1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
বিশ্বব্যাপি করোনা ভাইরাস থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য করণীয় ও বর্জনীয় - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন

বিশ্বব্যাপি করোনা ভাইরাস থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য করণীয় ও বর্জনীয়

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৩ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৭৯ বার

মুহাম্মদ রুহুল কুদুস আনোয়ারী আল-আযহারী:: করোনা একধরনের সংক্রামক ভাইরাস। কোন জনপদের মানুষ নিজেদের কৃতকর্মের গুনাহ ক্ষমা চাইলে সেখানে আল্লাহর গজব আসতে পারেনা। এটা আল্লাহর তাআলার ওয়াদা। তাই করোনা ভাইরাসকে ভয় না করে আল্লাহকে ভয় করুন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনা ভাইরাসের বিস্তৃতির পরিস্থিতিকে বৈশ্বিক মহামারী ঘোষণা করেছেন। আমাদের মনে রাখা দরকার; বিপদ-আপদ আল্লাহর পক্ষ থেকে আসে। আর আল্লাহ তা নিরাময় করেন। মহান আল্লাহ ঘোষণা করেছেন: তারা হচ্ছে ঐ সকল লোক; যখন তাদের মুমিনদের ওপর কোন মসিবত আপতিত হয় তখন বলে, আমরা আল্লাহরই জন্য এবং আমরা তার দিকে ফিরে যাবো (সুরা আল বাক্বারা ১৫৬ আয়াত)। সব পাপ কাজ ছেড়ে দিয়ে আল্লাহর কাছে তাওবাহ করা দরকার। ঐ জাতিকে আল্লাহর গজব দিয়ে কোনদিন ধ্বংস করেননা; যে জাতি আল্লাহর কাছে ধরনা দিয়ে মাগফিরাত কামনা করে নিজের গুনাহের ক্ষমা প্রার্থনা করেন। তাই করোনা ভাইরাসকে নিয়ে আতংকিত না হয়ে দেশবাসীকে মহান আল্লাহর কাছে মাগফিরাত কামনা করার অনুরোধ জানাচ্ছি। পবিত্র কুরআন শরীফের সুরা আনফালের ৩৩নং আয়াতে উল্লেখ আছে; আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেন, কোন জাতিকে ধ্বংস করেনা, কোন গজব দেননা, যতক্ষণ তারা আল্লাহর কাছে মাগফিরাত কামনা করতে থাকে। তবে করোনা ভাইরাস আল্লাহর মাগফিরাত ও রহমতের তুলনায় বড়কিছু নয়। সুরা শুরা’র ৩০নং আয়াতে আল্লাহ তাআলা বলেন, তোমাদের ওপর যা বালা-মুসিবত আসে তা তোমাদের কর্মফল। আর অনেক অপরাধতো তিনিই ক্ষমা করে দেন। যখন অন্যায়, অবিচার, জুলুম, অশ্লীলতা, নগ্নতা, পাপাচার বেড়ে যায়; তখন আল্লাহর রহমত পৃথিবী থেকে উঠে যায়। আল্লাহর তাআলা তখন নানান বিপর্যয় দিয়ে মানুষকে সতর্ক করেন।

করোনা ভাইরাস যেভাবে ছড়াতে পারে:
১. পশু পাখি বা গবাদি পশুর মাধ্যমে।
২. বায়ু কণার মাধ্যমে।
৩. আক্রান্ত ব্যাক্তির হাঁচি-কাশির মাধ্যমে।
৪. ভাইরাস আছে এমন কিছু স্পর্শ পেলে, হাত না ধুয়ে নাকে, মুখে বা চোখে লাগলে।

করোনা ভাইরাসের লক্ষণ:
১. মারাত্মক পর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে যাওয়া।
২. ফুসফুস ও কিডনি অকেজো হয়ে যেতে পারে।
৩. সর্দি, কাশি, গলা ব্যথা, মাথাব্যথা, শিশু ও বয়স্কদের ক্ষেত্রে নিউমোনিয়া।
৪. অবসাদ, শ্বাসকষ্ট।
প্রতিরোধের উপায়:
১. সাবান পানি অথবা হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে উভয় হাত ধোয়া।
২. হাঁচি বা কাশি দেওয়ার সময় অবশ্যই টিস্যু দিয়ে মুখ ঢেকে রাখা।
৩. ডিম, মাছ, মাংস ভালভাবে রান্না করে খাওয়া।
৪. অসুস্থ পশুপাখি সংস্পর্শে না আসা।
৫. মুখে মাক্স ব্যবহার করা।
৬. প্রচুর ফলের অথবা পর্যাপ্ত পানি পান করা।
৭. বন্য অথবা ফার্মের গবাদি পশুর সংস্পর্শ এড়িয়ে চলা।
৮. ঠান্ডা লেগেছে বা কাশি হয়েছে, এমন রোগীদের সংস্পর্শে সতর্ক থাকা।
দেশের জনগণ যাতে সুষ্ঠু ও রোগী-ব্যাধি থেকে নিরাপদ জীবনযাপন করতে পারে সরকারের সাথে সবাইকে সতর্কমূলক ভূমিকা পালন করতে হবে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের উপকরণসমূহ সহজ করার জন্য সরকারকে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। করোনা মোকাবেলায় সরকারি ও বেসরকারিভাবে নি¤েœাক্ত পদক্ষেপসমূহ দ্রুত কার্যকর করা জরুরী।
১. বাংলাদেশের সকল মসজিদে জুমার নামাযের আগে এবং সভা-সেমিনারের মাধ্যমে জনগণকে করোনা বিষয়ে সচেতন করা।
২. প্রতিটি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় সরাঞ্জামাদি ব্যবস্থা করা।
৩. আক্রান্ত রোগীদের সূলভে চিকিৎসা সামগ্রী নিশ্চিত করা।
৪. আক্রান্তদের বিনামূল্যে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা।
৫. রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন এবং বিত্তবান ব্যক্তিদের আক্রান্ত রোগী ও তার পরিবারের পাশে দাঁড়ানো।

করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য সরকারের সতর্কতামূলক কর্মসূচির পাশাপাশি আমাদেরকে সব ধরনের পাপ কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে। আল্লাহর কাছে নিজেদের ভূল-ত্রুটি ও গোনাহের জন্য মাগফিরাত চাইতে হবে। ঘরে ঘরে, অফিস আদালতে সব জায়গায় কোরআন তেলাওয়াতের ব্যবস্থা করতে হবে। করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য চীনে বন্ধ মসজিদে খুলে দেয়া হচ্ছে। আর মুসলিম দেশ সমূহে মসজিদে নামাজ পড়তে বাঁধা দেয়া হচ্ছে। সৌদি আরবে, আল্লাহর ঘরে এবং মসজিদে নববীতে আদায় করতে দেয়া হচ্ছেনা। এটা খুবই দুঃখজনক। বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে মসজিদসমূহ বন্ধ না করে সেখানে বেশি করে নামাজ দোয়ার ব্যবস্থা করা দরকার। আল্লাহর গজব নাজিল হয় এমন সব কাজকাম ব্যক্তিগত ও সরকারিভাবে পরিহারকরতে হবে। জুলুম, অত্যাচার, মদ্যপান, দেহব্যবসা, নগ্নতা, অশ্লীলতা, নাচ-গান, বাদ্যযন্ত্র বন্ধ করে কোরআনের সম্প্রচার বাড়াতে হবে। জনগণকে সৎ কাজের প্রতি উৎসাহিত করে সবধরনের পাপাচার থেকে বিরত রাখার ব্যবস্থা করতে হবে। ওয়াজ মাহফিল ও দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে গোটা জাতিকে তাওবায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে। মহামারি থেকে বাঁচার জন্য রাসুল (সাঃ) বলেছেন, কোথাও মহামারী দেখা দিলে এবং সেখানে তোমরা অবস্থানরত থাকলে সেই জায়গা হতে চলে এসো না। অপরদিকে কোন এলাকায় এটা দেখা দিলে এবং সেখানে তোমরা অবস্থান না করলে সেই জায়গাতে যেয়ো না (তিরমিজী হাদীস ১০৬৫)। মহামারী থেকে বাঁচার জন্যে রাসুল (সাঃ) যে দোয়াটি পড়তেন; দেশবাসীকে তা বেশি বেশি পড়তে হবে। ‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আউযুবিকা মিনাল বারাছি ওয়াল জুনুনি ওয়াল জুযামি ওয়ামিন সায়্যিইল আসক্বাম’। অর্থ: হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে আশ্রয় চাই শ্বেত, উন্মাদনা, কুষ্ঠ এবং সমস্ত দূরারোগ্য ব্যধি হতে (সুনানে আবু দাউদ হাদিস-১৫৫৪)।

লেখক:
সভাপতি- বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতি
চকরিয়া উপজেলা শাখা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম