1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মুজিববর্ষ : খোকা থেকে বিশ্ব নেতা বঙ্গবন্ধু - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:৪১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

মুজিববর্ষ : খোকা থেকে বিশ্ব নেতা বঙ্গবন্ধু

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ, ২০২০
  • ২১০ বার

প্রাকৃতজ কবি শামীমরুমি টিটন :
কালের শ্রেষ্ট রাষ্ট্রনেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর দূরদৃষ্টি, নেতৃত্ব মানবিকতা এবং আত্নত্যাগই ‘সোনার বাংলা ‘ গঠনের স্বপ্নের সৃষ্টি । এই বিশ্ব নেতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে জাতির অসীম শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার পাশাপাশি আজ বাংলাদেশ সেই স্বপ্ন পূরণের পথে অগ্রগামী দেখে বিশ্বের অন্যান্য দেশের নেতারা যারপরনাই খুশি। দীর্ঘ পরাধীনতার নিকষ অন্ধকারে নিমজ্জিত বাঙালি জাতির ভাগ্যাকাশে মুক্তির প্রভাকর রূপে জন্ম নেওয়া এই‘খোকা’ নামের শিশুটি শিক্ষা-দীক্ষা মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি,মহত্তম জীবনবোধ সততা,সাহস,দক্ষতা ও দূরদর্শী নেতৃত্বে হয়ে ওঠেন বাংলাদেশ নামক স্বাধীন-সার্বভৌম জাতি-রাষ্ট্রের মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
১৯২০ সালের ১৭ মার্চ তদানীন্তন ফরিদপুর জেলার গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গিপাড়ায় পিতা শেখ লুৎফর রহমান এবং মাতা সায়েরা খাতুনের ঘর আলোকিত করে জন্মগ্রহণ করেন শেখ মুজিব নামের এই উজ্জ্বল নক্ষত্র। চার বোন এবং দুই ভাইয়ের মধ্যে শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন তৃতীয়।

শেখ মুজিবুর রহমান টুঙ্গিপাড়ার চিরায়ত গ্রামীণ সমাজের সুখ-দুঃখ,হাসি-কান্না আবেগ-অনুভূতি শিশুকাল থেকে গভীরভাবে প্রত্যক্ষ করেছেন। গ্রামের মাটি আর মানুষ তাকে প্রবলভাবে আকর্ষণ করতো। শৈশব থেকে তৎকালীন সমাজ জীবনে তিনি জমিদার,তালুকদার ও মহাজনদের অত্যাচার,শোষণ ও পীড়ন দেখে চরমভাবে ব্যথিত হতেন। গ্রামের হিন্দু, মুসলমানদের সম্মিলিত সম্প্রীতির সামাজিক আবহে তিনি দীক্ষা পান অসাম্প্রদায়িক চেতনার।

কিশোর বয়সেই তিনি সক্রিয় রাজনীতিতে অংশ নেন। গোপালগঞ্জের মিশন স্কুলে অষ্টম শ্রেণিতে অধ্যায়নকালে তৎকালীন ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে যোগদানের কারণে শেখ মুজিবুর রহমান প্রথমবারের মতো গ্রেপ্তার হয়ে কারাবরণ করেন। এরপর থেকে শুরু হয় বঙ্গবন্ধুর আজীবন সংগ্রামী জীবনের অভিযাত্রা। তিনি বিশ্বের অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে সারাজীবন এদেশের মাটি ও মানুষের অধিকার আদায় ও কল্যাণের জন্য সংগ্রাম করেছেন। বাঙালি জাতির মুক্তির জন্য জীবনের ১৪টি বছর পাকিস্তানি কারাগারের অন্ধপ্রকোষ্টে বন্দি থেকেছেন,দুইবার ফাঁসির মঞ্চে মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছেন। কিন্তু আত্মমর্যাদা ও বাঙালি জাতির অধিকার আদায়ের প্রশ্নে কখনো মাথা নত করেননি,পরাভব মানেননি।

দীর্ঘ ২৩ বছরের আন্দোলন-সংগ্রামের পথপরিক্রমায় বঙ্গবন্ধু তাঁর অসংখ্য সহকর্মীদের নিয়ে ১৯৪৮ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এবং পরবর্তীতে ১৯৪৯ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গঠন করেন। ১৯৫২-এর ভাষা আন্দোলন, ৫৪- এর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন,৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন,৬৬- এর ছয়-দফা আন্দোলন,৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান পেরিয়ে ৭০ সালের ঐতিহাসিক নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হন।

বঙ্গবন্ধুর সাহসী,দৃঢ়চেতা, আপসহীন নেতৃত্ব ও বীরত্বপূর্ণ সংগ্রামে অনুপ্রাণিত হয়ে জেগে ওঠে নির্যাতিত-নিপীড়িত পরাধীন বাঙালি জাতি। মুক্তির অদম্য স্পৃহায় উদ্বুদ্ধ করে তিনি বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতার চূড়ান্ত সংগ্রামে ঐক্যবদ্ধ করে তোলেন। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে ঐতিহাসিক ভাষণে ঘোষণা করলেন-” ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’”

৭ মার্চে বঙ্গবন্ধুর এই ঐতিহাসিক ঘোষণার পর দেশজুড়ে শুরু হয় সর্বাত্মক অসহযোগ আন্দোলন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পূর্বে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু। মহান মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবন্ধুর অবিসংবাদিত নেতৃত্বে ৯ মাসব্যাপী রক্তক্ষয়ী সশস্ত্র যুদ্ধের মধ্য দিয়ে ৩০ লক্ষ শহীদের আত্মদান ও ২ লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমহানির বিনিময়ে অর্জিত হয় স্বাধীনতা। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বিশ্ব মানচিত্রে অভ্যুদ্বয় ঘটে স্বাধীন বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের।

বাংলা বাঙালি বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশ এক ও অবিচ্ছেদ্য অংশ। শেখ মুজিব মানেই বাংলাদেশ। মুক্তিকামী মানুষের স্লোগানের নাম শেখ মুজিব। বাঙালি জাতির চেতনার ধনমীতে প্রবাহিত শুদ্ধতম নাম শেখ মুজিব। তিনি চিরন্তন চিরঞ্জীব; বাঙালির প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের মাঝে অবিনাশী চেতনার নাম শেখ মুজিব। তিনি বাঙালি জাতির কাছে স্বাধীনতা নামক মহাকাব্যের মহানায়ক, পরাধীনতার শৃঙ্খল মুক্তির মহান পথপ্রদর্শক, আবহমান বাংলা ও বাঙালির হাজার বছরের আরাধ্য পুরুষ। তিনি বাঙালির অসীম সাহসীকতার প্রতীক—সমগ্র বাঙালি জাতির সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বীর।

বাঙালি ও বাংলাদেশের গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কালজয়ী নাম। বিশ্ববাঙালির গর্ব মৃত্যুঞ্জয়ী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। তিনি বাঙালি জাতীয়তাবাদের প্রবক্তা ও বাঙালি মানসে জাতীয়তাবোধ সৃষ্টির নির্মাতা। দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রাম এবং সীমাহীন ত্যাগ-তিতীক্ষার মধ্য দিয়ে তিনি বাঙালি জাতির জন্য একটি স্বতন্ত্র রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেছেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাত্রিতে বিশ্বাসঘাতকদের নির্মম বুলেটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হন। পরবর্তীতে অবৈধভাবে ক্ষমতাদখলকারী বঙ্গবন্ধুর খুনি স্বৈরশাসক স্বাধীন বাংলাদেশে পাকিস্তানি ভাবধারার বিকৃত ইতিহাস ও মূল্যবোধের বিস্তার ঘটানোর পাঁয়তারা চালায়। খুনিরা ইতিহাসের পাতা থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে নানা ধরনের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর স্বাধীন বাংলাদেশে সামরিক-স্বৈরাচার তিন দশক ধরে প্রজন্মের পর প্রজন্মকে ভুল ইতিহাস শেখাবার অপচেষ্টা চালায়। খুনিরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে কিন্তু বঙ্গবন্ধুর চেতনা ও আদর্শকে মুছে ফেলতে পারেনি। বঙ্গবন্ধুর অবিনাশী চেতনা ও আদর্শ চির অনির্বাণ হয়ে প্রজ্জ্বলিত থেকেছে প্রতিটি বাঙালীর হৃদয়ে।
সেই মহা জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে আমার লেখা কবিতাগ্রন্থ ” রক্তেভেজা স্বাধীনতা ও জীবনের দেনা ” দেশপ্রেমের কবিতা সমগ্র থেকে সর্বপ্রথম যে কবিতাটি শুরু হয়েছে সেই কবিতাটি হচ্ছে ” জনক ” এই কবিতা সমগ্র থেকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্বরণীয় করে আমার কবিতার উক্তিটি বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে আমার এই লেখাটি কবিতার পঙক্তি দিয়ে শেষ করবো। কবিতাটি হচ্ছে
জনক –
যে শিশুটি জন্মেছিল
দশমাস দশদিন পরে—-
অনিরুদ্ধপথে – রক্তস্রোতে
জনন- জঠর ছিন্ন করে —-
ডাকে জননীকে ভূবনের সুরে
আহা কি মধুর ! বেদনা বিভোর,
আহ কি মধুর !

