1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
পাউবো’র স্থায়ী বেড়িবাঁধ প্রকল্পে স্বপ্ন বুনছে সন্দ্বীপবাসী | দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০২:৪২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
হাটহাজারীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসকারীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক দৈনিক ডাক প্রতিদিনের সম্পাদক আর নেই। বনানীতে টিবিএল ফুডের প্রথম সাধারন সভা অনুষ্ঠিত খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে শ্রীনগরে মসজিদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ সভাপতি’র বিরুদ্ধে সাংবাদিক হাবিব আল জালালের ইন্তেকাল শ্রীনগরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মসিউর রহমান মামুন আশুরোগ মুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম ফরায়েজীর ভাই রফিকুল ইসলামের ইন্তেকাল চৌদ্দগ্রামে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থ প্রদান হাটহাজারী গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নে নজরুল সংঘ কমিটি গঠন

পাউবো’র স্থায়ী বেড়িবাঁধ প্রকল্পে স্বপ্ন বুনছে সন্দ্বীপবাসী

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৩০ জুন, ২০২১
  • ৩৪ বার

চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার সারিকাইত ইউনিয়নের চৌকাতলী থেকে বেড়িবাঁধের প্রায় তিন কিলোমিটার বেড়িবাঁধ অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। প্রতি বছর প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বিধ্বস্ত হয়ে যায়, রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষতি হয়। ভেসে যায় মাছের ঘের, প্রজেক্টসহ জমির ফসল। ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি ঢুকে হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করে যাচ্ছে । এ থেকে পরিত্রাণের একমাত্র পথ টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণ। কিন্তু টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণ তো দূরের কথা, জোড়াতালির মেরামতও জোটেনি দক্ষিণ সন্দ্বীপ সারিকাইত ইউনিয়নের বাসিন্দাদের কপালে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জরাজীর্ণ বেড়িবাঁধের কারণে নদীতে জোয়ার স্বাভাবিকের চেয়ে বৃদ্ধি পেলেই বাঁধ উপচে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে।

স্থানীয় সংসদ সদস্যের প্রচেষ্টায় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্পের ১৯৭ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট ৭টি প্যাকেজে চলমান সন্দ্বীপের মগধরা, সারিকাইত ও রহমতপুর ইউনিয়নের ৯.৮০ কিলোমিটার সিসি ব্লকসহ বেড়িবাঁধের মাটির কাজ ও ১.২০ কিলোমিটার মাটির কাজ ২০১৭ সাল থেকে শুরু হলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের গাফিলতির কারণে দুর্ভোগ কাটেনি এ অঞ্চলের বাসিন্দাদের। সন্দ্বীপে সরকারের মেগা এ প্রকল্পটি বাবায়নে ঠিকাদারদের গাফিলতিতে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। ২০১৮ সালের ডিসেম্বর থেকে কয়েকটি স্পটে কাজ শুরু করলেও এখনো শেষ করতে পারেনি। অন্যান্য প্যাকেজের কাজ চলমান থাকলেও ডলি কন্সট্রাকশন কোম্পানির কাজের গাফিলতিতে নির্ধারিত সময়ে মোট কাজের ৫ শতাংশ করেনি বলে অভিযোগ স্থানীয় বাসীন্দাদের।

সারিকাইত ৬ নম্ববর ওয়ার্ডের চৌকাতলী এলাকা ডলি কন্সট্রাকশন কোম্পানির আওতাধীন থাকা অবস্থায় কোনো কাজ করেনি ডলি কন্সট্রাকশন। ফলে বিগত তিন বছরসহ চলতি বছরও বর্ষা মৌসুমে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়। বেশ কয়েকটি অভিযোগের ভিত্তিতে ডলি কন্সট্রাকশনের কাজ বাতিল করে বিশ্বাস বিল্ডার্সের কাছে ১.৫ কিলোমিটারের. কাজ হস্তান্তর করা হয়।

সারিকাইত ইউনিয়নের চৌকাতলী এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা কামাল হোসেন বলেন, বিগত কয়েক বছর যাবৎ আমরা এই জোয়ারের পানির কারণে কষ্টে আছি। এ বছর বর্ষা শুরুর দিকে কষ্ট করেছি। বর্তমানে বেড়িবাঁধের কাজ কিছু দৃশ্যমান দেখে কিছুটা আনন্দিত হলেও শঙ্কা কাটাতে পারছি না। তবে কাজ যেভাবেই হোক তা যেন টেকসই হয় সেদিকে যাতে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি থাকে সে প্রত্যাশা করছি।

এ বিষয়ে সারিকাইত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম পনির বলেন, আমি গত বুধবার বেড়িবাঁধ এলাকা পরিদর্শনে গিয়েছিলাম। আগের কন্সট্রাকশন কোম্পানির গাফিলতিতে আমাদের সাধারণ জনগণের বহু ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

তবে বর্তমান বিশ্বাস বিল্ডার্স কোম্পানির কাজের অগ্রগতি দেখে বেশ সন্তোষজনক মনে হয়েছে। এ বিষয়ে আমাদের এমপি মহোদয়ের অনেক অবদান রয়েছে।

বেড়িবাঁধ পরিদর্শনে এসে সাংসদ মাহফুজুর রহমান মিতা বলেন, ঠিকাদার কর্তৃক যথাসময়ে বেড়িবাঁধের কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় অরক্ষিত হয়ে আছে সন্দ্বীপের দক্ষিণ ও পশ্চিম উপকূল। এ বিষয়ে বহু চেষ্টা ও ঠিকাদারকে কাজ শেষ করতে বলা হলেও করেনি। বিষয়টি নজরে আছে। খুব তাড়াতাড়ি এ অঞ্চলের মানুষের দুর্ভোগ লাঘব হবে।

এ বিষয়ে পাউবোর সাব ডিভিশনাল অফিসার প্রকৌশলী অপুদেব জানান, সন্দ্বীপ স্থায়ী বেড়িবাঁধ প্রকল্পের প্রায় ৭০ শতাংশের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। প্রকল্পের কাজ শেষ হলে সমগ্র সন্দ্বীপবাসী সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষা পাবে।

তিনি জানান, প্রতি বছর বর্ষা ছাড়াও সন্দ্বীপ উপকুলীয় এলাকা জোয়ারের পানিতে ডুবে যায়। আর বর্ষায় হারাতে হয় ভিটেমাটি ও ফসলি জমি। উপকুলবাসীকে রক্ষায় ২০১৭ সালে প্রায় ১৯৭ কোটি টাকা ব্যয়ে স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মাণ প্রকল্প হাতে নেয় পাউবো।

তবে ২০১৮ সালের মাঝামাঝি কাজ শুরু হয়। বর্তমানে এ প্রকল্পের প্রায় ৭০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। বাকী ৩০ শতাংশ কাজ দ্রুত শেষ করতে পারবো বলে আশা করছি আমরা।

পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী নাহিদ উজ জামান এ প্রসঙ্গে বলেন, সন্দ্বীপ প্রকল্পে পাঁচটি প্যাকেজের কাজ বর্ষার আগে যতটুকু পরি শেষ করার চেষ্টা করছি। যেন বন্যায় ক্ষতি অনেকাংশে কমে যায়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম