নৈরাজ্যের মধ্যে বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট ঘোষণা - শ্যামল বাংলা ডট নেট

নৈরাজ্যের মধ্যে বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট ঘোষণা

সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

পাশ্চাত্য গণতন্ত্রের মডেল হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশের কাছে অনুসরণীয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে দেশটি বিশ্বব্যাপী গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিচ্ছে এবং আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে গণতন্ত্রের বিকাশে সহায়তা করছে। আমরা যুক্তরাষ্ট্রে গণতন্ত্রের মূল্যবোধ ও ঐতিহ্য নিয়ে গর্ববোধ করতাম। আমরা কখনো চাই না গণতন্ত্রের দুর্গ ভেঙ্গে পড়–ক। সব দেশের গণতন্ত্রে কিছু কিছু দোষ ও দুর্বলতা আছে। পররাষ্ট্রনীতিতে আগ্রাসী হলেও যুক্তরাষ্ট্র অভ্যন্তরীণভাবে উত্তম গণতান্ত্রিক আদর্শ অনুসরণ করে বিশেষ করে নির্বাচন ও ক্ষমতা হস্তান্তরে। কিন্তু বিদায়ী রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের শত শত বছরের গণতান্ত্রিক ঐতিহ্যকে ধুলোয় মিশিয়ে দিয়েছেন। ক্ষমতার প্রতি তার সীমাহীন লোভ তৃতীয় বিশ্বের একনায়কদের অতিক্রম করেছে। তিনি বিশ্বের একটি শ্রেষ্ঠ জাতির মাথা হেট করে দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ২০০ বছরের ইতিহাসে এক কলঙ্কময় অধ্যায় রচিত হলো। এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে দেশটিকে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হবে।

নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বাইডেনের ডেমোক্র্যাটিক পার্টি জর্জিয়ার দুটি আসনে কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে যায়। আর ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমল থেকে কংগ্রেসের নি¤œকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে ডেমোক্র্যাটদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছিল। এই আবহে ইলেক্টোরাল কলেজের ৫৩৮টি ভোটের মধ্যে ৩০৬টিতে বিজয়ী বাইডেনের অনুমোদন পাওয়ার বিষয়টি ছিল অনিবার্য।
২০২০ সালের ৭ জানুয়ারি মার্কিন কংগ্রেস রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের মধ্যে জো বাইডেনকে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে অনুমোদন দেয়। ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে কমলা হ্যারিসের বিজয়কেও আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। ২০১৯ সালের ৩ নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরাজিত রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প কংগ্রেসের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে বলেছেন, ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ২০২১ সালের ২০ জানুয়ারি নিয়ম মেনেই তা শেষ হবে। আগের দিন মার্কিন আইন পরিষদের উভয়কক্ষ ২০১৯ সালের ৩ নভেম্বর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের বিজয় প্রত্যয়ন করতে অধিবেশনে মিলিত হয়। এই অধিবেশনের কয়েক ঘণ্টা আগেই ওয়াশিংটনে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সমর্থকরা বড় ধরনের বিক্ষোভ সমাবেশ করে। এ বিক্ষোভ একপর্যায়ে সহিংসতায় রূপ নেয়।

২০২১ সালের ৬ জানুয়ারি সংঘর্ষের প্রথম দিন একটি গণজমায়েতে অংশ নিতে ট্রাম্পের হাজার হাজার সমর্থক ওয়াশিংটনে সমবেত হয়। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এই জনসভায় ভাষণ দিয়ে জো বাইডেনের বিজয় অনুমোদন করার বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখেন। ইলেক্টোরাল ভোট গণনায় বাধা দানে ট্রাম্পের সমর্থকরা ক্যাপিটল হিলে সহিংস তা-ব চালায়। ভাঙ্গচুরের পাশাপাশি গোলাগুলিও হয়েছে। ট্রাম্পের সমর্থকরা ক্যাপিটাল ভবনে হামলা চালালে অধিবেশন স্থগিত রাখা হয়। তাদের তা-বের পর পুলিশ ক্যাপিটল ভবন অবরুদ্ধ করে। ভেতরে সব প্রবেশদ্বার বন্ধ করে দেয়া হয়। দরজার দিকে বন্দুক উঁচিয়ে তাক করে রাখে নিরাপত্তারক্ষীরা। যেকোনো সময় দরজা ভেঙ্গে ঢুকে পড়তে পারতো ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকরা। অবশেষে সিনেটর ও প্রতিনিধি পরিষদের সদস্যদের গোপন সুড়ঙ্গ দিয়ে নিরাপদ স্থানে সরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। আমেরিকার আইনসভা এমনি নজিরবিহীন রুদ্ধশ্বাস নাটকীয় পরিস্থিতি প্রত্যক্ষ করে। ভেতরে চলছিল বৈঠক। সিনেট ও প্রতিনিধি পরিষদের সদস্যরা চুলচেরা বিশ্লেষণ করছিলেন। ছিলেন সাংবাদিকরাও। ঘটনাচক্রে এই আলোচনার শেষেই ইলেক্টোরাল কলেজের ভোটের হিসাবের ভিত্তিতে সরকারিভাবে জো বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হতো। ট্রাম্পের রিপাবলিকান সিনেটররা তখনো কার্যত পরাজয় মেনে নিতে নারাজ ছিলেন। তার মধ্যেই শুরু হয় বাইরে হই হট্টগোল। দুপুরের পরই আমেরিকার রাজধানীতে এই নাটকীয় দৃশ্য দেখা যায়। শত শত বিক্ষোভকারী ভবনটিতে ঢুকে পড়ে। পুলিশ কংগ্রেস সদস্যদের নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে যায়। কয়েক ঘণ্টা ভবন কার্যত দখল করে রাখার পর বিক্ষোভকারীরা ধীরে ধীরে ক্যাপিটল প্রাঙ্গণ ছেড়ে বাইরে চলে যেতে থাকে। এই শোরগোলের মধ্যে বাইডেনের জয় অনুমোদন করার জন্য কংগ্রেস অধিবেশন স্থগিত করা হয়। বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠে ওয়াশিংটন ডিসি।

২০২০ সালের ৭ জানুয়ারি দ্বিতীয় দিন কয়েক হাজার বিক্ষোভকারীর চিৎকার শোনা যাচ্ছিল। তাদের লক্ষ্যস্থল ছিল ক্যাপিটল ভবন। ক্যাপিটল ভবনের নিরাপত্তারক্ষীরাও তাদের বাধা দানে মরিয়া চেষ্টা চালায়। এই গ-গোলের খবর তখন ভেতরে পৌঁছে যায়। সিনেটর ও প্রতিনিধি পরিষদের সদস্যরা বাইরে উঁকিঝুঁকি মারছিলেন। আমেরিকার ইতিহাসে এমন ঘটনা কোনোদিন ঘটেনি। ফলে তারাও ঠিক বুঝে উঠতে পারছিলেন না কী হয়েছে। আইনপ্রণেতারা তখনো তত সতর্ক ছিলেন না। ট্রাম্পের সমর্থকদের ধেয়ে আসার আভাস পেয়ে নিরাপত্তারক্ষীরা সজোরে একের পর এক দরজা বন্ধ করে দেয়। পর পর ভেঙ্গে পড়ছিল দরজা জানালার কাঁচ। কেউ কেউ রিপাবলিকান সিনেটরদের কটাক্ষ করছিলেন। আইনপ্রণেতারা কিছুক্ষণ পর ঘটনার ভয়াবহতা বুঝতে পারেন। ক্যাপিটল ভবনের মূল দরজা শুধু বন্ধ করা নয়, ভেতর থেকে আসবাবপত্র দিয়ে ব্যারিকেড তৈরি করা হয়। প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির ফ্লোর ডিরেক্টর কেইথ স্টার্ন প্রত্যেককে নিজ নিজ আসনে বসে পড়ার অনুরোধ করেন। তার মধ্যে বাইরে কাঁদানে গ্যাসের মতো কিছু একটা ছোঁড়া হয়। আইনপ্রণেতাদের সিটের নিচে রাখা গ্যাস মাস্ক পরার অনুরোধ করা হয়। বাইরের আতঙ্ক যেকোনো সময় যেকোনো দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকতে পারতো। গোড়ার দিকে ছিল কৌতূহল। কৌতূহল বিভীষিকায় পরিণত হয়। শেষ পর্যন্ত ক্যাপিটল হিলের নিরাপত্তা অফিসাররা আর ঝুঁকি নেননি। তারা আইনপ্রণেতাদের সুড়ঙ্গ দিয়ে নিরাপদ কক্ষে প্রবেশ করার জন্য অনুরোধ করেন। ফাঁকা করা হয় ক্যাপিটল ভবন। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিতে দেখা যায়, এক ভবঘুরে প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির চেয়ারে বসে আছে। আরেকজনকে দেখা যায়, পার্লামেন্টের মাইক্রোফোন তুলে নিয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে প্রতিনিধি পরিষদের এক সদস্যের আসনে গরুর সিং মাথায় নিয়ে বসে আছে আরেক বিক্ষোভকারী। সংঘর্ষের পর ওয়াশিংটন ডিসির মেয়র স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কারফিউ জারির নির্দেশ দেন। ডোনাল্ড ট্রাম্পের ফেসবুক ও টুইটার একাউন্ট সাময়িক বন্ধ করে দেয়া হয়। ট্রাম্পের সমর্থকরা পার্লামেন্ট ভবনে হামলা চালালে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। অন্যদিকে, একই অভিযোগে ফেসবুক থেকে ট্রাম্পের একাউন্ট ২৪ ঘণ্টার জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়। মুছে দেয়া হয় ট্রাম্পের পোস্ট করা একটি সহিংস ভিডিও। অন্যদিকে, ইনস্টাগ্রামেও ২৪ ঘণ্টার জন্য ট্রাম্পকে ব¬ক করে দেয়া হয়। উসকানি ছড়ানোর দায়ে তার চ্যানেল থেকে পোস্ট করা একটি ভিডিও মুছে ফেলেছে ইউটিউব।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পর ফের কংগ্রেসের দুটি কক্ষ সিনেট ও প্রতিনিধি পরিষদের সদস্যরা অধিবেশনে মিলিত হন। নৈরাজ্যের মধ্যে মার্কিন কংগ্রেস জো বাইডেনের ইলেক্টোরাল কলেজ জয় আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত করে। ভোট গণনার সময় কয়েকজন জর্জিয়া ও পেনসিলভেনিয়ার ইলেক্টোরাল ভোট বাতিলের আবেদন জানান। রিপাবলিকানরা আরিজোনা, নেভাদা ও মিশিগানের ইলেক্টোরাল ভোটের বিরুদ্ধেও অভিযোগ তোলেন। তবে তাদের অভিযোগ বাতিল হয়ে যায়।
যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিস্টোরিকাল সোসাইটির তথ্য অনুযায়ী, ১৮১২ সালের যুদ্ধের পর এই প্রথম ক্যাপিটল হিলে এ ধরনের সহিংসতা ঘটলো। ১৮১৪ সালে ওয়াশিংটনে অভিযান চালানোর সময় ব্রিটিশ বাহিনী নির্মাণাধীন ক্যাপিটল ভবনে আগুন ধরিয়ে দেয়। ওয়াশিংটন ডিসিতে ট্রাম্পের সমর্থকদের হামলায় সারা বিশ্ব স্তম্ভিত হয়ে যায়। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এ সহিংসতার তীব্র নিন্দা জানান। অন্যদিকে, ট্রাম্পের উস্কানিতেই মার্কিন পার্লামেন্ট ভবনে তার সমর্থকরা তা-ব চালিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আমেরিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। তিনি এই ঘটনাকে মার্কিন জাতির জন্য চরম অসম্মান ও লজ্জাজনক বলেও মন্তব্য করেন। বারাক ওবামা বলেন, এই সহিংসতা বর্তমান প্রেসিডেন্টের উসকানির ফল। তিনি নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে ভিত্তিহীনভাবে মিথ্যা বলে যাচ্ছিলেন। সমর্থকদের বুঝানোর চেষ্টা করছিলেন যে, তিনি বাইডেনের কাছে নির্বাচনে হেরে গেছেন কেবল ডেমোক্র্যাটদের জালিয়াতির কারণে। কিন্তু তার এই অভিযোগ ছিল মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। চীনের সোশ্যাল মিডিয়ায় কার্যত উল¬াসের ঢেউ বয়ে যায়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই অশান্তির চিত্র দেখে চীনের কমিউনিস্ট পার্টি কটাক্ষ করেছে। ক্যাপিটল হিলে তা-ব শুরু হলে ডেমোক্র্যাটরা ট্রাম্পকে এগিয়ে আসতে এবং সহিংসতার নিন্দা জানাতে আহ্বান জানায়। তবে অন্তত দুই ঘণ্টা তা-ব চলার পর সমর্থকদের ঘরে ফিরে যেতে আহ্বান জানান ট্রাম্প। অন্যদিকে, ট্রাম্পের কন্যা ইভাঙ্কা ক্যাপিটল হিলে হামলাকারীদের ‘দেশপ্রেমিক’ হিসেবে আখ্যা দেয়ায় ব্যাপক বিতর্ক দেখা দেয়। এ ঘটনায় মার্কিন পুলিশ ৫২ জনকে গ্রেফতার করে। সহিংসতায় চারজন প্রাণ হারায়। যাদের মধ্যে একজন ছিল ট্রাম্পের সমর্থক নারী অ্যাশলি ব্যাবিট। ট্রাম্পের তিনি অন্ধ ভক্ত ছিলেন। ভোটের আগে রিপাবলিকান শিবিরের জন্য ক্যাম্পেইনও করেছিলেন। ক্যাপিটল ভবনে ট্রাম্প সমর্থকদের বিক্ষোভে তিনি ছিলেন প্রথম সারিতেই। মুখে ছিল বিদায়ী প্রেসিডেন্টের জয়ধ্বনি। ঘটনার সময় পুলিশের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কির মধ্যে আচমকাই গুলি লাগে অ্যাশলির কাঁধে। রক্তাক্ত অবস্থায় লুটিয়ে পড়েন তিনি। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় তার অবস্থা ছিল সঙ্কটজনক। তাকে বাঁচানো যায়নি। গুলিতে আরো তিনজন বিক্ষোভকারীর মৃত্যু হয়। পুলিশ জানিয়েছে, মৃত্যুর আগে অ্যাশলি টুইট করে ঘাট না না মানার কথা বলেছিলেন। টুইটে হুঙ্কার দিয়ে লিখেছিলেন, কোনো কিছুই আমাদের থামাতে পারবে না। তারা চেষ্টার পর চেষ্টা করে যাবে, কিন্তু ঝড় ওঠে গেছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তা আছড়ে পড়বে। রাতের অন্ধকার থেকে দিনের আলো অবধি ঝড় বইবে।

বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্যাপিটাল হিলে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জয় অনুমোদন বাঞ্ছাল করে দেয়ার শেষ করেন। কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনের আগে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট টুইটারে লিখেন, অনিয়ম আর জালিয়াতির ভোটের সংশোধন চাইছে রাজ্যগুলো। দুর্নীতির এই প্রক্রিয়া কখনো আইনসভার সম্মতি পায়নি। এমনকি বিদায়ী ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের কাছেও। মাইক পেন্স পদাধিকার বলে কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনের সভাপতিত্ব করেন। ট্রাম্প তার ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে বাইডেনের বিজয় নস্যাৎ করে দেয়ার নির্দেশ দেন। কিন্তু মাইক পেন্স অস্বীকৃতি জানিয়ে বলেন, বাইডেনের বিজয় রোধ করা তার পক্ষে সম্ভব নয়। তারপরই ট্রাম্পের সমর্থকরা ক্যাপিটাল ভবন আক্রমণ করে। বিক্ষোভের নামে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকদের সহিংসতার নিন্দা করে বাইডেন বলেছেন, এই বিক্ষোভ একটি বিদ্রোহের সমতুল্য এবং এখনই তার অবসান হওয়া উচিত। আমাদের গণতন্ত্র এক নজিরবিহীন আক্রমণের মুখে। জো বাইডেন আরো বলেন, তাদের তৎপরতা আসলে রাষ্ট্রদ্রোহের শামিল। জানালা-দরজা ভাঙ্গচুর, যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে হামলা, প্রতিনিধি পরিষদে যথাযথভাবে নির্বাচিত কর্মকর্তাদের নিরাপত্তার প্রতি হুমকি আসলে প্রতিবাদ নয়, বিদ্রোহ।
সহিংসতায় উসকানি দেয়ায় প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে তার মেয়াদের শেষপ্রান্তে অপসারণ করার আওয়াজ ওঠে। যুক্তরাষ্ট্রের অনেক আইনপ্রণেতা তার বিরুদ্ধে সহিংসতায় প্ররোচনা দানের অভিযোগ তোলেন। ট্রাম্পের মন্ত্রিসভার সদস্যরাই তাকে অপসারণের বিষয় নিয়ে আলোচনা করছিলেন। ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকদের হামলার পর মন্ত্রিসভার সদস্যরা তাকে প্রেসিডেন্টের পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করেন। মন্ত্রিসভার সংশি¬ষ্ট সদস্যদের আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের ২৫তম সংশোধনীর প্রসঙ্গ ওঠে আসে। মার্কিন সংবিধানের ২৫তম সংশোধনী অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট তার ক্ষমতা ও দায়িত্ব পালনে অসমর্থ বলে বিবেচিত হলে ভাইস প্রেসিডেন্ট ও মন্ত্রিসভার সদস্যরা তাকে অপসারণ করতে পারেন। এ প্রক্রিয়ায় ভাইস প্রেসিডেন্টকে নেতৃত্ব দিতে হয়।

ক্যাপিটল ভবনে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকদের হামলার পর তার ঘনিষ্ঠরা সরে দাঁড়ান। হোয়াইট হাউসের ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি সারাহ ম্যাথিউস সবার আগে ট্রাম্পের সঙ্গ ছাড়ার ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, কংগ্রেসে যা দেখলাম তাতে আমি বিরক্ত। আমাদের দেশে ক্ষমতার শান্তিপূর্ণ হস্তান্তর প্রয়োজন। ট্রাম্প প্রশাসনে যুক্ত থাকতে পেরে আমি সম্মানিত বোধ করি। এ সময় যেসব নীতি নেয়া হয়েছে সেজন্য আমি গর্বিত। সারাহর আগে মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের চিফ অব স্টাফ এবং ট্রাম্পের সাবেক প্রেস সচিব স্টেফানি গ্রিসহাম পদত্যাগ করেন।
(লেখাটি আমার ‘জাতীয় ও বহির্বিশ্ব’ থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করবে আফসার ব্রাদার্স)


শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares
  •  
    2
    Shares
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.