দারুণ কষ্টের ব্যথা ভুলে মায়াময়
দরদে আদরে, কী গভীর মমতায়-
মাতৃবাঁটে শিশুটিকে বুকে চেপে ধরে –জননী শোনায় তারে জন্মস্বত্বের গান–আহা কি মধুর !

অমলিন অক্ষয় পটে অনাহত নাদে – বিচিত্র রাগ — রাগিণীর সুর বেজে ওঠে
অমিয় অশেষ — এক মহান ইতিহাস
অভেদ জন্মকথা — জন্মভূমি বাংলাদেশ — আহা কি মধুর !

জন্মেছিল স্বদেশ
আটমাস একুশদিন পরে —
ভবজঠর ছিন্ন করে ভূমি
জন্মস্বত্বের মানচিত্র আঁকে; সবুজ– শ্যামলিমায় রক্তাক্ষরে লেখে —–
বাংলার মানুষের রক্তের ইতিহাস ! আহা কি মধুর !

যে– জনক বুনেছিল বীজ
আট- দশমাস আগে
ধরণির গর্ভ – পৃষ্ঠ- তলে ;
মাটি, জল, প্রাণবায়ু
মৃত্তিকা – জনিতে প্রসূ—

প্রজন্ম প্রজন্মান্তরে
ভূগর্ভজাত ভূমিষ্ট শিশু
জন্মভূমি বাংলাদেশ !
আহা কি মধুর !

লাল — সবুজের পতাকা মিনারে
অহোদিন — রাত সুর বেজে ওঠে
প্রিয় স্বদেশ — চির বাংলাদেশ
আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি ।
আহা কি মধুর……! [ আহা কি মধুর !, আহা কি মধুর ! ]

বিশ্ব অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলা ও বাঙালি যত দিন থাকবে, এই পৃথিবীর ইতিহাস ও যতদিন থাকবে তিনি একইভাবে প্রজ্জ্বলিত হবেন প্রতিটি বাঙালির হৃদয়ে, প্রতিটি মুক্তিকামী,শান্তিকামী, মানবতাবাদী হৃদয়ে।

বাংলাদেশ শেখ মুজিব ও স্বাধীনতা — একটি আরেকটির পরিপূরক । শব্দ তিনটির সম্পৃক্ততা এতটাই নিবিড় ও ঐতিহাসিক এবং সব বিশ্লেষণে এতটাই উদ্ভাসিত, প্রদীপ্ত ও প্রোজ্জ্বল যে, শতাব্দীর পর শতাব্দী আলোক বিচ্ছুরিত করতে থাকবে । পরাধীনতার বক্ষ বিদীর্ণ করে স্বাধীনতার সূর্যকে ছিনিয়ে আনার মহান ব্রতে উজ্জীবিত হয়ে গণতান্ত্রিক ধারায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে যে পথ বিনিমার্ণ করেছে, তাঁর মূর্ত প্রতীক ছিলেন এই বিশ্ব অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সরকারের পক্ষ থেকে ও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বঙ্গবন্ধু যে জিনিসগুলো চেয়েছিলেন সেগুলো শেখ হাসিনার সরকার ধাপে ধাপে বাস্তবায়ন করেছে । আজকের শেখ হাসিনা সেখান থেকে উত্থানটা তো করলেন । আজকে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার – এই সাহসী পদক্ষেপগুলো নিচ্ছেন একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা । আমরা অনেকে অনেক সময় কথা বলতে পারি। কিন্তু তাঁর জীবনটা নিয়ে কি কেউ একবার ও চিন্তা করেছেন । তিনি শেখ হাসিনা কিভাবে দেশে ফিরেছিলেন ।
আজকের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তখন দেখে গেলেন তাঁর বাবা একজন রাষ্ট্রপ্রতি। মা তাঁর ঘরসংসার ও পরিবার সামলাচ্ছেন । তারপর তিনি এলেন এসে দেখেন তাঁর কিছুই নেই । স্বামী – পুত্র – কন্যা রেখে আসতে হলো বিরানভূমি মাতৃভূমি বাংলাদেশে। তিনি দেশে আসার পর মৃত্যুপথযাত্রী জীবন যাপন শুরু করেন । প্রতিটা মুহূর্তে তাঁর জীননাশের হুমকি চলছিল । এমন একটি অবস্থায় দেশে যে রাজনীতি করে শেখ হাসিনা একটি দলকে ক্ষমতায় নিয়ে এসেছেন তিন / চারবার। আজকের সেই দলের মাধ্যমে দেশকে তিনি এ পর্যায়ে নিয়ে এসেছেন। তাঁর মানসিক অবস্থা কী ছিল । তিনি আজ জাতির হাল ধরে আছেন। বাস্তবতা কিন্তু অনেক কঠিন । বাস্তবতা যদি আমরা স্বীকার করি, একটা শব্দ করার মতো কোনো ভাষা নেই।
শেখ হাসিনাকে দেওয়ার মতো কিছু নেই । তিনি দেশকে দিয়ে যাচ্ছেন । বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি পদক্ষেপ শেখ হাসিনা বাস্তবায়ন করছেন। সুতরাং বঙ্গবন্ধুর পথ থেকে সরে যাওয়ার প্রশ্নই আসে না। তাঁর অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করার মাধ্যমে জাতিকে একটি সমৃদ্ধশালী জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা সম্ভব হয়েছে । শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে কোন পর্যায়ে নিয়ে গেছেন তা বিশ্ব আজ উপলব্ধি করছে।

পরিশেষে সুপ্রিয় পাঠকদের কাছে আমার লেখা কবিতাগ্রন্থ
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কে নিয়ে প্রকাশিত কবিতা’ মহান দেশপ্রেমিকের সোনালী স্বপ্নের ইতিহাস ‘ কবিতার ছন্দটি একটু আলোকপাত করে লেখাটি শেষ করছি! এ -স্বাধীন বাংলাদেশে– তাঁর আগে এমন জন্মায়নি কেউ
এ –বাংলায় জন্মেছিল এক স্বপ্নকন্যা– সে বড়ো স্বপ্নবাজ
রুপকথার মতো
অথচ দিবাবাস্তব
পৃথিবীর মতো
৪৬০ কোটি বছরের ইতিহাস বিদিত বিজ্ঞাত
ভূপৃষ্ঠের পলেপলে ভূগর্ভ- জ্বলে জগতের ইতিহাস-
হিসেব করেছে যাঁরা– তত্ত্ব– তাত্ত্বিক জ্ঞানীগুণী বৈজ্ঞানিক !
আজও তাঁরা বিস্মিত কী করে প্রাণ পেল ধরণী–জগৎ
বিস্ময়ে বিমুঢ়
যে অগ্নিগর্ভ থেকে জন্ম নিয়েছে পৃথিবী–বিশ্বের বিস্ময়
এই অগ্নিগর্ভ থেকে জন্মেছে বাংলাদেশ।
যখন উত্তাল মার্চ–অগ্নি–বোমা — বারুদে সব ছারখার-পোড়া ধ্বংসস্তুুপ ! -২৫ মার্চ কালরাত
নির্মম নির্বিচারে-
হত্যাযজ্ঞ চালায় নিদ্রাগত নিরীহ বাঙালির উপর-বুলেট- বেয়নেটে হত্যা খুন করে খুনি পাক-হানাদার- হিংস্র দানব-পশু ঘৃণ্য–পাষন্ড-বর্বর বিষ্ঠা জানোয়ার ! তারপর নয় মাস স্বাধীনতা সংগ্রামে মহাইতিহাস
‘ বাংলার মানুষের রক্তের ইতিহাস ‘ শাশ্বত অমলিন।
অগণিত মুক্তিযোদ্ধার আত্মত্যাগে অর্জিত এ- স্বাধীনতা-গৌরব মহান-দেশ- জাতি ফিরে পায় চির জাতির পিতা। হাজারো বছরের শ্রেষ্ঠ জাতি জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ।
মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার |

প্রাকৃতজ শামিমরুমি টিটন জীবন ও জ্ঞানসাধনায় কর্মযোগী সিদ্ধ সাধকপুরুষ । বিপুল বিশাল তাঁর কর্মকীর্তি ও রচনা সম্ভার । বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পাশাপাশি কর্মে আত্মনিয়োগ করেন তৎকালীন সময়ে মাসিক ‘ আনন্দন ‘ পত্রিকার ( ডিএ ১০৪০ ) প্রকাশক ও সম্পাদক হিসেবে । সময়টা ছিল আজ থেকে ২৮/২৯ বছর আগে । তৎকালীন দৈনিক বাংলার মোড় ২২১ ফকিরাপুল এলাকায় ছিল তাঁর প্রকাশনার অফিস । বর্তমানে এর কোনটিরই অস্তিত্ব আর অবশিষ্ট নেই । অবশ্য তার সেই পথরেখায় সৃষ্টি হয়েছে আন্তর্জাতিক খ্যাতি — সম্পন্ন প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ‘ দি- অ্যাটলাস পাবলিশিং হাউস ‘ বাংলাবাজার এবং ‘ সেবা প্রিন্টার্স ; ওয়ারী ঢাকা । উক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিষ্ঠাতা মহাপরিচালক তিনি । টিটন’স ওয়ার্ল্ড অ্যাটলাস, বাংলাদেশ অ্যাটলাস, টিটন’স মানচিত্রে বিশ্বপরিচিতি ও বাংলাদেশ পরিক্রমা, ভূ – সংস্থানিক তথ্যকোষসহ অ্যাটলাস গ্রন্থগুলোই তাঁর খ্যাতির দ্বার উন্মোচন করেছে । এনেছে বিপুল পাঠক প্রিয়তা ও বৈষয়িক সাফল্য অর্জন ।

তাঁর রচিত পুস্তকরাশি জনপ্রিয়তা ঈর্ষণীয় । শিশুদের জন্যে ‘ পড়া নিয়ে খেলা ‘ দিয়ে শুরু হয়ে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্য পুস্তক বোর্ডের টেকস্ট বইসহ প্রায় শত গ্রন্থের প্রণেতা তিনি । তাঁর রচিত বহু গ্রন্থ স্কুল – কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠ্য পুস্তক হিসেবে গৃহীত । সবচেয়ে তাঁর লেখা পাঠ্যগ্রন্থ ‘ উচ্চতর স্বর্নির্ভর বিশুদ্ধ ভাষা – শিক্ষা ‘ গ্রন্থটি এ – এযাবৎকালে বাংলাদেশে সর্বোচ্চ জনপ্রিয়, এবং অনন্য যুগান্তকারী গ্রন্থ হিসেবে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে স্থান অধিকার করে নিয়েছে ।

লেখকঃ কবি, পরিবেশবিদ, ( এনসিটিবি অনুমোদিত শত গ্রন্থের প্রণেতা ) গবেষক, সংগীতজ্ঞ এবং সমাজ শিক্ষা সংস্কৃতি – চিন্তক।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম