বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

লেখকের কথা – এমন অচেনা দৃশ্য কেউ দেখেনি : রাজধানীতে বইমেলায় কেনাবেচা

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার

মেলায় সবই প্রতিবারের মতোই আছে। কিন্তু ব্যতিক্রম শুধু ক্রেতা নেই। অন্যান্য বছর মেলার স্টলে স্টলে মানুষের উপচে পড়া ভিড় থাকলেও এবারের দৃশ্য ঠিক তার উল্টো। বলা যায় এবার শুরু থেকেই স্টলে স্টলে নিস্তব্ধতা। সারি সারি বইয়ের ছোট বড় স্টলে ব্যস্ততার বদলে বিক্রেতাদের অপেক্ষা। গতকাল মেলার শেষ শুক্রবারেও তার ব্যতিক্রম ছিল না। এক দিকে মেলা শেষের আর মাত্র পাঁচ দিন বাকি অন্য দিকে ছুটির দিন তারপরও শেষ অবধি মেলায় ক্রেতার দেখা মেলেনি। মেলায় আগত পাঠক ও প্রকাশকরা বলছেন, এ মেলার জন্মলগ্ন থেকে তারা কেউ কোনো দিন এমন অচেনা দৃশ্য দেখেননি। এতে বইমেলায় বিগত চার যুগের রেকর্ড তৈরি হলো।
প্রথমা প্রকাশনীর সামনে দাঁড়ানো অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা নুরুজ্জামান মেলায় ক্রেতাহীনতার দৃশ্যে আক্ষেপ প্রকাশ করেন। জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশক সদস্য ও ডিইউজে সদস্য মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকীর কাছে তিনি আক্ষেক করে বলেন, বইমেলার জন্মলগ্ন থেকেই তিনি অনেক কিছুর সাক্ষী। কিন্তু এমন দৃশ্য এই প্রথম দেখলেন। এমন ক্রেতাহীন মেলা তিনি কোনো দিন দেখেননি। তিনি বলেন, প্রায় চার যুগ সময় ধরে ধারাবাহিক এ মেলা চলছে। কিন্তু এই প্রথম ক্রেতাহীনতার রেকর্ড তৈরি হলো।
একই ধরনের মন্তব্য করলেন অবসর প্রকাশনীর একজন কর্মকর্তা। তিনি বলেন, অনেক বছর ধরে মেলার সাথে আছি কিন্তু এমন অচেনা দৃশ্য বিশ্বাস করতে পারছি না। যত দিন বেঁচে থাকব এবারের দৃশ্য মনে রাখব।
বিক্রেতারা বলছেন, করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যে নানা বাধা-বিপত্তির কারণে মেলায় পাঠকের সাড়া মেলেনি। তারা জানান, লোকজন একদমই নেই। অথচ ছুটির দিনে ক্রেতা দর্শনার্থীর ভিড় থাকবে এমন প্রত্যাশা ছিল। গ্রীষ্ম ও করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যে মেলা আয়োজনের সিদ্ধান্তটাই ভুল বলেও কেউ কেউ মন্তব্য করেন। এতে ছোট প্রকাশনীগুলোর দেউলিয়া হয়ে যাওয়ার অবস্থা হয়েছে বলেও জানান তারা।

দি ইউনিভার্সেল একাডেমি প্যাাভিলিয়ন- ২৬ এর মহাপরিচালক এস এম ভূঁইয়া শিহাব জানান, চলমান অবস্থায় এটা নিশ্চিত যে এবার স্টল ভাড়া নিয়েও ঘরে ফেরা দায় হবে। কারণ প্রতিদিন মেলায় যেসব লোকজনের আনাগোনা তারা ক্রেতা নন। মেলাকে তারা আড্ডার স্থান হিসেবে বেছে নিয়েছেন। যার কারণে মেলা প্রাঙ্গণে লোকজন চোখে পড়লেও ক্রেতা সঙ্কটে ভুগছেন বিক্রেতারা।
তিনি বলেন, লেখক-পাঠকদের কাছে অমর একুশে বইমেলা ভিন্ন এক আবেগের নাম হলেও এ বছর সেই উৎসাহে অনেকটাই ভাটা পড়ে গেছে। মহামারী করোনার শঙ্কায় বইমেলা শুরু হতে প্রায় দেড় মাস দেরি হয়েছে। সেজন্য মেলায় ক্রেতা আসছেন না।

অলিদ তালুকদার বলেন– করোনা সংক্রমণের মধ্যে এই বছর বইমেলা ভার্চুয়াল বা অনলাইনে করার প্রস্তাব উঠেছিল। তবে প্রকাশকদের দাবির মুখে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও বাংলা একাডেমি চত্বরে গত ১৮ মার্চ অমর একুশে বইমেলা শুরু হয়। সে সময় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ জানিয়েছিলেন, মেলা শুরুর পর করোনা সংক্রমণ বাড়লে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা হবে এবং মেলা স্থগিত হতে পারে বলে মন্তব্য করেছিলেন।

শেষ সময়েও জমে ওঠেনি মেলাঃ

বইমেলা শেষ হতে আর মাত্র পাঁচ দিন বাকি। এ সময়টাকে মেলার পিকটাইম বলা হয়।
কিন্তু এখনো সেই চিরচেনারূপে ফিরে যেতে পারেনি বইমেলা। অন্যবার শেষ সময়ের দিকে বিক্রিতে দম ফেলার ফুরসত না থাকলেও এ বছর বিক্রির চিত্র একেবারেই উল্টো।

দুপুর ১২টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত পুরো সময়টা অলস পার করছেন প্রকাশক ও তাদের প্রতিষ্ঠানের বিক্রয়কর্মীরা। বইপ্রেমী ও দর্শনার্থীর অভাবে গতকাল মেলার ২২তম দিনে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যাণ প্রাঙ্গণ ছিল বিরানভূমি। মেলাজুড়ে সৃষ্টি হয় এক ভুতুড়ে পরিবেশ। প্রতিটি স্টল ও প্যাভিলিয়ন ছিল বইপ্রেমীশূন্য। এজন্য দুপুর ১২টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত পরিবর্তিত সময়সূচিকেই দায়ী করেছেন প্রকাশকরা। তাদের মতে, সময়সূচিতে পরিবর্তন আনার কারণেই মেলায় লোকজন আসছে না। অধিকাংশ প্রকাশক বলেন, বিকাল ৫টার দিকে যে সময়টায় মেলা জমে ওঠার কথা সে সময়টায় মেলা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।

আর প্রবেশদ্বার বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে এরও আধা ঘণ্টা আগে বিকাল সাড়ে ৪টায়। যার কারণে মাঝপথে এসে মেলা তার জৌলুস হারিয়েছে। শুধু সময়সূচির কারণেই মেলা জমেনি এমন দাবি এবারের মেলার বেশির ভাগ প্রকাশকদের। ‘করোনার মধ্যেও শুরু থেকেই মেলা জমে উঠেছিল। কিন্তু হঠাৎ করে যখন সময়সূচিতে পরিবর্তন আনা হলো অর্থাৎ বিকালের দিকে যখন মেলা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে তখন লোকজন আসা কমে গেছে। ৫টায় মেলা বন্ধ করে দেওয়ার পাশাপাশি সাড়ে ৪টায় দর্শনার্থীদের প্রবেশ বন্ধ করে দেওয়া হয় বলে প্রতিদিন সব গেট থেকে অনেক লোক নিরাশ হয়ে ফিরে যায়।৷ জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা সমিতির সদস্য ও প্রকাশক ’অলিদ তালুকদার বলেন, ‘মেলা বন্ধ করে দিলে আমরা বড় ধরনের লোকসান থেকে বেঁচে যেতাম। ক্ষতিপূরণ দিতে হবে বলে বাংলা একাডেমি মেলা বন্ধ করছে না। ’
গতকাল মেলার ২২তম দিনেও মেলাপ্রাঙ্গণ ছিল বিরানভূমি। বইপ্রেমীশূন্য ছিল মেলা।

প্রকাশক ও তাদের বিক্রয়কর্মীদের চেয়েও অনেক কম ছিল বইপ্রেমী ও দর্শনার্থী। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বিস্তীর্ণ প্রান্তরে প্রকাশক ও গণমাধ্যমকর্মী ছাড়া বইপ্রেমী খুব একটা পাওয়া যায়নি। হাতে গোনা যে কজন এসেছিলেন তারাও ব্যস্ত ছিলেন ঘোরাঘুরি আর সেলফি তোলায়।
ক্ষতিপূরণের দাবিতে পাবলিশার্স ফোরাম কাটাবন : করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দাবি করেছে পাবলিশার্স ফোরাম কাটাবন। গতকাল অনুষ্ঠিত এক জরুরি সভায় ফোরাম সদস্যরা জানান, ১১ এপ্রিলের মধ্যে বইমেলা ও করোনার কারণে ফোরামের সদস্যদের আর্থিক ক্ষতিপূরণের তালিকা যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে প্রদান করা হবে। তা ছাড়া আসন্ন বাজেটে সৃজনশীল বই কেনার বরাদ্দ বাড়ানোর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্তও নেওয়া হয় এ সভায়।

লেখকঃ লেখক ও জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা সমিতির সদস্য | নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো | সদস্য ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com