প্রকাশকের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ লেখকদের

বিশেষ প্রতিবেদকঃ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার

কিছু প্রকাশকের বিরুদ্ধে নানাভাবে লেখকদের জিম্মি ও হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। তেমনি একজন প্রবাসী লেখক মুখলেছুর রহমান। বাংলাদেশী বংশদ্ভ‚ত হলেও তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক। ভাষার টানে বইমেলা এলেই ছুটে আসেন দেশে। ইতোমধ্যে একুশে গ্রন্থমেলায় তার একাধিক বই বেরিয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারো মেলায় তার দুটি বই বেরুনোর কথা। তাই করোনার ঝুঁকি নিয়েও বইয়ের টানে ছুটে এসেছেন বাংলাদেশে। কিন্তু সব প্রস্তুতির পরও অনিশ্চয়তায় পড়েছে তার নতুন বইয়ের প্রকাশনা। বিষয়টি নিয়ে প্রকাশকের হাতে জিম্মি হয়ে পড়া এই লেখক দেশে এসে এখন বেকুব বনেছেন।

মুখলেছুর রহমান জানান, এর আগেও অন্যান্য প্রকাশনীর মাধ্যমে তার একাধিক বই বেরিয়েছে। এবারো তিনি বই বের করার প্রস্তুতি নিলে ফেসবুকের মাধ্যমে তার সাথে প্রায় দুই মাস আগে যোগাযোগ করেন বইপত্র প্রকাশনীর মালিক বাবু। তিনি জানান, তার দুটি বই তিনি নিজ প্রকাশনী থেকে বের করতে চান। তার কথায় বিশ্বাস রেখে মুখলেছুর রহমান বইয়ের পা ুলিপি পাঠান। বই প্রকাশ বাবত ২০ হাজার টাকা অগ্রিম পরিশোধও করেন। এরপর মেলা শুরুর দিন তিনি দেশে এসে বই প্রকাশের বিষয়ে প্রকাশকের কাছে জানতে চান। কিন্তু প্রথমে প্রকাশক আজ-কাল করে সময় ক্ষেপণ করলেও এখন বই প্রকাশতো দূরের কথা ফোনও রিসিভ করছেন না। ফলে চলতি মেলায় বই আদৌ প্রকাশ হবে কি না- এ নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়েছেন মার্কিন এই নাগরিক।

এ বিষয়ে বইপত্র প্রকাশনীর মালিক গত শনিবার নয়া দিগন্তকে জানিয়েছিলেন, তিনি কিছুটা অসুস্থ থাকায় বই প্রকাশে দেরি হচ্ছে। তাই সোমবার বই প্রকাশ হবে। কিন্তু গতকাল মঙ্গলবার বই প্রকাশ না হওয়ার বিষয়ে জানতে ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে জানতে বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ শ্যামল বাংলাকে বলেন, এ রকম কিছু লেখক আছেন যারা আগে সতর্ক না থেকে প্রকাশকের সাথে জটিলতা তৈরির পর অভিযোগ করেন। বিষয়টি দুঃখজনক। তিনি বলেন এ বিষয়ে তাদের কাছে অভিযোগ করলে তারা করণীয় সম্পর্কে চিন্তা করবেন। যদিও এ বিষয়ে খুব একটা কিছু করার নেই বলেও জানান তিনি। ফরিদ আহমেদ বলেন, এটি লেখক ও প্রকাশকের বিষয়। তারা কী নেবেন আর কী দেবেন তা তাদের একান্ত বিষয়। আর কোনো একজনের অপরাধে সবার বদনাম কিছুতেই সমর্থনযোগ্য নয়।
শুধু মুখলেছুর রহমান নন। কিছু প্রকাশকের কাছে এরকম নিয়মিত ঠকছেন লেখকরা। ফলে প্রকাশকরা প্রকাশনাকে পেশা হিসেবে নিতে পারলেও লেখকরা তা পারছেন না। মেলায় প্রতি বছর বিপুলসংখ্যক নতুন বই আসছে। বিক্রিও হচ্ছে কোটি কোটি টাকার। তারপরও কেন পেশাদার লেখক তৈরি হচ্ছে না এমন প্রশ্নে প্রকাশকদের ফাঁকিঝুকির বিষয়টা সহজেই ধরা পড়ে।

একাধিক নতুন লেখক জানান, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই প্রকাশকরা তাদেরকে লেখক সম্মানি কিংবা রয়্যালটি দিচ্ছেন না। তাদের মতে, দেশের ৯৫ শতাংশ লেখকই তাদের প্রাপ্য সম্মানী থেকে বঞ্চিত হন। আবার লেখকরা সম্মানী পান না বলেই সক্ষম লেখকরা লেখালেখিতে আগ্রহী হন না। ফলে সম্ভাবনাময় অনেক লেখকের মনোবল ভেঙে যায়। যার কারণে পেশাদারিত্বের চিন্তা থেকে এক সময় তারা সরে আসেন।
নবীনরা জানান, প্রকাশকরা তাদের মতো লেখকদের বই এমনি এমনি ছাপতে চান না। এতে লেখকদের অর্থ কন্ট্রিবিউট করতে হয়। যার অর্ধেক দিয়ে বই ছাপিয়ে বাকিটা আগাম মুনাফা হিসেবে রেখে দেয়া হয়। তাদের মতে, এর বাইরে লেখককেই বই বিক্রিরও দায়িত্ব দেন প্রকাশকরা। পরিচিত লোক দিয়ে নিজের বই কেনাতে বলেন। আর লেখক বই আনতে গেলে প্রকাশক ২৫ পার্সেন্ট কমিশনে লেখকের কাছে বই বিক্রি করেন।
লেখকদের অভিযোগ, নিজেদের টাকা দিয়ে বই ছাপার পরও ‘আপনার বই চলে না’ এমন বাহানায় প্রকাশকরা তাদের হয়রানি করেন। এর মধ্যে কোনো লেখক যদি তার বই ফেরত ও বিক্রির হিসাব বুঝে নিতে চান তবে তাকে বিক্রির টাকা দেয়া দূরের কথা, নিজের টাকায় ছাপানো বইগুলোও ফেরত দেয়া হয় না। যার কারণে বিরক্ত ও হতাশা থেকে অনেকে সাহিত্য অঙ্গন থেকে সরে যান।

গতকাল মেলায় নতুন বই এসেছে ১১২টি। মেলায় এসেছে ড. আসিফ নজরুলের আলোচিত গ্রন্থ ‘পিএইচডির গল্প’ থেকে। গ্রন্থটি প্রকাশিত হয়েছে বাতিঘর থেকে। এসছে সৈয়দ আবুল মকসুদের লিখিত নবাব সলিমুল্লাহ ও তার সময়। বইটির প্রকাশক প্রথমা। এছাড়া নানন্দা প্রকাশন প্রকাশ করেছে অবসরপ্রাপ্ত সেনা মেজর ডেল এইচ খানের বাংলাদেশের প্রথম মিলিটারি থ্রিলার ‘মিশন তিম্বাক্তু’। এম মামুন হোসেনের উপন্যাস কালো জল। প্রকাশ করেছে অনিন্দ্য প্রকাশ।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.