শিক্ষক নিয়োগের দুর্নীতির অভিযোগ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মানব বন্ধন

আনোয়ার হোসেন শামীম গাইবান্ধা প্রতিনিধি

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ডিগ্রি কলেজে
শিক্ষক নিয়োগের দুর্নীতির অভিযোগ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মানব বন্ধন

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ডিগ্রি কলেজে শিক্ষক নিয়োগের দুর্নীতির অভিযোগ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আজ বৃহস্পতিবার সকালে একাডেমী বাজারে কঞ্চিপাড়া সার্বিক উন্নয়ন বাস্তবায়ন কমিটির উদ্যেগে মানব বন্ধন করেন এলাকাবাসী।

উক্ত মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ফুলছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের সভাপতি জি.এম সেলিম পারভেজ। উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক ও কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন সার্বিক উন্নয়ন বাস্তবায়ন কমিটির সাধারন সম্পাদক মোঃ রোদওয়ান আশরাফ হোসেন পলাশ, কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন সার্বিক উন্নয়ন বাস্তবায়ন কমিটির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক পপোল আহমেদসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। বক্তব্যরা বলেন, কঞ্চিপাড়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ শিক্ষক নিয়োগ বানিজ্য, কলেজের উন্নয়নের নামে টাকা আত্নসাৎ, প্রতিষ্ঠানটি তার নিজের আধিপত্য ও দলীয় প্রভাব খাটিয়ে প্রতিনিয়ত অনিয়ম ও দুর্নীতি করে আসছে। এছাড়াও আগামী ২ এপ্রিল শক্রবার কলেজের শিক্ষক নিযোগ পরিক্ষা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে , সেখানে কলেজের অধ্যক্ষ এ. টি.এম রাশেদুজ্জামান বিপুল পরিমান অর্থ বানিজ্যর অভিযোগ করছেন মানব বন্ধনে। তারা আরো বলেন ,বিশ্ব ব্যাপীর পাশাপাশি করোনার কড়াল আঘাত দেশে প্রাদুভার্ব দেখা দিয়েছে। সরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধসহ সকল ধরনে নিয়োগ পরিক্ষা স্থাগিত ঘোষনা করছেন। তারপরও ক্যানো আগামী কাল শক্রবার নিয়োগ পরিক্ষার নেওয়ার তাড়াহুড়া কেন? তারা বলেন, অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে পূর্বের নিয়োগ বানিজ্য ও দূর্নীতি তর্দন্ত করে করে পরবর্তীতে নিয়োগ পরিক্ষাটি নেওয়ার অনুরোধ জানান।

ব্যানবেইজ ও বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, প্রতিষ্ঠানটিতে একসঙ্গে ১৯ জন শিক্ষককে ২৬ শে ডিসেম্বর ২০১৬ সালে যোগদান দেখানো হয়। উপজেলা শিক্ষা ডাটা বেজে বা বেনবেইজে ২০১৬ সাল থেকে ২০১৯ সালের তালিকায় ঐ ১৯ শিক্ষকের কোন তথ্য দেওয়া হয়নি। কিন্তু ২০২০ সালে এসে তাদের তথ্য বেনবেইজে যোগ করা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে কলেজের কয়েকজন স্টাপ জানান, অধ্যক্ষের অনিয়ম দূর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার কেউ সাহস পাই না। কলেজের কোন বিষয়ে শিক্ষক , কর্মচারী যে কেউ কথা বললে অধ্যক্ষ তার বেতন আটকে দেন। তারা আরো জানান যে কোন অনিয়ম দূর্নীতি স্থানীয় সরকার দলীয় গন্যমান্য, উপজেলা নিবার্হী অফিসার দেখা কথা । কিন্তু বিষয় গুলো তারাও যেন এড়িয়ে যান। আবার অনেকেই বলেন অধ্যক্ষ ফুলছড়ি উপজেলার যুবলীগের সাধারন সম্পাদক। তার নিয়ন্ত্রে নাকি পুরো উপজেলা চলে । এ জন্য অনেকেই অধ্যক্ষের অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলতে সাহস পায় না।

আগামী ২ এপ্রিল শত্রুবার কঞ্চিপাড়া ডিগ্রি কলেজে অধ্যক্ষ বেশ কয়েক শিক্ষক গোপনে নিয়োগের জন্য তৎপরতা চলালে বিষয়টি ফাঁস হয়ে যাওয়ায় এলাকাবাসী খেপে ওঠে। কঞ্চিপাড়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ এ. টি.এম রাশেদুজ্জামান এর বিরুদ্ধে এসব অনিয়ম ও দূর্নীতির বিরুদ্ধে সামজিক যোগযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে।কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন সার্বিক উন্নয়নের বাস্তবায়ন কমিটির নামে সংগঠনটি ও এলাকাবাসী অধ্যক্ষের রিুরদ্ধে নিয়োগ বানিজ্য, কলেজের উন্নয়নের নামে টাকা আত্নসাৎ, দলীয় প্রভাব খাটিয়ে প্রতিষ্ঠনের শিক্ষক কর্মচারীকে হয়রানিসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলছেন।

আনীত অভিযোগ গুলোর বিষয়ে কঞ্চিপাড়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ এ. টি.এম রাশেদুজ্জামানের কলেজের অফিসে একাধিক বার যেয়েও সাক্ষাত পাওয়া যায়নি, এবং তার মুঠো ফোনে যোগাযোগ চেষ্ঠা করলে বন্ধ পাওয়া যায়।

ফুলছড়ি উপজেলার নির্বাহী অফিসার ও কঞ্চিপাড়া ডিগ্রি কলেজের সভাপতি মোঃ আবু রাহান দোলন বলেন, অধ্যক্ষে বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ গুলো সত্য হলে, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। করোনা কালীন সব নিয়োগ পরিক্ষা স্থাগিতের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন এটা এ মূহূর্তে বলা যাবে না , পরিস্থিতি উপর নিভর করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.