নাঙ্গলকোটে মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ

মোঃ সাইফুল ইসলাম ,নাঙ্গলকোট।

কুমিল্লা নাঙ্গলকোটে মাদ্রাসার শিক্ষকেরর বিরুদ্ধে প্রথম শ্রেণীর এক ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা করেছেন ধর্ষিতার বাবা। ধর্ষণকারি শিক্ষক বিল্লাল হোসেনকে (২৭) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলার বিবরণ ও ধর্ষিতার পিতার অভিযোগে জানাযায়, কুমিল্লা নাঙ্গলকোট উপজেলার বক্সগঞ্জ ইউনিয়নের শুভপুর গ্রামের কাজী বাড়ির সামনে দু-চালা বিশিষ্ট ওয়াছাকিয়া কুরআনিয়া মাদ্রাসা ও এতিম খানায় প্রতিদিনের ন্যায় আমার মেয়ে অদ্য দুপুর ২ টার সময় আমার বাড়ী হতে মাদ্রাসা পড়তে যায়। গতকাল সোমবার বিকেলে সাড়ে ৪ টায় মাদ্রাসার শ্রেণিকক্ষে আরবি শিক্ষা অর্জন কালে আমার মেয়ে পড়া না পারায় মৌলভী বিল্লাল হোসেন আমার মেয়েকে কান ধরায় এবং শ্রেণিকক্ষের পিছন নিয়ে শোয়াইয়া ফেলে। পরে আমার মেয়ের পরনে থাকা পায়জামা খুলে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে রক্তাক্ত করে। এ সময় অন্যান্য শিক্ষার্থীরা মাদ্রাসার অন্য শিক্ষকদেরকে জানালে তারা সহ স্থানীয় জনতা বিল্লাল কে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেন। সাথে সাথে খবর পেয়ে আমি এবং আমার স্ত্রী ঘটনাস্থলে গিয়ে আমার মেয়েকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পাই। পরে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চিকিৎসার জন্য আনলে তারা প্রথমিক চিকিৎসা দিয়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। বর্তমানে কুমিল্লা মেডিকেল হসপিটালে সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

অভিযুক্ত শিক্ষক খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলার মানিকছড়ি ইউনিয়নের চেংগুচড়া গ্রামের আবুল কালামের ছেলে। তার নাম বিল্লাল হোসেন (২৭)।

এ ব্যাপারে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন – বাদীর এজাহার পেয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে। বিবাদীকে আমরা গ্রেপ্তার করেছি। আদালতের মাধ্যমে আসামীকে জেল হাজতে পাঠানো হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.