1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আশুরার রোজা ও বিশেষ আমল - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৩০ অপরাহ্ন

আশুরার রোজা ও বিশেষ আমল

_____ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার ___
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৯ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৪ বার

মহররমের ১০ তারিখ পবিত্র আশুরার মর্যাদা ও ফজিলত অনেক বেশি। মর্যাদপূর্ণ হারাম ৪ মাসের প্রথম মাস মহররম-এর ১০ তারিখ রোজা পালন ও আমল সম্পর্কে হাদিসে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। হাদিসের বর্ণনায় আশুরার রোজা ও মহররমের বিশেষ আমলগুলো কী কী?

বিশেষ মর্যাদার কারণেই আল্লাহ তাআলা নিজে এ মাসের নামকরণ করেন ‘মহররম’। আরবরা এ মাসকে ‘সফরুল আউয়াল’ তথা প্রথম সফর নামকরণ করে নিজেদের ইচ্ছা মতো যুদ্ধ-বিগ্রহসহ বিভিন্ন কাজকে হালাল ও হারাম করতো। অবশেষে আল্লাহ তাআলা এ অবস্থাকে নিষিদ্ধ করে এ মাসের ইসলামি নামকরণ করেন ‘শাহরুল্লাহিল মুহাররাম’ তথা মহররম আল্লাহর মাস।

এ মাসের ১০ তারিখকই পবিত্র ও তাৎপর্যপূর্ণ আশুরা। নিঃসন্দেহে আশুরার দিনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও মর্যাদার দিন। এ দিনটি মুসলিম উম্মাহকে পৃথিবীর বিভিন্ন ঘটনার কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। এক কথায় এ দিনটি দ্বীন প্রতিষ্ঠায় হিজরত এবং হক তথা উত্তম প্রতিষ্ঠার জন্য এক সুমহান দিন। এ কারণেই মুসলিম উম্মাহ এ দিনটিকে বিশেষ আমল তথা রোজা পালনের দিন হিসেবে শ্রদ্ধা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালন করে থাকে।

√_আশুরার রোজা

মহররম মাস ত্যাগ ও আদর্শের সেই বার্তায় স্মরণ করিয়ে দেয়; যা প্রত্যেক মুমিন মুসলমান হৃদয় দিয়ে অনুভব করে। পবিত্র এ মাস আলোকিত হয়েছে আশুরায় রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের বকরতপূর্ণ সিয়াম সাধনায়। হাদিসে এসেছে-

১. হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘রমজানের পর সর্বাধিক ফজিলতপূর্ণ রোজা হল আল্লাহর মাস মহররমের রোজা।’

হাদিসে বর্ণিত মহররমের রোজাটি মূলত ১০ মহররম তথা আশুরার রোজা। মহররমের মর্যাদা ও বরকতের উৎসও এদিন রোজা রাখা।

২. হজরত আবু কাতাদাহ রাদিয়াল্লাহু আনহুর বর্ণনায় আছে আশুরার রোজা সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বললেন- আশুরার রোজা বিগত বছরের পাপসমূহ মোচন করে দেয়।’

আশুরার রোজা সব নবি-রাসুলের আমলেই ছিল। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মক্কায় থাকতেও আশুরার রোজা পালন করতেন। হিজরতের পর মদিনায় এসেও নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দেখতে পেলেন, ইয়াহুদিরা এই দিনে রোজা রাখছে। তিনি রোজা রাখার কারণ জানলেন এবং সাহাবায়ে কেরামকে বললেন, ‘মুসা আলাইহিস সালামের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক ইয়াহুদিদের চেয়ে বেশি ঘনিষ্ঠ ও অগ্রগণ্য। সুতরাং তোমরাও আশুরায় রোজা রাখ। তবে তাদের অনুকরণ বা সাদৃশ্য যেন না হয় সে জন্য তিনি আগের কিংবা পরের ১ দিন রোজা পালনের কথাও বলেছেন।

দ্বিতীয় হিজরির রমজান মাসে রোজা ফরজ হওয়ার আগ পর্যন্ত আশুরার রোজা ছিল বাধ্যতামূলক। রমাজনের রোজা ফরজ হওয়ার পর আশুরার রোজা নফল হয়ে যায়। তবে রমজানের রোজা রাখার পর আশুরার রোজা সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ও ফজিলতপূর্ণ। এ মাসের নফল রোজা ও অন্যান্য ইবাদত রমজান মাস ব্যতিত অন্য যেকোনো মাস অপেক্ষা অধিক উত্তম বলে ঘোষিত হয়েছে হাদিসে।

√_আশুরায় ২টি রোজা রাখা সুন্নাত

আশুরা উপলক্ষ্যে দুইটি রোজা রাখা সুন্নত। রোজা রাখার পদ্ধতি হল- মহররমের ৯-১০ কিংবা ১০-১১ তারিখ রোজা রাখা। এ রোজা রাখলে পুরো এক বছরের গোনাহ মাফ করে দেবেন বলে আশাবাদী ছিলেন বিশ্বনবি। হাদিসে এসেছে-

হজরত কাতাদা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘আশুরার রোজার ব্যাপারে আমি আশাবাদী, আল্লাহ তাআলা এর অছিলায় বিগত জীবনের এক বছরের গোনাহ মাফ করে দেবেন।’ (তিরমিজি ও মুসনাদে আহমাদ)

√_আশুরায় ছোট বাচ্চাদের রোজা

হজরত রুবাইয়্যেই’ বিনতে মুআ’ওয়েয রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আশুরার দিন সকালে আনসারি সাহাবাগণের গ্রামগুলোতে দূত পাঠিয়ে (এ রকম) ঘোষণা দিতে বলেন, ‘যে ব্যক্তি সকালে কিছু খেয়ে ফেলেছে সে যেন বাকি দিন না খেয়ে পূর্ণ করে। আর যে ব্যক্তি না খেয়ে আছে সে যেন অবশ্যই রোজা রাখে। তিনি (রুবাইয়্যেই’) বলেন, ‘এরপর আমরা নিজেরা রোজা রাখতাম এবং আমাদের বাচ্চাদেরকেও রোজা রাখাতাম। আর তাদেরকে তুলা দ্বারা বানানো খেলনা দিতাম। যখন তাদের কেউ খানার জন্য কাঁদত তখন ইফতারি পর্যন্ত ঐ খেলনা দিয়ে রাখতাম।’ (বুখারি ও মুসলিম)

মুসলিমের বর্ণনায় এসেছে, ‘আমরা বাচ্চাদের জন্য তুলা দ্বারা খেলনা বানাতাম এবং আমাদের সাথে রাখতাম। যখন তারা খানা চাইত তখন তাদেরকে খেলনা দিয়ে ভুলিয়ে রাখতাম; যাতে করে তারা তাদের রোজা পূর্ণ করে।

√_মহররমের আমল

আশুরার দিন রোজা রাখা মহররমের অন্যতম আমল। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নির্দেশনা অনুযায়ী আশুরায় নয় বরং মহররম মাসে আমল করার কথা বলেছেন। আর আশুরায় রোজা রাখার পাশাপাশি তাওবাহ-ইসেতেগফার ও দান সাদকার কথাও বলেছেন। তাছাড়া মহররম মাসজুড়ে বেশি বেশি নফল রোজা ও তাওবাহ-ইসতিগফারের প্রতি সবাইকে উৎসাহিত করা হয়েছে। তাই মাসব্যাপী আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা মুমিন মুসলমানের জন্য একান্ত আবশ্যক। হাদিসে এসেছে-

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যদি রমজানের পর আরও কোনো মাসে রোজা রাখতে চাও তবে মুহররমে রোজা রাখ। কেননা সেটি আল্লাহর মাস। এ মাসে এমন একটি দিন রয়েছে, যেদিন আল্লাহ তাআলা অনেকের তাওবা কবুল করেন। ভবিষ্যতেও আরও অনেক মানুষের তাওবা কবুল করবেন।’ (তিরমিজি, মুসনাদে আহমদ)

তাওবা ও ইসতেগফারের জন্য সবচেয়ে উত্তম হলো কুরআন-হাদিসে বর্ণিত ইসতেগফার বিষয়ক দোয়াগুলো বুঝে বুঝে পড়া। এ দোয়াগুলোর মাধ্যমে ক্ষমা চাইলে আল্লাহ বান্দাকে ক্ষমা করে দেবেন।

উল্লেখ্য যে, আগামীকাল ২০ আগস্ট শুক্রবার ১০ মুহররম। সে হিসেবে যারা আশুরার দিন রোজা রাখতে চান তারা ২০-২১ আগস্ট মোতাবেক ১০ ও ১১ মহররম রোজা রাখা জরুরি।

মাসজুড়ে দোয়ার আমল-

মাসজুড়ে তাওবাহ-ইসতেগফার বছরব্যাপী কল্যাণ লাভে এ দোয়া পড়া আবশ্যক। তাহলো-

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা আদখিলহু আলাইনা বিল-আমনি, ওয়াল ইমানি, ওয়াস সালঅমাতি, ওয়াল ইসলামি, ওয়া রিদওয়ানিম মিনার রাহমানি, ওয়া ঝাওয়ারিম মিনাশ শায়ত্বানি।’ (আল-মুঝাম আল আওসাত)

বেশি বেশি ক্ষমা প্রার্থনা করা

উচ্চারণ : রাব্বানা জ্বালামনা আংফুসানা ওয়া ইল্লাম তাগফিরলানা ওয়া তারহামনা লানাকুনান্না মিনাল খাসিরিন।’ (সুরা আরাফ : আয়াত ২৩)

অর্থ : ‘হে আমাদের প্রভু! আমরা নিজেদের ওপর জুলুম করেছি। আপনি যদি আমাদের ক্ষমা না করেন এবং দয়া না করেন তবে অবশ্যই আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাব।’

সব সময় ইসতেগফার পড়া

উচ্চারণ : আসতাগফিরুল্লাহাল্লাজি লা ইলাহা ইল্লা হুয়াল হাইয়্যুল ক্বাইয়্যুম ওয়া আতুবু ইলাইহি; রাব্বিগফিরলি ওয়া তুব আলাইয়্যা, ইন্নাকা আংতাত তাওয়্যাবুল গাফুর।

সকালে এবং সন্ধ্যায় সাইয়েদুল ইসতেগফার পড়া-

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা আংতা রাব্বি লা ইলাহা ইল্লা আংতা খালাক্বতানি ওয়া আনা আবদুকা ওয়া আনা আলা আহদিকা ওয়া ওয়াদিকা মাসতাতাতু আউজুবিকা মিং শাররি মা সানাতু আবুউলাকা বি-নিমাতিকা আলাইয়্যা ওয়া আবুউ বিজান্মি ফাগফিরলি ফা-ইন্নাহু লা ইয়াগফিরুজ জুনুবা ইল্লা আংতা।’

√_ আশুরার রোজা যেভাবে রেখেছিলেন বিশ্বনবি[ সাঃ-]

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আশুরার রোজা পালনের ৪টি অবস্থা ছিল। তাহলো-

মক্কায়

তিনি মক্কায় অবস্থানকালীন সময়ে নিজে আশুরার রোজা পালন করেছেন কিন্তু কাউকে সে সময় রোজা রাখতে নির্দেশ দেননি।

মদিনায়

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন মদিনায় আগমন করলেন, তখন ইয়াহুদিদেরকে এই দিনে রোজা রাখতে দেখে কারণ জিজ্ঞাসা করে জানার পর তিনিও এই দিনে রোজা পালন করাকে পছন্দ করলেন এবং সাহাবাদেরকেও রোজা রাখার নির্দেশ দিলেন।

দ্বিতীয় হিজরিতে

হিজরি দ্বিতীয় বছরে যখন রমজানের রোজা ফরজ হয় তখন তিনি সাহাবাদেরকে আাশুরার রোজা রাখার আর নির্দেশ দেননি। অন্য বর্ণনায় রয়েছে, তিনি সাহাবাদেরকে আর নির্দেশও করেননি আবার নিষেধও করেননি।

বিশ্বনবির ইন্তেকালের আগে

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ইন্তেকালের আগে তিনি ও তার সাহাবায়ে কেরামগণ সকলে শুধু মহররমের ১০ম তারিখ রোজা রাখতেন। কিন্তু সাহাবাগণ যখন অভিযোগ জানালেন যে, এই দিনটিতে ইয়াহুদিরাও উৎসবের দিনে হিসেবে গণ্য করে থাকে এবং রোজা রাখে; তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ‘আমি যদি পরবর্তী বছর বেঁচে থাকি তবে ইনশাআল্লাহ ৯ তারিখও রোজা পালন করব।’

উল্লেখ্য, ইমাম কুরতুবি রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেছেন, হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহারে বর্ণনা থেকে জানা যায়, জাহেলি যুগে (মক্কার) কুরাইশরাও আশুরার রোজা রাখতো। এ থেকে প্রমাণিত হয় যে, জাহেলি যুগেও এই দিনটি তাদের কাছে পরিচিত ছিল। সম্ভবত এটি হজরত ইবরাহহিম ও ইসমাঈল আলাইহিমাস সালামের শরিয়তও ছিল। কারণ মক্কার কুরাইশরা ছিল হজরত ইবরাহিম ও ইসমাঈল আলাইহিমাস সালামের অনুসারী। আর মদীনার ইয়াহুদিগণ ছিলো হজরত মুসা আলাইহিস সালামের অনুসারী।

√_ সফর অবস্থায় আশুরার রোজার হুকুম কী?

হজরত আবু জাবালাহ থেকে মুআবিয়াহ বিন সালিহ বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেছেন, আমি ইমাম জুহরি (ইবনু শিহাব) এর সঙ্গে সফররত অবস্থায় ছিলাম। তিনি আশুরার রোজা রাখলে তাকে বলা হলো- আপনিকি সফররত অবস্থায় আশুরার রোজা রাখবেন? অথচ সফর অবস্থায় রমজানের ফরজ রোজা রাখার ব্যাপারে রুখসাত রয়েছে?

উত্তরে তিনি বলেছেন, নিশ্চয়ই রমজানের রোজা প্রসঙ্গে আল্লাহ বলেছেন, সফর অবস্থায় থাকলে রমজান পরবর্তী দিনগুলোতে তা আদায় করে নেবে। কিন্তু আশুরার ব্যাপারে এ ধরণের কোনো বক্তব্য নেই, যদি তুমি সফর অবস্থায় আশুরার রোজা ছেড়ে দাও তাহলে এর ফজিলত ছুটে যাবে।

হজরত ইবনে রজব রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেছেন, সালাফদের একটি অংশ; তারা সফরাবস্থায়ও আশুরার রোজা রাখতেন। তারা হলেন- হজরত ইবনে আব্বাস, আবু ইসহাক, ইমাম জুহরি প্রমুখ।

√_ রমজানের ফরজ রোজা কাজা থাকলে আশুরার রোজা রাখার হুকুম কী?

শাইখ মুহাম্মাদ বিন সালিহ আল-উসাইমিন রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেছেন, যে ব্যক্তি রমজানের রোজা কাজা থাকা অবস্থায় আশুরার দিন আশুরার নিয়তে রোজা রাখবে তার রোযা শুদ্ধ হয়ে যাবে। কিন্তু কেউ যদি এই (আশুরার) দিনে তার কাজা (ফরজ) রোজা রাখে তবে সে দুইটি সাওয়াবই অর্জন করবে। তার কাজা রোজার সাওয়াব এবং আশুরার রোজার সওয়াব।’ (ফাতাওয়া আল-উসাইমিন)

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, মহররমের ফজিলত ও মর্যাদা রক্ষায় যে কোনো ঝগড়া-বিবাদ, রক্তপাত ও জুলম-অত্যাচার থেকে বিরত থাকা। আশুরার রোজা পালন করা। হাদিসের ওপর যথাযথ আমল করা। বছরের বাকি সময়ের জন্য মহররমের শিক্ষাকে গ্রহণ করা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে মহররম মাসের মর্যাদা রক্ষার তাওফিক দান করুন। আশুরার রোজা রাখার তাওফিক দান করুন। বিগত এক বছরের সগিরাহ গোনাহ থেকে মুক্ত থাকার তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখকঃ নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো | সাবেক কাউন্সিলরঃ বিএফইউজে-বাংলাদেশ _ও _ সদস্য ডিইউজে ||

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম