1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরণ হোক বিজয়ের মাসের অঙ্গীকার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
মানিকছড়িতে ইউপিডিএফ (মূল) এর প্রতিবাদ ধর্মঘট ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে প্রকল্পে সঞ্চয়ের টাকা পেলেন ৮০ জন নারী শ্রমিক ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে নির্মাণের ২ বছরের মাথায় ধসে গেল সাড়ে ৩ কোটি টাকার ব্রিজ ! চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের উদ্যোগে মাদকদ্রব্য উদ্ধার সহ ১১ জন গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে ৪ হাজার গছের চারা বিতরণ দায়িত্ব পালন না করেও বেতন নিচ্ছেন মৈশকরম প্রাইমারি স্কুলের দপ্তরি শফি মাগুরায় রাতের আঁধারে বীর মুক্তিযোদ্ধার ঘর পোঁড়ানোর অভিযোগ!!! রাজবাড়ী থেকে কুচাঁ যাচ্ছে দেশের বাইরে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাপানি ভাষা শ্রেণিকক্ষ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন

মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরণ হোক বিজয়ের মাসের অঙ্গীকার

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ২০২ বার

সরকার আওলাদ হোসেন :
বাঙ্গালীদের স্বাধীন রাষ্ট্র গঠন- এ জনপদের হাজার বছরের ইতিহাসে এক অনন্য বিরল ঘটনা। সে কালের বাঙালি, শত সহ¯্র প্রাণ দিয়েছে স্বাধীনতার জন্য কিন্তু বাঙালি স্বাধীনতা অর্জন করতে সক্ষম হয়নি। শুধু বাংলাদেশের বাঙালিরাই ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর প্রমাণ রেখেছে যে, “তারা দাঁড়াইতে জানে বীর সমাজে”। ত্রিশ লক্ষ শহীদ, দুই লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রম আর নয় মাসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম শেষে ১৯৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর পাক সেনাদের পরাজয় এবং আতœসমর্পণের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করে। বাঙালি জাতি স্বাধীন হলো, বিশ্বের মানচিত্রে স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে চিহিৃত হলো বাংলাদেশ।

আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ একদিনে সৃষ্টি হয়নি। খ্রিষ্টীয় প্রথম ও দ্বিতীয় শতাব্দীতে বাংলাদেশের অবস্থান সম্পর্কে কিছু তথ্য গ্রিক ও ল্যাটিন উৎস সমূহ রয়েছে। পেরিপ্লাস গ্রন্থ ও টলেমির বিবরণ হতে জানা যায়, বাংলায় স্বাধীন গঙ্গারিডি রাজ্য ছিল এবং এ রাজ্যের রাজধানী শহর গঙ্গে একটি প্রসিদ্ধ বন্দর ছিল। এমনকি ক্যালটিস নামক স্বর্ণ মুদ্রা বিনিময়ের মাধ্যমে হিসেবে প্রচলন ছিল বলে গ্রন্থে পাওয়া যায়।

সময়ের প্রয়োজনে, পালবংশের শাসন, সেনবংশীয় রাজত্ব,স্বাধীন সুলতানি আমল হয়ে নবাবী শাসনের মাধ্যমে রাজ্য পরিচালনা হয়েছিল।

১৭৫৭ সালের ২৩ জুন। সেকালের বাংলার স্বাধীন নবাব সিরাজদৌলা তার বিশাল বাহিনী নিয়ে ইংরেজ বণিকদের সাথে যুদ্ধে, কূটকৌশল- ষড়যন্ত্র- আর বিশ্বাস ঘাতকতা কারণে পরাজিত হন এবং নবাবকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়। ইতিহাসে তাকে পলাশির যুদ্ধ নামে খ্যাত। প্রকৃত পক্ষে পলাশিতে যুদ্ধ হয়নি, হয়েছে প্রহসন। নবাবের উজির উমরাহ এবং সেনাপতিরা ছিল বিশ্বাস ঘাতক।

১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহ সংঘটিত হয়। মোগল সম্রাট বাহদুর শাহ জাফরের নামে যুদ্ধ পরিচালিত হয়। শৃংখলার অভাব এবং বিশ্বাসঘাতকতার কারণে সিপাহী বিদ্রোহ ব্যর্থ হয়। বৃদ্ধ সম্রাট নির্বাসিত হয় রেঙ্গুনে। ১৮৫৮ সালে ইংল্যান্ডে রাণী ভিক্টোরিয়া ভারতের শাসন ভার নিজ হাতে গ্রহণ করেন। যদিও পরিচালনা করতেন গভর্নর জেনারেল (রাজপ্রতিনিধি) পাঠিয়ে। কোম্পানি এবং বৃটিশ রাজের শাসন মিলিয়ে একশত নব্বই বছর শাসন করেছেন।

১৮৮৫ সালে ভারতীয় কংগ্রেস পার্টি গঠিত হয়। প্রথমে রাজনৈতিক আন্দোলন চালনোর ইচ্ছা না থাকলেও পরবর্তীতে রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়। এ দিকে পূর্ববঙ্গে ১৯০৬ সালে নবাব সলিমুল্লাহ, মুসলমানদের একটি রাজনৈতিক দল থাকার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে গঠন করেন মুসলিমলীগ। তার মৃত্যুর পর গঠিত হয় নিখিল ভারত মুসলিমলীগ।

১৯৪০সালের বহু পূর্বে ভারতে ইংরেজ বিরোধী আন্দোলন শুরু হয়ে যায়। ফলে সংগঠিত হয় ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন, অসহযোগ আন্দোলন, খেলাফত আন্দোলন, স্বরাজ স্বদেশী আন্দোলন, ফ্যাসীবাদী আন্দোলন ইত্যাদি।
অতপর ১৯৪৬ সালে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্লিমেন্ট এটলির উদ্দ্যোগে ভারতীয় স্বাধীনতার জন্য বিলেত থেকে কেবিনেট মিশন ভারতে প্রেরণ করেন। কেবিনেট মিশন তিনটি সেকশনে বিভক্ত করে ভারতের স্বাধীনতা দেওয়ার প্রস্তাব কংগ্রেস এবং মুসলিমলীগ কর্তৃক উপেক্ষিত হয়। অবশেষে কংগ্রেস নেতা নেহেরু এবং মুসলিমলীগ নেতা জিন্নাহ, লর্ড মাউন্টব্যাটের চেষ্টায় সমঝোতায় আসেন। দ্বি-জাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে ১৯৪৭ সালের ১৪ই আগস্ট পাকিস্তান স্বাধীনতা লাভ করেন। পাকিস্তান অংশে সিন্দু প্রদেশ, উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ, বেলুচিস্তান এবং বিভক্ত পাঞ্জবের পশ্চিম অংশ। সেই নিয়মে বঙ্গদেশও বিভক্ত হয়ে পূর্ববঙ্গ পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত হয়।

১৯৪৭ সালে স্বাধীনতার পর দেখা গেল, পাকিস্তান একটি অস্বাভাবিক রাষ্ট্রে পরিনত হলো। যার পশ্চিমাংশ থেকে পূর্বাংশের দূরত্ব প্রায় ১৪০০ মাইল। আর মধ্য খানে ভারত শাসিত অঞ্চল।

পাকিস্তানের প্রথম কেন্দ্রীয় প্রশাসনে এক-তৃতীয়াংশ পূর্ববঙ্গের আর দুই-তৃতীয়াংশ পশ্চিম পাকিস্তানী। অথচ সমগ্র পাকিস্তানের লোকসংখ্যার ৫৬% পূর্ববঙ্গের জনগণ। এমনকি সামরিক তিন বাহিনীর প্রধান ও হেডকোয়াটার্স পশ্চিম পাকিস্তানে। শুরু হয় বাঙালির শোষণ ও বঞ্চনার দিন যাপন। পাকিস্তানের স্বৈরশাসন, শোষণ এবং নির্যাতনের ফলে কালক্রমে সংঘঠিত হয় ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, বাষট্টি শিক্ষা আন্দোলন, ছিষট্টি ছয় দফা, ৬৯ গনঅভ্যুত্থান, অবশেষে ১৯৭০ এর নির্বাচনে আওয়ামীলীগের অভূতপূর্ব বিজয়। কেন্দ্রে ১৬০ টি আসনে ১৫৮টিতে বিজয় এবং প্রদেশিক পরিষদের ৩১০টি আসনে ২৯৮টি বিজয় হওয়া সত্বেও ক্ষমতা হস্তান্তরে পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠি শুরু করে তালবাহানা যার ফলশ্রুতিতে মুক্তিযুদ্ধ অনিবার্য হয়ে ওঠে।

ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় ২৬শে মার্চ দিবাগত রাতে যখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়। তখন জাতীয় চার নেতাই আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে দল মত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে অপূর্ব দক্ষতার সঙ্গে স্বাধীন বাংলার প্রথম সরকার গঠন ও পরিচালনা করেন এবং বিজয় ছিনিয়ে আনেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি ও তার অনুপস্থিতে সৈয়দ নজরুল ইসলামকে উপ-রাষ্ট্রপতি এবং তাজউদ্দিন আহমদ কে প্রধানমন্ত্রী করে স্বাধীন বাংলার প্রথম সরকার গঠন করেন। যা মুজিবনগর সরকার হিসেবে সর্বাধিক পরিচিত। এই সরকারের নেতৃত্বেই আমাদের বিজয় অর্জিত হয়।

১৯৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর ৯৩ নব্বই হাজার পাকসেনার আত্মসর্ম্পনের মাধ্যমে আমাদের বিজয় নিশ্চিত হয়েছে। আমরা পেয়েছি লাল সবুজের পতাকা। একটি মানচিত্র। একটি স্বাধীন ভূ-খন্ড বাংলাদেশ।

বিজয়ের ৪৮ বছর পরও পাকিস্তান নামক রাষ্ট্র ১৯৭১ সালে তাদের সেনাবাহিনী দ্বারা সং গঠিত নৃংসস বাঙালি হত্যাকান্ড, নারী-শিশু নির্যাতন ও অন্যান্য নারকীয় কর্মকান্ডের জন্য বাংলাদেশের কাছে ক্ষমা প্রর্থনা করে নাই। যা আমাদের জন্য অত্যন্ত বেদনাদায়ক। এমতাবস্থায় বাংলাদেশের কাছে ক্ষমা প্রর্থনা করার জন্য আর্ন্তজাতিক চাপ সৃষ্টি করে পাকিস্তানকে বাধ্য করতে হবে।
লেখক : সরকার আওলাদ হোসেন
বিসিএস সাধারণ শিক্ষা
চৌমুহনী সরকারি এস এ কলেজ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম