সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০৩:৪১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষে বাঁশখালী কয়লাবিদ্যুৎ কেন্দ্র রণক্ষেত্র: নিহত ৫

শিব্বির আহমদ রানা, বাঁশখালী প্রতিনিধি (চট্টগ্রাম):

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার গন্ডামারা ইউনিয়নে নির্মিতব্য কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প কেন্দ্রে বেতন-ভাতার দাবীতে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের উপর নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে পুলিশ। মুহূর্তেই পুলিশ-শ্রমিকের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রণক্ষেত্র পরিণত হয়েছে পুরো প্রকল্প এলাকায় জুড়ে। সংঘর্ষে এ পর্যন্ত গুলিবিদ্ধ হয়ে ৫ জন নিহত হয়েছেন।

বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক ডা. সওগাতুল ফেরদৌস বলেন, ‘সংঘর্ষের ঘটনায় আহত অবস্থায় অনেককে আনা হয়েছিল। এর মধ্যে ৪ জন মারা গেছেন। নিহত ৪ জন হলেন- মোহাম্মদ রাহাত (২৫), রনি (২২), শুভ (২৪), আহমদ রেজা মীর খান (১৮)। চার জনই কয়লাবিদ্যুৎ প্রকল্পের শ্রমিক। এ ঘটনায় গুরুতর আহত গুলিবিদ্ধ ১২ জন শ্রমিকের অবস্থা আশংকাজনক হলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান ওই চিকিৎসক।

পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধিন অবস্থায় মু. হাবিবুল্লাহ্ (১৯) নামের একজন মারা যান। বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শফিউর রহমান মজুমদার এ তথ্য নিশ্চিৎ করেন।

স্থানীয় বেসরকারী হাসপাতালে খবর নিয়ে জানা যায় ২৫-৩০ জনের অধিক শ্রমিক সংঘর্ষের ঘটনায় আহত হয়ে চিকিৎসা নেন।

স্থানীয় ও নিহত শ্রমিকের পরিবার সূত্রে জানা যায়, ‘কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পে কাজ করা শ্রমিকেরা পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে নামাযের জন্য বিরতী দেওয়া, কর্মঘন্টা কমিয়ে আনা, প্রতি ঘন্টা বেতন ৫০ টাকার স্থলে ৬০ টাকা করে বাড়ানো, থাকা ও খাওয়া-দাওয়ার সু-ব্যবস্থার দাবী জানালে তাদের দাবী না মানিয়ে উল্টো চাকরি থেকে ছাঁটাই করা ও বেতন কেটে রাখার হুমকী দেওয়াতে শ্রমিকদের উপর পুলিশ নির্বিচারে গোলাবর্ষণ করে। আহত শ্রমিকদের দাবী, পুলিশের সাথে স্থানীয় সন্ত্রাসীরাও শ্রমিকদের উপর চড়াও হয়ে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটায়।’

গত শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ৯ টার দিকে কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। দীর্ঘ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আহত ও নিহতের খবরে পুরো কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প জুড়ে হাজার হাজার লোকজন জড়ো হতে দেখা যায়। সংঘটিত ঘটনায় স্বজনেরা আহতদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে আসার পথে বাঁধা দেওয়ার অভিযোগ তুলে পুলিশের বিরোদ্ধে।

এঘটনায় এলাকার পরিস্থিতি যে কোন মুহূর্তে আরো ভয়াবহ রুপ ধারণ করবে বলে আশংকা প্রকাশ করছে স্থানীয়রা। কয়লাবিদ্যুৎ প্রকল্পে থাকা শ্রমিকেরা জীবনের নিরাপত্তার কথা ভেবে কর্মস্থল পরিত্যা করেন।

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, প্রথমে এস. আলম বিদ্যুৎ কেন্দ্রের শ্রমিকদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। পরে উস্কানী দিয়ে আশে পাশের গ্রামবাসীকে এতে সম্পৃক্ত করা হয়। পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না এলে অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সহযোগীতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।’

এদিকে কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আহত ও নিহত শ্রমিকের স্বজনদের আর্তচিৎকারে পুরো পরিবেশ ভারি হয়ে উঠেছে। পুরো এলাকা জুড়ে এখন আতংক বিরাজ করছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com