করেছি? আমরা সুকুমার রায়ের ‘জীবনের হিসাব’ কবিতার মতো শহুরে বাবু তৈরি করছি, যাদের অনেক কেতাবি জ্ঞান আছে, কিন্তু কাজের বেলায় অথর্ব।যতটুকু জানি জাপানে শিশুকে তার ক্যাচমেন্ট এরিয়ার স্কুলে ভর্তি হওয়া বাধ্যতামূলক। অভিভাবক যতই প্রভাবশালী হোক না কেন, ক্যাচমেন্ট এরিয়ার বাইরে শিশুকে ভর্তি করানো যাবে না।

সরকারি স্কুলের সব শিশুকে পায়ে হেঁটে স্কুলে যেতে হয়। সাইকেলও ব্যবহার করা যাবে না। এখান থেকে একজন শিশুর মনে সমতা ও সাম্যের ধারণা গেঁথে যায়। শরীর সুস্থ রাখার জন্য শারীরিক পরিশ্রমের প্রাথমিক অভ্যাসটিও গড়ে ওঠে। পাঠ্যবইয়ের জ্ঞানচর্চার পাশাপাশি সঠিকভাবে নিজের জুতা-মোজা পরা, দাঁত ব্রাশ করা, নিজের কাপড়চোপড় ও বাসনকোসন নিজে পরিষ্কার করা, ব্যাগ ও বই ঠিক জায়গায় গুছিয়ে রাখা, রান্না শেখা, মেহমানের সঙ্গে সঠিক সামাজিক আচরণ করা, পরোপকার করা, প্রতিদিন নিয়মিত খেলাধুলা করা, সঠিক নিয়মে রাস্তাঘাটে চলা, প্রতিবার খাবার গ্রহণের আগে তার প্রস্তুতকারী ও উৎপাদনকারীকে কৃতজ্ঞচিত্তে ধন্যবাদ জানানো, টয়লেট থেকে শুরু করে পুরো স্কুল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা, চাষবাস শেখা ইত্যাদি নানা ধরনের কাজ শিশুদের শেখানো হয়, যা বাস্তব জীবনে কোনো না কোনো সময়ে কাজে লাগে। শিক্ষার্থীদের পাঠের প্রতি প্রকৃত আগ্রহ জাগিয়ে তোলার জন্য প্রতিটা ক্লাসের আগে সেটা শেখা কেন প্রয়োজন, তা বুঝিয়ে বলা হয়।

আমাদের দেশে শিক্ষা ব্যবস্থা কেন তেমন নয়? কয়েকদিন আগে বাংলাদেশের গুরুত্বট একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহজ পাঠের ছাত্রছাত্রী রাজবাড়ী এসে ঘুরে গেলো। তাদের পড়ার ধরণ,ক্যারিকুলাম দেখে আমার নিজের বাচ্চার জন্য মাথা হেঁট হয়ে গেলো।তারা তাদের স্কুলের বাচ্চাদের কে যেকোনো পরিবেশে যেন টিকে থাকতে পারে, যেকোনো পরিবেশের সঙ্গে যেন মানিয়ে চলতে পারে, ভয় ও জড়তা মুক্তভাবে যাতে গড়ে উঠতে পারে, এমনভাবে গড়ে তোলা সে ভাবে শিক্ষা দিচ্ছে। গৎবাঁধা পড়াশোনার বাইরে এ ধরনের পড়াশোনা শিশুদের কে সৃজনশীল করে তুলতে পারে । আর আমার বাচ্চাকে সরকার কি ভাবে গড়ে তুলছে।এখন স্কুলে কোন শিক্ষার্থী নেই।সবাই পরীক্ষার্থী।আগে গাইউ বই কাকে বলে আমরা জানতাম না। এখন টু ক্লাসের জন্য গাইউ বই কিনতে হয়।
নেহাল আহমেদ
কবি ও সাংবাদিক

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম