ফুড পান্ডার রাইডারকে মারধরের ব্যাক্তিটি আসলে কে…?

বিশেষ প্রতিবেদকঃ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সাভারের ফুড পান্ডার রাইডার সামাজিক যোগাযোগ মার্ধ্যমে ভাইরাল হওয়া ব্যাক্তি রাইডার আবদুল লতিফ রোজাদার ছিলেন।

রোজা থেকে খাবার নিয়ে চারতলায় না উঠায় সাভারের আব্দুল লতিফ নামের ফুডপান্ডার এক রাইডারকে মারধর করেছে স্থানীয় ব্যক্তি। ঘটনাটির ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক ভাইরাল হওয়ার পরেই তিনি গনমার্ধ্যমে হাজির হয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) রাতে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ভুক্তভোগী রাইডার আব্দুল লতিফ।

ঘটনার দিন বুধবার (১৪ এপ্রিল) বিকাল ৫টার দিকে সাভার পৌরসভার বনপুকুরের মালঞ্চ আবাসিক এলাকায় এ মারধরের ঘটনা ঘটে।

ঘটনার সময় পাশের ভবনে থাকা এক ব্যক্তি ভিডিওটি মোবাইলে ধারন করে সামাজিক যোগাযোগ মার্ধ্যমে পোস্ট করলে। পরবর্তীতে সেই ভিডিওটি ফেসবুকে ছাড়ালে ধীরে ধীরে ভাইরাল হতে শুরু করে।

মারধর কারী ব্যাক্তির পরিচয় জানা গেলেও সেই ব্যক্তির নাম সাইদুর রহমান সুজন বলে বিশেষ প্রতিবেদক মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী মানু’কে নাম না প্রকাশের শর্তে জানিয়েছেন তিনি । তিনি আরোও বলেন, তার বনপুকুরের মালঞ্চ আবাসিক এলাকায় একটি ইলেকট্রনিকস এর দোকান রয়েছে বলেও তিনি নিশ্চিত করেছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মার্ধ্যমে ভাইরাল হওয়া ৩ মিনিট ৮ সেকেন্ডের সেই ভিডিওতে দেখা গেছে, একটি সাইকেল নিয়ে ফুডপান্ডার রাইডার লতিফ দাড়িয়ে আছে। সুজন নামের সেই ব্যক্তি গালিগালাজ করছে। একপর্যায়ে মারধর শুরু করেছে। প্রথমে কয়েকটি থাপ্পড় মারার এক পর্যায়ে এক নারী এসে লতিফকে বাচানোর চেষ্টা করে। কিন্তু পরক্ষনে কথায় কথায় আবার মারধর শুরু করেন সুজন৷ পরে সুজনের সাথে থাকা আরেক ব্যক্তি লতিফকে মারধর করে তাড়িয়ে দেয়৷

ভুক্ত ভোগি রাইডার আবদুল লতিফ এ প্রতিবেদককে বলেন, গতকাল প্রথম রোজার দিন সুজন নামের এক ব্যক্তি খাবারের ওয়াডার দিয়েছিলেন। আমি সেই অর্ডারকৃত খাবার ডেলিভারি দিতে নিয়ে গিয়েছি। তিনি চারতলা যেতে বলেছিলেন আমাকে আমি রোজা ছিলাম তাই যেতে চাইনি। পরে সে নিচে নেমে এসে নানান গালিগালাজ করে এক পর্যায়ে আমার গায়ে হাত তুলে মারধর করে। আমাকে মারধরের বিষয়টি ফুডপান্ডা কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি তারা ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে আমাকে জানিয়েছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মার্ধ্যমে ভাইরাল হওয়া বিষয়ে সাইদুর রহমান সুজনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি গতকাল ৫.১৫ মিনিটের দিকে খাবারের ওয়াডার দিয়েছি একটি হালিমের ওর্ডার । উনি আমার ভবনের সামনে এসে ফোন করেন। আমি তখন বলি ভাই আমি একটু অসুস্থ আপনি খাবারটা একটু চারতলায় এসে দিয়ে যান। আমার পায়ে একটু অসুবিধা আছে আমাকে একটু দিয়ে গেলে উপকার হবে। পরে সে বলে দেওয়া যাবে না। পরে আমি তাকে বলি কোনো ভাবে কি ওয়াডার ক্যান্সেল করে দেওয়া যায় কিনা। তখন তিনি আমাকে বাজে ভাবে বকা দেয়। আমার কথাটা শুনে খুবই খারাপ লেগেছে। পরে আমি নিচে নেমে তাকে সরি বলতে বলি সে বলেনি। এর জন্য রাগ হয় আমার। এই হলো ঘটনা। আমি রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত রয়েছি। তবে এমপি সাহেবের পিএস না।
আপনি কোন দলের রাজনীতি করেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি ফোন কেটে দিয়ে বন্ধ করেন।

এ ঘটনার বিষয়ে সাভার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) সাইফুল ইসলাম বলেন,আমাদের কাছে কেউ এ ধরনের অভিযোগ করেনি। অভিযোগ করলে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবো বলে তিনি জানান।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.