1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
দেড়শত বছরের পুরানো ঐতিহ্যবাহী কালাচাঁন চৌধুরী হাটে নেই জৌলুশ -বাজার শেঠে ফার্নিচারের দোকান - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

দেড়শত বছরের পুরানো ঐতিহ্যবাহী কালাচাঁন চৌধুরী হাটে নেই জৌলুশ -বাজার শেঠে ফার্নিচারের দোকান

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই, ২০২৪
  • ১১৩ বার

রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:

রাউজানের দেড়শত বছর আগে গড়ে উঠে ঐতিহ্যবাহী গহিরা-কালাচাঁন চৌধুরী হাট।তৎকালীন ব্রিটিশ শাসন আমলে চিকদাইর ইউনিয়নের গহিরা গ্রামের জমিদার কালাচাঁন চৌধুরী বাজারটি প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য উত্তর চট্টগ্রামের মানুষের কাছে এ বাজার ছিল বিখ্যাত। প্রতি সপ্তাহে বুধ-রবিবার দুই দিন বসত এই হাট। দূর-দূরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা এই হাটে বিক্রির জন্য নিয়ে আসতো শাক-সবজি ও মাছ,মাংসসহ অন্য পণ্য ইত্যাদি!। চট্টগ্রাম শহরসহ দূর-দূরান্ত থেকে আসা ব্যবসায়ী, ক্রেতা- বিক্রেতার পদচারণায় মুখর থাকতো এই কালাচাঁন চৌধুরী হাট। অদূরে শুনা যেতো বাজারে আসা মানুষের শব্দ। কিন্তু এখন আর আগের মতো নেই সেই প্রাণচাঞ্চল্য হাটটি।হারিয়ে গেছে কালাচাঁন চৌধুরী হাটের ঐতিহ্য। এখন সেখানে গড়ে উঠেছে কাঠের বাজার। কাঠ ব্যবসায়ীরা সর্তাখাল দিয়ে বাঁশের ভেলার সাথে ভাসিয়ে প্রতিদিন বিপুল পরিমান কাঠ গহিরা কালাচাঁন চৌধুরী হাটে এনে আট- দশটি করাত কলে স্তুৃপ করে রাখার কারণে এই হাটের ঐতিহ্য হারিয়ে গেছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। কাঠ স্তূপ করে রাখায় মানুষের হাঁটাচলা এবং কাঁচাবাজার বসার কোন জায়গায় নেই। তবে ২০১৩ সালে সরকারিভাবে বাজার শেঠ নির্মাণ করে দিলেও মিলে না কালাচাঁন চৌধুরী হাট। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, একজন সবজি ব্যবসায়ী বিক্রি করছে সবজি।আর কোনো সবজি বিক্রেতাকে দেখা যায়নি।সরকারিভাবে নির্মাণ করা বাজার শেঠ এখন ফার্নিচারের দোকান। মোহাম্মদ সালাউদ্দিন নামের স্থানীয় একজন জানান,একসময় এ হাটটি সরকারিভাবে লাখ টাকার ডাক হতো।এখন কেউ ডাক নেন না। স্থানীয়রা হাটের জায়গা দখল করে বাজার শেঠে গড়ে তুলেছে ফার্নিচারের দোকান ও কাঠ ব্যবসায়ীদের কাঠের বাজার। ফলে হাটের পরিবেশ নষ্ট হয়েছে। তাই উত্তর চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী এই হাটটি আগের মতো মিলে না।হারিয়ে গেছে এ বাজারের জৌলুস।


চিকদাইর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রিয়তোষ চৌধুরী বলেন,একসময় কালাচাঁন চৌধুরী হাট উত্তর চট্টগ্রামের বিখ্যাত বাজার ছিল। কী কারণে এই বাজারের জৌলুস চলে গেছে জানিনা। তবে কালাচাঁন চৌধুরী হাটের
ঐতিহ্য ফিরে আনতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম