1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
নবীগঞ্জে বিলুপ্তির পথে বাঁশ-বেতের কুটির শিল্পের চাহিদা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৫১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে সীমান্ত হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে লাশের মিছিল ! নবীগঞ্জে শাখা বরাক বাঁচাতে পদযাত্রা পরিবেশ রক্ষায় নাগরিক আন্দোলনে এগিয়ে আসুন গাজীপুরে ১৫ ঘন্টায় তিনজনের আত্মহত্যা গাজীপুরে সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় শ্রমিকের মৃত্যু শ্রীপুরের বরমী থেকে একটি বিদেশি পিস্তল,১ রাউন্ড গুলি ও ১০০পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১ বাঁশখালীতে বেকারির শ্রমিক হত্যাকান্ডের আসামী মাহাবুব গ্রেপ্তার কুবিতে বিজ্ঞান উৎসব অনুষ্ঠিত। চৌদ্দগ্রামে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক এমপিকে মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা মাগুরায় সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ মাগুরায় শহিদ ও মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

নবীগঞ্জে বিলুপ্তির পথে বাঁশ-বেতের কুটির শিল্পের চাহিদা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৫ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৫৭ বার

হাবিবুর রহমান চৌধুরী শামীম,
নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) থেকে।

আধুনিকতার ছোঁয়ায় বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী বাঁশ ও বেত শিল্প। বাঁশ ও বেতের তৈরি পণ্যের কদর এখন আর নেই বললেই চলে। একসময় গ্রামীণ জনপদের মানুষ গৃহস্থালি, অফিস-আদালতসহ সবখানেই বাঁশ ও বেত সামগ্রী ব্যবহার করতো। বাঁশ ও বেতের তৈরি ফলদানি, ঝুড়ি, বিউটি বক্স, কসমেটিক্স বক্স, চায়ের ট্রে, বিয়ের ঢালা, কুলা, কলমদানি, চেয়ার, বইয়ের শেলফসহ বিভিন্ন নান্দনিক ও টেকসই পণ্যের জায়গা দখল করে নিয়েছে স্বল্প দামের প্লাস্টিক ও লৌহ্যজাত সামগ্রী। বর্তমানে বাঁশ-বেত সামগ্রীর প্রসার কমে যাওয়ায় ভালো নেই এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত কারিগররা। তবুও বাপ-দাদার এই পেশাকে এখনও ধরে রেখেছে কিছু সংখ্যক পরিবার। দিন দিন বিভিন্ন জিনিস-পত্রের মূল্য বাড়লেও তুলনা দিয়ে বাড়ছে না এই শিল্পের কদর বা মূল্য। যার কারণে কারিগররা জীবন সংসারে টিকে থাকতে হিমশিম খাচ্ছেন।নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্লাস্টিক সামগ্রীর কদর দিন দিন বেড়ে যাওয়ায় বাঁশ-বেতের কুটির শিল্পের চাহিদা এখন আর নেই। তা ছাড়াও এ শিল্পের কাঁচামাল বাঁশ ও বেত এখন আর সহজলভ্য নয় । বাজারগুলো দখল করেছে প্লাস্টিক ও এ্যালুম্যানিয়াম। দেখা মিলে না আর বাঁশ ঝাড়। তা ছাড়া পণ্য টেকসই ও স্বল্পমূল্যে পাওয়ায় সাধারণ মানুষের চোখ মেলামাইন ও প্লাস্টিক সামগ্রীর ওপর। জীবিকার তাগিদে বাঁশ ও বেতের তৈরি বিভিন্ন ধরনের পণ্য বিক্রির জন্য বাজারে এসেছেন কারিগররা। তবে অনেকে আবার অভাবের তাড়নায় বাপ-দাদার পেশা ছেড়ে অন্য পেশার দিকে ছুটছে। তবে শত অভাব অনটনের মধ্যেও হাতে গোনা কয়েকটি পরিবার আজও পৈতৃক এই পেশাটি ধরে রেখেছেন।নবীগঞ্জ হাটে আসা কারিগর আতাউল মিয়া বলেন, আমরা নিজেরাই বাঁশ ও বেতের তৈরি বিভিন্ন পণ্য হাটে গিয়ে বিক্রি করতে যেতাম। এটা আমাদের আদি পেশা। এখন আগের মতো লাভ নেই। তবুও আমরা বাপ দাদার পেশাকে টিকিয়ে রাখতে কাজ করছি। বাঁশের দাম বেড়ে যাওয়ায় এখন টিকে থাকতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। লাভ কম হলেও এ পেশায়ই বেঁচে থাকতে চাই।নবীগঞ্জ উপজেলার অনেক কৃষকই বলেন, বর্তমানে স্বল্প দামে প্লাস্টিক সামগ্রী পাওয়ায় কুটির শিল্পের চাহিদা আর তেমন নেই। তাছাড়াও দুষ্প্রাপ্য হয়ে পড়েছে এ শিল্পের কাঁচামাল বাঁশ ও বেত। এখন আর আগের মতো বাড়ির আশেপাশে বাঁশ ও বেত গাছ রাখছে না কেউ। সেগুলো কেটে বিভিন্ন চাষাবাদসহ ঘরবাড়ি তৈরি করছে মানুষ। তাই কাঁচামাল আর আগের মতো সহজে পাওয়া যায় না। তাইতো এ শিল্পের কোন ভবিষ্যত দেখছি না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম